default-image

প্রথম দিকে এটিএম থেকে শুধু টাকা উত্তোলন সুবিধা ছিল। পরবর্তী সময়ে একই যন্ত্রে টাকা জমার সেবা–সুবিধা চালু হয়, যার নাম সিআরএম বা ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন। এখন বিশ্বের অনেক উন্নত দেশে চালু হচ্ছে স্মার্ট টেলার মেশিন বা এসটিএম। যার মাধ্যমে নিমেষেই টাকা জমা দিয়ে ব্যাংকের হিসাব খোলা যাচ্ছে। এ ছাড়া ওই যন্ত্রে মুহূর্তেই মিলছে ডেবিট কার্ড। এর মাধ্যমে কর্মীর বদলে যন্ত্রের মাধ্যমে ব্যাংক সেবায় ঝুঁকছে বিশ্বের অনেক ব্যাংক।

বাংলাদেশে এমন একটি এসটিএম এনেছে বেসরকারি খাতের ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড (ইউসিবিএল)। যা স্থাপন করা হয়েছে ব্যাংকটির গুলশানের প্রধান কার্যালয়ের নিচে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এসটিএমের ব্যবহার শুরু হয়েছে। ব্যাংকটি চলতি বছরে ঢাকা ও চট্টগ্রামে এমন আরও ৩৫টি যন্ত্র স্থাপনের পরিকল্পনা করছে।

১১ মার্চ ব্যাংকটিতে গিয়ে দেখা যায়, দেখতে এটিএম যন্ত্রের মতোই এসটিএমটি। তবে এর ব্যবহারের জন্য রয়েছে নানা ধরনের যন্ত্রাংশ। এর মধ্যে রয়েছে ভিডিও কলের সুবিধা, প্রিন্টার, কার্ড রিডার, স্ক্যানার ও ফিঙ্গার প্রিন্ট সুবিধা।

ব্যাংকটির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা জানান, এসটিএমের কেউ হিসাব খুলতে এলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিও কলে একজন কর্মকর্তা যুক্ত হবেন। তাঁর সহায়তা নিয়ে সহজেই হিসাব খোলা যাবে। হিসাব খুলতে জাতীয় পরিচয়পত্র, ছবি প্রয়োজন হবে। এর মাধ্যমে ইলেকট্রনিক কেওয়াইসি (গ্রাহকসম্পর্কিত তথ্য) সম্পন্ন হয়ে যাবে।

বিজ্ঞাপন

এসটিএমে হিসাব খুলতে হলে প্রথমে নাম, ঠিকানা ও জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যসহ অন্যান্য তথ্য পূরণ করতে হবে। এরপর ধাপে ধাপে ছবি তোলা ও জমা, পরিচয়পত্র স্ক্যান হবে। সব প্রক্রিয়া শেষে টাকা জমা দেওয়ার পর নতুন হিসাব খোলা সম্পন্ন হবে। এরপর তাৎক্ষণিক এটিএম কার্ড সংগ্রহ করতে চাইলে সংশ্লিষ্ট বাটনে ক্লিক করতে হবে। মুহূর্তেই এসটিএম থেকে বের হবে এটিএম কার্ড। এভাবেই সম্পন্ন হবে এসটিএমের মাধ্যমে হিসাব খোলা। আপনি চাইলে এ প্রক্রিয়ায় একজন কর্মকর্তা ভিডিও কলে বা সশরীর সহায়তা করবেন।

ইউসিবিএলের কর্মকর্তারা জানান, প্রতিদিনই কেউ না কেউ এসটিএমের মাধ্যমে হিসাব খুলছেন। প্রতিটি হিসাব খুলতে ১০-১৫ মিনিট সময় লাগছে। এর ফলে সরাসরি ব্যাংকে না গিয়েও তাৎক্ষণিকভাবে হিসাব খোলা যাচ্ছে।

ইউসিবিএলের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক এ টি এম তাহমিদুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, ‘ডিজিটাল ব্যাংক নিয়ে অনেক আলোচনা আছে। কিন্তু আমরা ব্যাংকের সব সেবাকে ডিজিটাল মাধ্যমে দিতে চাই। এ জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। আপাতত নতুন হিসাব খোলা ও কার্ড সংগ্রহের জন্য এসটিএম বসানো শুরু হয়েছে। এর ভালো সুফল পাওয়া গেলে সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। যেসব শাখায় বেশি গ্রাহক আসে, ঢাকা ও চট্টগ্রামের এমন ৩৫টি শাখায় চলতি বছরে এসটিএম বসানো হবে।

জানা গেছে, এসটিএম যন্ত্র আসছে চীন থেকে। প্রতিটি যন্ত্রের দাম পড়ছে প্রায় ১০ লাখ টাকা, যা এটিএম যন্ত্র থেকেও কম। খুব শিগগির অন্য ব্যাংকগুলো আর্থিক সেবা দিতে এসটিএমের ব্যবহার শুরু করবে বলে জানিয়েছে। এদিকে চীনসহ কয়েকটি দেশে এখন এটিএমের চেয়ে এসটিএম স্থাপন বেড়েছে বলে জানা গেছে।

প্র বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন