default-image

‘হে বসন্ত, তুমি একটু শান্ত হয়ে বসো—

আমি তোমাকে আমার পরান ভরিয়া আঁকি।’

কবি নির্মলেন্দু গুণ তাঁর ‘বসন্তচিত্র’ কাব্যে বসন্তকে শান্ত হবার আকুলতা জানিয়েছেন, প্রাণভরে তাকে আঁকতে চেয়েছেন। তবে বসন্ত তো আর শান্ত হয়ে বসবার নয়। এবার অবশ্য সামগ্রিক পরিস্থিতি খানিকটা বিরূপ। তা সত্ত্বেও কিন্তু বাঙালির প্রাণে বসন্তের দোলা লেগেছে। আর বসন্তের রং তো প্রকৃতি থেকেই পাওয়া। ‘বসন্তচিত্র’ কাব্যেরই অন্য কিছু চরণ নিয়ে আসা যাক।

‘গাছের সবুজ পাতারা সবই প্রায় ঢাকা পড়েছে

হালকা হলুদ রঙের অজস্র বোলের আড়ালে।’

আর নানা রঙের ফুলে বসন্ত তো অনন্য। ‘ফুল ফুটুক আর না-ই ফুটুক আজ বসন্ত।’ তবে সাজে কিন্তু ফুল চাই-ই বাঙালি তরুণীর। জারা’স বিউটি লাউঞ্জ অ্যান্ড ফিটনেস সেন্টারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং রূপবিশেষজ্ঞ ফারহানা রুমি জানালেন, ফাল্গুনের সাজে পূর্ণতা আনতে নানা রঙের ফুলের ব্যবহার করা যেতে পারে। উজ্জ্বল হলুদ, কমলা রঙের ফুল বেছে নেওয়া যায়। মুখের সাজের সঙ্গে মানানসইভাবে গুছিয়ে নিতে হবে চুল। ফাগুন দিনের সাজের আরও নানা দিক জানালেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
default-image

সেই চেনা মুখটা

মেকআপ করতে চাইলে প্রথমে ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে, তাহলে ত্বক মেকআপের উপযোগী হবে। এরপর ভালো মানের ফেস সেরাম ব্যবহার করে ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম লাগিয়ে নিন। ফাল্গুনের উৎসব দিনের বেলাতেই হয়ে থাকে, তাই মেকওভারটিকে লম্বা সময় পর্যন্ত স্থায়ী করতে মেকওভারেরর আগে প্রাইমার লাগিয়ে নিন অবশ্যই। ১০ মিনিট পর ফাউন্ডেশনের সঙ্গে মিলিয়ে নিন কয়েক ফোঁটা সেরাম, এই মিশ্রণ মুখমণ্ডলে মসৃণভাবে লাগিয়ে নিলে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে। এরপর হালকা করে দিন ফেস পাউডার। শেড বাছাই করুন পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে।

চোখের সাজে, ঠোঁটের সাজে

হালকা আইশ্যাডোতেই ফাল্গুনের উৎসবে আসবে স্নিগ্ধতা। মাসকারা আর আইলাইনার গাঢ় করে লাগিয়ে নিন, চোখের নিচে চওড়া করে কালো কাজল দিন। সব শেষে ঠোঁটে দিন লাল কিংবা বাদামি নুড রঙের লিপস্টিক আর কপালে একটি লাল রঙের বড় টিপ। আর চুল খোলা রাখা যেতে পারে, আবার চাইলে খেজুর বেণি বা খোঁপা করতে পারেন। হাতে ও মাথায় পরতে পারেন ফুলের মালা।

নকশা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন