আলপনায় সাজানো বিয়েবাড়ি। মডেল: তাজ্জি
আলপনায় সাজানো বিয়েবাড়ি। মডেল: তাজ্জিছবি: নকশা

বিয়ে মানেই সাজ সাজ রব। কনে সাজে, বর সাজে, সাজে আরও অনেকে। সাজিয়ে তোলা হয় বর-কনের ঘরবাড়িও। করোনাকালে বিয়ের সব আয়োজন হচ্ছে বাড়িতে। অনুষ্ঠানের জায়গা হিসেবেই সাজানো হচ্ছে বাড়ি। আয়োজন যত সীমিতই হোক না কেন, বাড়িটা হোক নান্দনিক।

পুরো বাড়ি থাক ছিমছাম। বাড়িতে নতুন চাদর, পর্দা, কুশন কভার, টেবিল ম্যাট প্রভৃতির ব্যবস্থা থাকতে পারে। অন্দরে আনা যেতে পারে নানা পরিবর্তন। যেমন আলোর ব্যবস্থায় ভিন্নতা অথবা ইনডোর প্ল্যান্ট কিংবা ফুলের তোড়ায় প্রকৃতির ছোঁয়া। অতিথিদের হাত ধোয়ার জায়গাটিও একইভাবে দৃষ্টিনন্দন করে তোলা যায়।

নীলাচল ইভেন্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) প্রিন্স আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, আগেকার দিনের বিয়ের মতো কাগজ দিয়ে সাজানো যেতে পারে এখনকার বিয়েবাড়ি। বাড়ির গ্যারেজ বা ছাদের মতো খোলা স্থানে হতে পারে এ ধরনের আয়োজন। নানা ধরনের কাপড়ও কাজে লাগাতে পারেন নান্দনিক সাজে।

বিজ্ঞাপন

কাগজ কেটে কাজ

কাগজের শিকল বা ঝালর দিয়ে সাজাতে পারেন বিয়েবাড়ি। শিকলের জন্য তিনকোনা করে কাগজ কাটতে পারেন, ফিতার মতো করে কেটে একটির মধ্যে আরেকটি ঢুকিয়েও শিকল তৈরি করা যায়। কাগজের ফুল কিংবা বল তৈরি করা যায়, আরও নানা সৃষ্টিশীল নকশা ফুটিয়ে তুলতে পারেন নানা রঙের কাগজে, নানাভাবে।

default-image
বিজ্ঞাপন

কাপড় আর উলের ব্যবহার

বাড়িতে কত রকম কাপড়ই তো থাকে। বেনারসি, শিফন, ডোরাকাটা, চেক নকশা বা মানানসই অন্য যেকোনো কাপড় এমনকি গামছাও কাজে লাগানো যায়। কাপড় দিয়ে করতে পারেন শামিয়ানা। দেয়ালে ইংরেজি ইউ অক্ষরের একটু পরিবর্তিত রূপে আটকে দিতে পারেন রং–বেরঙের কাপড়। উল দিয়ে তৈরি করতে পারেন পমপম বল। পমপম বলের চেইনও তৈরি করতে পারেন।

বিজ্ঞাপন

প্রকৃতির ছোঁয়া, আলোকিত অন্দর

ছাদে হতে পারে বিয়ের আয়োজন। কিংবা বিয়ের মঞ্চের দুই পাশে থাকতে পারে দৃষ্টিনন্দন গাছ, পেছনে থাকল (ব্যাকগ্রাউন্ড) কাপড়। ল্যাম্পশেড ব্যবহারে ভিন্নতা আনতে পারেন। নিজেরাই বাড়িতে ছোট পরিসরে করতে পারেন আলোকসজ্জা। দেয়ালে ঝোলাতে পারেন মরিচবাতি। ছাদে মঞ্চের সামনে রঙিন আলপনা অাঁকা থাকলে নান্দনিক হয়ে উঠবে। সিঁড়িতেও থাকতে পারে আলপনা।

বিজ্ঞাপন

আরও কিছু

default-image

পুঁতি-পাথরের চেইন দিয়ে সাজাতে পারেন বিয়ের মঞ্চ কিংবা বর-কনের ঘর। কাজে লাগাতে পারেন রঙিন ফিতা, জরি বা বড় চুমকি। চিকন ও রঙিন চুড়ি ফিতায় ঝুলিয়েও চেইন বানাতে পারেন। ছাদ থেকে ঝোলানো চেইন বা দেয়ালে সাজানো চেইন দারুণ দেখায়। তাজা ফুলের লম্বা চেইন দিয়ে সাজাতে পারেন বিয়ের জায়গাটা। ঘরের মেঝে ও দেয়ালে আঁকতে পারেন আলপনা। ঘরে বড় মাটির টব থাকলে তাতে নকশা করতে পারেন। মেঝেতে এঁকে নিতে পারেন আবিরের আলপনা। ককশিট বা শোলার নকশা কাজে লাগাতে পারেন। কৃত্রিম হারিকেন, কুলা, ডালা এমনকি লাউও ব্যবহার করতে পারেন দেয়ালসজ্জায়। বাড়িতে চাইলে বিয়ের মঞ্চ সাজাতে লোহার ফ্রেমও তৈরি করিয়ে নিতে পারেন।

সাহায্য নিতে

ঘর সাজানোর বিষয়ে অনলাইনভিত্তিক সেবা নিতে পারেন অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান থেকে। ইন্টারনেটের খোলা জানালা দিয়ে হাত বাড়িয়ে কুড়িয়ে নিতে পারেন বাড়ি সাজানোর টুকরো বুদ্ধি। কম খরচে, কম আয়াসে সামান্য কিছু যোগ করেই বিয়েবাড়ি সাজানো যেতে পারে অনবদ্য উপায়ে।

মন্তব্য পড়ুন 0