default-image

বিগত কয়েক বছরে আমরা মোটরসাইকেল শিল্পে বিপুল বিনিয়োগ করেছি, যাতে স্বল্প মূল্যে ভালো মানের মোটরসাইকেল ক্রেতাদের কাছে সরবরাহ করতে পারি। গত বছর মার্চ-এপ্রিল থেকে দেশে প্রথম দফায় করোনার সংক্রমণ শুরু হলে মোটরসাইকেল খাতে বিপর্যয় নেমে আসে। তাতে করোনার প্রথম ধাক্কায় মোটরসাইকেলের বিক্রি প্রায় ৫০ শতাংশ কমে যায়।

এ বছর যখন একটু একটু করে মোটরসাইকেলের বাজার বাড়ছিল, তখন শুরু হলো করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। এতে মোটরসাইকেল বিক্রি আরও কমেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, গত বছরের তুলনায় এ বছর বিক্রি আরও ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ কমতে পারে। তবে আমরা আশা করছি, কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে এলে বিক্রি আবারও বাড়বে। অধিকাংশ শিল্পপ্রতিষ্ঠান করোনার প্রথম ধাক্কা এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি। এখন আবার দ্বিতীয় ঢেউ আসায় আমরা ব্যবসা নিয়ে বেশ চিন্তিত।

বিজ্ঞাপন
মোটরসাইকেল খাত থেকে সরকার প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা রাজস্ব পায়। মোটরসাইকেল উৎপাদন, বিক্রি ও সংশ্লিষ্ট নানা কাজে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় দুই লাখ লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। এই খাতকে টিকিয়ে রাখতে সরকারের কিছু নীতি সহায়তার প্রয়োজন।

বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতিতে সরবরাহব্যবস্থায় অনেক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে কনটেইনার সংকট মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। সমুদ্রপথে জাহাজভাড়াও বাড়ছে। পণ্য আসতে অনেক বাড়তি সময় লাগছে। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির অবনতির কারণে সংযোগ শিল্প থেকে যন্ত্রাংশ সঠিক সময়ে সরবরাহ করতে পারছে না।

মোটরসাইকেল খাত থেকে সরকার প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা রাজস্ব পায়। মোটরসাইকেল উৎপাদন, বিক্রি ও সংশ্লিষ্ট নানা কাজে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় দুই লাখ লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। এই খাতকে টিকিয়ে রাখতে সরকারের কিছু নীতি সহায়তার প্রয়োজন।

বাজারে প্রতিবছর নতুন কিছু মডেলের মোটরসাইকেল যোগ হয়। মডেলগুলো বাজারজাতকরণের আগে প্রথমে সিকেডি (বিযুক্ত) অবস্থায় এনে বাজারে পরীক্ষা করা হয়। এভাবে ধাপে ধাপে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে উৎপাদনের দিকে এগিয়ে যাওয়া হয়। সুতরাং নতুন মডেল প্রবর্তনেও বেশ কিছু সময়ের প্রয়োজন হয়। কিছু মডেলের বাজার চাহিদা অত্যন্ত কম। কাজেই সেগুলো বাজারে আনতে সিকেডি পদ্ধতি অবলম্বন অব্যাহত রাখতে হয়। উৎপাদন করলে তা কিছুতেই লাভজনক হবে না। এ কারণে রং করা যন্ত্রাংশ আমদানির সময়সীমা দুই বছর, অর্থাৎ ২০২৩ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো দরকার।

বিজ্ঞাপন
প্র বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন