বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

যদিও বর্তমানে মাখন তৈরি ও সংরক্ষণের নিয়ম দুটিই পরিবর্তিত হয়েছে। এখন তিন উপায়ে মাখন সংরক্ষণ করা যায়। ফ্রিজে রেখে, বরফ করে ও মুখ বন্ধ পাত্রে ঘরোয়া তাপমাত্রায় সহজেই মাখন সংরক্ষণ করা যায়। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ফ্রিজে বা বরফ করে মাখন রাখা হয়। আর এতে মাখনের স্বাদ ও গন্ধের কোনো পরিবর্তনও হয় না। আর ননিযুক্ত মাখন বা সল্টেড মাখন ঘরের তাপমাত্রাতেই সংরক্ষণ করা সম্ভব। কারণ, এতে লবণ থাকায় তা একধরনের প্রাকৃতিক সংরক্ষকের কাজ করে।

রান্নাবিদ সিতারা ফেরদৌস মাখন সংরক্ষণ ও ব্যবহারের কিছু কার্যকর পরমর্শ দিয়েছেন।

* ফ্রিজে মাখন সংরক্ষণের আগে অনেকেই ওপরের মোড়ক খুলে রাখেন এবং ভিন্ন পাত্রে সংরক্ষণ করেন। কোনোভাবেই মাখনের ওপরের মোড়ক খোলা যাবে না। এতে মাখন গন্ধ হয়ে যায়। মাখন ভালো রাখার জন্য মোড়কের ওপর আরেকটি ফয়েল কাগজ মুড়িয়ে রাখলে মাখন সতেজ থাকে।

* মাখন স্পর্শকাতর খাবার। খুব সহজেই এর বাজে গন্ধ বের হয় এবং স্বাদেও আসে পরিবর্তন। তাই ফ্রিজে মাখন ভিন্ন বন্ধ পাত্রে সংরক্ষণ করতে হবে, যেন অন্য খাবারের গন্ধ মিলে না যায়। বিশেষ করে মাছ, মাংস ও সবজিজাতীয় খাবারের সঙ্গে মাখন রাখলে তা খাওয়ার অযোগ্য হয়ে যাবে।

ননিযুক্ত বা ননি ছাড়া দুই ধরনের মাখন ফ্রিজে তিন মাসের মতো ভালো থাকে। তবে মাখন ব্যবহারের সময়ে সাবধান থাকতে হবে। খাওয়ার সময় মাখন ছোট মাটার ডিশে ঢেকে রাখলে ভালো থাকবে। এ ছাড়া মোড়কের অল্প জায়গা খুলে ব্যবহার করতে হবে। আর চামচের চেয়ে ছুড়ি ব্যবহার করা ভালো।

* মাখন দীর্ঘদিন ভালো রাখতে বরফ করে রাখতে পারেন। এর জন্য মাখন ছোট ছোট টুকরা বা কিউব করে মোড়কে মুড়িয়ে মুখ বন্ধ পাত্রে রাখতে পারেন। এতে প্রয়োজনে কয়েকটি টুকরা নামিয়ে বাকিগুলো সঙ্গে সঙ্গে তুলে রাখতে পারবেন। এতে মাখন একেবারে সতেজ থাকবে। তবে বরফ করা মাখন অনেক আগে নামানো যাবে না। তাহলে দ্রুত গলে যাবে। তাই খাওয়ার ঠিক আগমুহূর্তে নামাতে হবে।

* বরফ করতে চাইলে অবশ্যই পাত্রের গায়ে তারিখ ও মাখনের ধরন সম্পর্কে লিখে রাখুন।

* ননিযুক্ত মাখন ঘরের তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করলে চুলার কাছে বা গরম স্থানে রাখা যাবে না। এতে মাখনের স্বাদ পরিবর্তিত হবে এবং গলেও যাবে।

নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন