বিজ্ঞাপন

খাবারের তেলের দাগ

রান্না করার সময় অনেকের জামায় তেল ছিটকে আসে। আমরা খাবারে তেল–মসলা বেশি ব্যবহার করি, সে কারণে তেলটা একটু গাঢ় হয়ে যায়। যখন খাবারের তেল জামায় ছিটকে আসবে, তখন সেই জায়গায় ট্যালকম পাউডার ছিটিয়ে সারা রাত রেখে দিতে হবে। পরের দিন সাবান দিয়ে কাপড়টি ধুয়ে ফেলতে হবে।

শুধু তেলের দাগ

চুলে আমরা তেল দিই। সে তেল অনেক সময় বালিশের কাভারে, চাদরে বা জামায় লেগে যায়। অনেক সময় বাচ্চাদের তেল মালিশ করার পর জামার মধ্যে তেল লেগে যায়, তখন সেই তেল আপনি শ্যাম্পু দিয়ে ধুলেই চলে যাবে।

হলুদের দাগ

কাপড়ে হলুদ দাগ লাগলে যা করতে হবে, প্রথমে যে জায়গায় দাগ লাগবে, সে জায়গায় লেবুর রস দিয়ে একটু ঘষে রোদে শুকিয়ে নিতে হবে। তারপর সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এরপরও যদি দাগ না যায়, সে ক্ষেত্রে গ্লিসারিন লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে নিতে হবে।

চা বা কফির দাগ

চা বা কফির দাগ পোশাকে লেগে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ধুয়ে ফেলতে হবে। তাহলে আর দাগ পড়বে না। তারপরও যদি দাগ লেগে যায়, তাহলে সাবান পানি দিয়ে ধুয়ে ফেললেই হবে। কিন্তু অনেক সময় আমরা লক্ষ করি না, তখন দাগ পোশাকে বসে যায়। সেই বসে যাওয়া দাগে চিনি আর পানির পেস্ট কিছুক্ষণ লাগিয়ে রেখে দিতে হবে। তারপর সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। যত বেশি চিনি ব্যবহার করা হবে, তত তাড়াতাড়ি দাগ উঠবে। চা বা কফির দাগ তরল দুধ দিয়েও তুলতে পারি। কাপড়টা কিছুক্ষণ দুধে ভিজিয়ে রাখতে হবে, তারপর সাবান দিয়ে দিয়ে ধুয়ে ফেললেই দাগ চলে যাবে।

চকলেটের দাগ

বাচ্চারা চকলেট খাওয়ার সময় পোশাকে দাগ লাগায়নি, এমন দৃশ্য দেখা ভার। পোশাক থেকে সেই চকলেটের দাগ তোলার জন্য প্রথমেই যতটা সম্ভব চকলেট তুলে ফেলতে হবে। এরপর সাবান মেশানো গরম জলে কাপড়টি ভিজিয়ে রাখতে হবে। যদি এরপরও চকলেটের দাগ থেকে যায় কাপড়ে, তাহলে পানিতে সামান্য স্যানিটাইজার মিশিয়ে আরও কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখুন। এরপর গরম পানি দিয়ে কাপড় ধুয়ে নিন।

কলমের কালির দাগ

কলমের দাগ ওঠানোর জন্য দুধে ভিজিয়ে রাখতে হবে অথবা ব্রাশ বা স্পঞ্জ দুধে ভিজিয়ে দাগ লাগানো জায়গা ঘষতে হবে। তারপর সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। সাদা কাপড়ে কলমের দাগ লাগলে অ্যালকোহল বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার দাগে লাগিয়ে কিছুক্ষণ ঘষলে দাগ চলে যেতে পারে।

ঘামের দাগ

নতুন পোশাকে ঘামের দাগ তুলতে হলে লাগবে পানি আর খাবার সোডা। এক সিকি কাপ পানিতে চার টেবিল চামচ খাবারের সোডা মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করতে হবে। তারপর ঘামের দাগ লাগানো জায়গায় পেস্টটি দিয়ে ঘণ্টাখানেক কাপড়টি ভিজিয়ে রাখতে হবে। ব্রাশ দিয়ে জায়গাটা একটু ঘষে নিলে দাগ চলে যাবে।

লোহা থেকে লাগা মরিচার দাগ

বারান্দায় কাপড় রোদ দেওয়ার সময় মরিচার দাগ লেগে থাকে। সেই কাপড়ে লেগে থাকা মরিচার দাগ তোলার জন্য লেবু বা ভিনেগারের সঙ্গে লবণের একটা পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। পেস্টটি দাগে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে সাবান–পানি দিয়ে ধুয়ে নিলেই হবে।

গ্রিজের দাগ

কাপড় থেকে গ্রিজের দাগ তুলতে দাগের ওপরে কর্নফ্লাওয়ার বা ট্যালকম পাউডার ছড়িয়ে দিন। কিছুক্ষণ এভাবেই রাখুন যেন কর্নফ্লাওয়ার বা ট্যালকম পাউডার গ্রিজ শুষে নিতে পারে। তারপর কর্নফ্লাওয়ার বা ট্যালকম পাউডার ঝেড়ে ভালোভাবে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে দিলেই হবে।

মেহেদির দাগ

মেহেদির দাগের সঙ্গে আমরা কমবেশি পরিচিত। এই দাগ তুলতে যা করতে হবে, পানির সঙ্গে বেকিং সোডা মিশিয়ে একটি পেস্টের মতো করে কাপড়ের যে জায়গায় মেহেদি লেগেছে, সেখানে লাগিয়ে শুকিয়ে নিতে হবে। পেস্ট শুকানোর পর ঘষে ধুয়ে নিলেই হবে।

কাপড় থেকে লাগা রঙের দাগ

কাপড় থেকে যাতে অন্য কাপড়ে দাগ না লাগে, সে ক্ষেত্রে আপনাকে আগের থেকে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। যেকোনো রঙিন কাপড় ব্যবহারের আগে লবণ–পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখতে হবে। কাপড়টিকে এরপর সাবান–পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এতে কাপড়ের রং আরও টেকসই হয় এবং এক কাপড়ের রং অন্য কাপড়ে লাগে না।

রক্তের দাগ

রক্তের দাগ শুকিয়ে গেলে ওঠাতে বেশ বেগ পেতে হয় কাপড় থেকে। কাপড়টি পানিতে ভিজিয়ে দাগের ওপর লবণ ছড়িয়ে দিতে হবে। তারপর ভালোভাবে ঘষে নিলে লবণ দাগ তুলতে সাহায্য করবে। এরপর সাধারণ সাবান দিয়ে কাপড় ধুয়ে ফেলতে হবে।

পানের পিকের দাগ

পোশাক থেকে পানের পিকের দাগ তুলতে এক টুকরা পুরোনো কাপড় ও আলু লাগবে। দাগের ওপর কাপড় রেখে আলু দিয়ে জায়গাটি ঘষে নিলেই দাগ সহজে উঠে যাবে।

লিপস্টিকের দাগ

একটি সাদা রুটি নিয়ে ভেতরের সাদা অংশ গুঁড়া করে নিন। তারপর রুটির গুঁড়া লিপস্টিকের দাগের ওপর ঘষে নিতে হবে। আস্তে আস্তে লিপস্টিক পুরোটাই উঠে আসবে। দাগ উঠে গেলে কাপড়ে লেগে থাকা গুঁড়া ঝেড়ে ফেলুন।

রঙিন কাপড় থেকে দাগ তোলার উপায়

ভিনেগার ও মুলতানি মাটির পেস্ট দাগের ওপর লাগিয়ে রাখুন। পেস্টটি শুকিয়ে যাওয়ার পর ভেজা কাপড় দিয়ে দাগের ওপর ঘষুন। সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেললে দাগ উঠে যাবে।

নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন