বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

একই পোশাকে দুই থেকে তিন রকম সাজ আনা সম্ভব অনায়াসেই, এমনটাই বলছিলেন ডিভাইন বিউটি লাউঞ্জের রূপবিশেষজ্ঞ বাপন রহমান। পাশাপাশি চুলের বাঁধন একটা বড় বিষয় হয়ে দাঁড়ায়।

সাজ ১

default-image

এ ধরনের একটি পোশাকের সঙ্গে সাজের নমুনা দেওয়া হলো এখানে। প্রথম দিন কোথাও যাওয়ার সময় পোশাকটির সঙ্গে হালকা মেকআপে সাজুন। হালকা বেস মেকআপে ব্লাশনের ছোঁয়াটুকু শুধু থাকবে সাজে। চোখ আঁকতে পারেন আইলাইনারের টানে। হালকা গোলাপি টোনের লিপস্টিক ব্যবহার করুন ঠোঁটে। ব্যস, এই হালকা মেকআপেই পরিপূর্ণ আপনার সাজ। যদি দিনের বেলা হয়, সে ক্ষেত্রে চুল ব্লো ডাই করে ছেড়ে রাখাই ভালো। একটা স্নিগ্ধ আবহ খেলা করবে পুরো সাজে। কামিজের ওড়না পেছন থেকে হাতে জড়িয়ে নিতে পারেন। কানে রিং, দুল—এ ধরনের হালকা সাজে মানাবে।

সাজ ২

default-image

আবার একই পোশাকে হয়তো রাতে কোথাও যাচ্ছেন। সেটা হতে পারে কারও বাসায় বেড়ানো অথবা বন্ধুদের দাওয়াত। এ সময় চুল মাঝবরাবর সিঁথি করে পেছনে টেনে নিন। পেছনের চুলে এবার খোঁপা বাঁধতে পারেন। চোখের পাপড়িতে একটু ঘন করে মাসকারা লাগান। ওপরে আইলাইনারে রেখাটা টেনে নিচে ড্রেসের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে শ্যাডো ব্লেন্ড করে নিন। ঠোঁটে থাক গাঢ় রঙের লিপস্টিক। ছোট লাল টিপ আর ঐতিহ্যবাহী নকশার রুপার দুলে পরিপূর্ণ সাজ। এ সময় কামিজের ওড়নাটা গলায় ঝুলিয়ে নিন।

সাজ ৩

default-image

জমকালো অনুষ্ঠানে গেলে সাজটা তো একটু জমকালো হতেই হয়। কামিজের সঙ্গে চুলগুলোকে স্পাইরাল কোঁকড়া করে নিন। এবারও মাঝবরাবর সিঁথি করে নিন। সামনের চুলের দুই দিকে বেণি গেঁথে দুই পাশে আটকে নিন। কোঁকড়া করা চুলগুলো সামনে এনে ছড়িয়ে দিন। সাজের ক্ষেত্রে এ সময় একটু গাঢ় মেকআপ বেছে নিন। আইলাইনার দিয়ে চোখ দুটি টেনে নিন। চোখের ওপরের পাতায় ব্রোঞ্জ ও পোশাকের রঙের টোনের শ্যাডো ব্যবহার করতে পারেন। শ্যাডো ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। যেহেতু চোখের সাজটা একটু ভারী হচ্ছে, তাই ঠোঁটে ন্যুড লিপস্টিকের ব্যবহার করুন। এ ধরনের সাজে খুব জমকালো গয়না মানায় না। তাই কানপাশা দুল পরতে পারেন। এখানে কামিজটি কুর্তা হিসেবে পরুন। এবার আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দেখুন, সাজের পরিবর্তনে একই পোশাকে কেমন নতুন দেখাচ্ছে আপনাকে।

নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন