বিজ্ঞাপন

এটিভির মতো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অগ্রিম আয়কর আদায় করা হচ্ছে। ব্যবসা করতে পারলাম কি পারলাম না, সেটি মীমাংসা হওয়ার আগেই অগ্রিম কর দিতে হয়। আবার রপ্তানিকারকদের কাছ থেকে উৎসে কর নেওয়া হয়। বর্তমান সময়ে রপ্তানি আয় কমছে। রপ্তানির পরিমাণের পাশাপাশি পণ্যের দামও কমে গেছে। করোনার কারণে সবারই ব্যবসা কমেছে। তাই মহামারি চলাকালে অগ্রিম আয়কর ও রপ্তানিতে উৎসে কর আদায় বন্ধ রাখা উচিত।

আমাদের দেশে করপোরেট করহার অনেক বেশি। তাই দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসায়ীরা এই প্রাতিষ্ঠানিক কর কমানোর দাবি করে আসছেন। আমিও মনে করি, করপোরেট কর কমানো উচিত। এই কর কমানো হলেও সরকারের রাজস্বে ঘাটতি হবে না, যদি আমরা করের আওতা বৃদ্ধি করতে পারি। একসময় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) লোকবল–সংকটে করজাল বাড়ানোর ক্ষেত্রে বড় প্রতিবন্ধকতা হিসেবে দেখা হতো। তবে গত দুই–তিন বছরে সংস্থাটিতে অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ পেয়েছেন। সে কারণে বর্তমানে উপজেলা থেকে গ্রাম পর্যন্ত এনবিআরের কার্যক্রম বিস্তৃত করা সম্ভব হয়েছে। তাই আমার প্রত্যাশা, আগামী বাজেটে করপোরেট কর হ্রাস করে করজাল বাড়ানোর বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকবে।

এদিকে সব সময় রাজস্ব আদায়ে ৪০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে বাজেট করা হয়। তবে কখনোই সেই লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয় না। সর্বোচ্চ ১৪-১৮ শতাংশ রাজস্ব আয় বাড়াতে পারে এনবিআর। কিন্তু রাজস্ব আদায়ে ৪০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে আগেই করের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়। তাই বাজেটে রাজস্ব আদায় ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে করের পরিকল্পনা করা প্রয়োজন।

চার–পাঁচ বছর ধরে বেসরকারি খাতের বিনিয়োগে মন্দাভাব চলছে। তা সত্ত্বেও সরকারের বড় বড় প্রকল্পের কারণেই জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে। অপর্যাপ্ত অবকাঠামো, গ্যাস-বিদ্যুতের সংকটের কারণেই বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ কম হচ্ছিল। এমন পরিস্থিতিতে করোনাভাইরাসের ধাক্কা। বর্তমান সময়ে চীনের পর মিয়ানমার ও ভারত থেকেও অনেক বিদেশি বিনিয়োগ সরে যাচ্ছে। নতুন বিনিয়োগ আকর্ষণে আমাদের বড় শক্তি হতে পারে নির্মাণাধীন অর্থনৈতিক অঞ্চল। দ্রুত সময়ের মধ্যে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রস্তুত হলে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আসবে। তা ছাড়া বিনিয়োগ বাড়াতে ছোট ও মাঝারি শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে সুবিধা দিতে হবে। প্রস্তুত পণ্যেও সুরক্ষা দিতে নীতিসহায়তা লাগবে।

করোনা আমাদের বেশ ভালোভাবে শিখিয়ে দিয়েছে, স্বাস্থ্য খাত কতটা গুরুত্বপূর্ণ। এই খাতের সক্ষমতা বাড়াতে বাজেটে নীতিসহায়তা দিতে হবে, যাতে স্বাস্থ্য খাতে দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগ আসে। আমি মনে করি, নতুন উদ্যোক্তাদের কর অবকাশ সুবিধা দিলে স্বাস্থ্য খাতে বিনিয়োগ বাড়বে। বর্তমান সময়ে এটি আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

প্র বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন