default-image

দেশীয় উপকরণে হাতে বোনা কাপড় আর পোশাকে গ্রামবাংলার চিরপরিচিত সূচিকর্ম নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ফ্যাশন ডিজাইনারদের সংগঠন ফ্যাশন ডিজাইন কাউন্সিল অব বাংলাদেশের (এফডিসিবি) আয়োজনে স্প্রিং ইন ব্লুম প্রদর্শনী। এর মূল বিষয় ছিল পরিবেশবান্ধব ফ্যাশন। প্রদর্শনীতে ১৫ জন ডিজাইনারের তৈরি পোশাকে দেশীয় বুনন ও সুই-সুতার সেলাইয়ের কাজ ফুটে উঠেছে।

১৮ মার্চ ঢাকার গুলশান নর্থ অ্যাভিনিউয়ে এডেন গ্যালারিতে শুরু হয় এ প্রদর্শনী, শেষ হয় ২০ মার্চ। এতে আয়োজন করা হয়েছিল ছোট পরিসরের ফ্যাশন শো বা ফ্ল্যাশ শো, যেখানে ১৫ জন ডিজাইনারের নকশা করা পোশাক দেখানো হয়।

এফডিসিবির সভাপতি মাহিন খান বলেন, করোনা–পরবর্তী সময়ে কারুশিল্পীদের পাশে দাঁড়াতেই এই আয়োজন। দেশীয় উপকরণে বোনা ও সূচিকর্ম দিয়ে তৈরি পোশাকগুলোয় একটা বৈশ্বিক ছোঁয়া আনার জন্য কাটিংয়ে পাশ্চাত্যে ঘরানার একটা আমেজ আনা হয়েছে।

হাতে বুননের পাশাপাশি পোশাকগুলোয় দেশীয় অনেক রকম সূচিকর্ম প্রাধান্য পেয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে ডাল ফোঁড়, চেইন ফোঁড়, রান ফোঁড়, মাকসা ফোঁড়, ক্রস ফোঁড়, ভরাট ফোঁড়, হেম ফোঁড় ইত্যাদি। এ ছাড়া নকশায় বিভিন্ন দেশীয় অনুষঙ্গ যেমন ব্লক, টাই–ডাই, অ্যাপ্লিক, গ্রামীণ চেক তো রয়েছেই।

প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণকারী ডিজাইনার শৈবাল সাহা বলেন, এ প্রদর্শনীর প্রধান লক্ষ্য পরিবেশবান্ধব, হাতে তৈরি পোশাক, যা আমাদের দেশীয় ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি তুলে ধরবে। হারিয়ে যাওয়া অনেক ধরনের সূচিকর্মই পোশাকগুলোয় ভিন্ন মাত্রা এনেছে।

টেপা পুতুল আমাদের পুরোনো সংস্কৃতির অংশ। ডিজাইনার আফসানা ফেরদৌসি টেপা পুতুলকে তাঁর নকশার অনুষঙ্গ হিসেবে নিয়েছে। গ্রামবাংলার নারীদের নানা রূপ তিনি টেপা পুতুলের অবয়বে তুলে ধরেছেন।

প্রদর্শনীতে ডিজাইনার মাহিন খান, শৈবাল শাহা, এমদাদ হক, চন্দনা দেওয়ান, শাহারুক আমিন, লিপি খন্দকার, ফাইজা আহমেদ, আফসানা ফেরদৌসি, তেনজিং চাকমা, কুহু প্লামন্দন, তাসফিয়া আহমেদ, সায়িদা রশিদ, হোসনা এমদাদ, ফারাহ আনজুম, রিফাত রহমান অংশ নেন।

এই আয়োজনের সহযোগিতায় ছিল ট্রেসেমে।

বিজ্ঞাপন
নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন