বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ত্বক পরিষ্কার করতে

default-image

তেলসমৃদ্ধ ক্লিনজার ত্বকের গভীরে গিয়ে সহজে ময়লা তুলে আনতে পারে। মুখ ধুয়ে ফেলার সঙ্গে সঙ্গে তেলতেলে ভাব ও ময়লা—দুটোই দূর হয়ে যাবে।

স্ক্রাবের বিকল্প

অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকে স্ক্রাব ব্যবহার করলে সমস্যা হতে পারে। ভালো সমাধান হলো তেলসমৃদ্ধ ক্লিনজার। তবে ক্লিনজার ব্যবহারের আগে ত্বক অনুযায়ী তেল নির্বাচন করুন। ভুল হলে ত্বকে প্রভাব ফেলবে। ত্বকে কোনো ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যেন না হয়, তাই ক্লিনজার তৈরিতে অবশ্যই ভালো মানের তেল ব্যবহার করুন। এ ছাড়া ত্বকের ধরন বুঝে ক্লিনজার ব্যবহারও সমানভাবে জরুরি।

ত্বক অনুযায়ী ক্লিনজার

default-image

ভিন্ন ভিন্ন তেলে তৈরি করতে হবে তিন ধরনের ত্বকের ক্লিনজার। সাধারণ শুষ্ক ত্বকের জন্য ক্লিনজার তৈরি করতে গোলাপ, অর্গান অয়েল, কমলার রস ব্যবহার করতে পারেন। সব উপাদান সমপরিমাণে নিয়ে তৈরি করে ফেলুন ক্লিনজার। অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকে সমস্যা হয় সব থেকে বেশি। বিশেষ করে শীতে প্রাকৃতিক তৈলাক্ত ভাব কমে আসে। এমন ত্বকের জন্য সমপরিমাণ জলপাই তেল ও কাঠবাদামের তেল মিশিয়ে ক্লিনজার তৈরি করে নিতে পারেন। তৈলাক্ত ত্বকে তেল ব্যবহারে চাই বাড়তি সতর্কতা। লেবুর তেল ও কয়েক ফোঁটা টি ট্রি অয়েল মিশিয়ে ক্লিনজার তৈরি করে নিন।

পরামর্শ

মুখ ধোয়ার পর ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করবেন না। সাধারণত তেলসমৃদ্ধ ক্লিনজার ব্যবহারের পর নতুন করে আর ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করার প্রয়োজন পড়ে না।

ব্যবহার

প্রথমে ত্বকে তেল দিয়ে হালকাভাবে কয়েক মিনিট মালিশ করে নিন। মালিশ করা শেষ হলে ২০ সেকেন্ড তা মুখে রেখে দিন। এরপর উষ্ণ কাপড় দিয়ে ত্বক থেকে তেল খুব আলতোভাবে মুছে ফেলুন এবং মুখ ধুয়ে নিন। সবার শেষে অবশ্যই ত্বকের ধরন বুঝে টোনার ব্যবহার করুন, যাতে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকে।

নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন