বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাড়ির ছাদেই হতে পারে বনভোজনের আয়োজন। তবে সেখানেও মানতে হবে বিধিনিষেধ। শুধু পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিই থাকবে এখানে। ঘরে থাকা চাল, ডাল আর সবজিতে জমে উঠুক এ ছাদভোজনের আয়োজন।

default-image

সকালের নাশতার আয়োজনটা হতে পারে বাড়ির ছাদে। খুব বেশি কিছু কিন্তু লাগবে না। শুধু সকালের বাড়িতে তৈরি প্রাতরাশ, সুন্দর তৈজস আর একটা চাদর নিয়ে উঠে যান ছাদে। এবার চাদর বিছিয়ে তার ওপরই খাবারের আয়োজন করে ফেলুন। আর হাসি–আড্ডা–গানে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মাতিয়ে তুলুন সকালটা।

শীতের অলস বিকেলটা জমে উঠতে পারে পিঠাপুলির আয়োজনে। ছাদে চলতে পারে এসব পিঠাপুলি বানানোর আয়োজন। নিজেদের হাতে বানানো পিঠাপুলি খেতে খেতে ভাইবোনেরা মেতে উঠতে পারে আনন্দ–আড্ডায়।

default-image

হয়তো অন্য সময় ব্যস্ততার কারণে এসব হয়ে ওঠে না। তাই এ ছুটির রাতকে আনন্দময় করে তুলতে বাড়ির ছাদে বারবিকিউর আয়োজন তো করা যেতেই পারে। বাজারে বারবিকিউর জন্য আলাদা চুলা পাওয়া যায়। তবে তা যদি না থাকে, চিন্তার কিছু নেই। দুটি ইট জোগাড় করে তারপর মাঝখানে কয়লা রাখুন। এবার শিকে মাংস গেঁথে কয়লায় আগুন জালিয়ে ঝলসে নিন। খেয়াল রাখবেন, শীতের দিনে বাতাস বেশি থাকে। এ কারণে যেন কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে।

default-image
নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন