বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আরেকটি চ্যালেঞ্জ হচ্ছে—কাঁচামালের সরবরাহব্যবস্থা খুবই খারাপ। দাম অনেক বেড়ে গেছে। আবার রপ্তানিতে যেটি সমস্যা হচ্ছে, পণ্য পাঠাতে এক-দুই সপ্তাহ দেরি হলেই ক্রেতারা ওই পণ্য উড়োজাহাজে পাঠাতে বলছে। করোনার পর উড়োজাহাজে পণ্য পাঠানোর খরচ আগের চেয়ে চার গুণ বেড়ে গেছে। আগে প্রতি কেজি পোশাক ৩ ডলারে পাঠানো গেলেও বর্তমানে ১২ ডলার দিতে হচ্ছে। উড়োজাহাজে পণ্য পাঠাতে হলে ক্রেতাদের সঙ্গে আবার দর-কষাকষি করতে হয়। তারা সব সময় এই খরচ আমাদের ঘাড়ে চাপাতে চায়। তবে পোশাকের ব্যবসায় যে মার্জিন, তাতে উড়োজাহাজে পণ্য পাঠাতে বলাই উচিত নয়। বর্তমানে ক্রেতারা কারখানায় কাপড় আসার পর তিন সপ্তাহের মধ্যে পণ্যের শিপমেন্ট চায়। দেরি হলেই উড়োজাহাজে পাঠাতে হয়। এটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কাপড় আমদানিতেও সমস্যা হচ্ছে। বেনাপোলে কাঁচামাল দিনের পর দিন পড়ে থাকছে। চট্টগ্রাম বন্দরেও সময় বেশি লাগছে। এসব চ্যালেঞ্জের পাশাপাশি করোনার কারণে চলতি বছর আমরা ব্যবসায় বড় ধরনের কোনো সম্প্রসারণে যাইনি। তবে অন্তর্বাসের কারখানার উৎপাদন সক্ষমতা বাড়িয়েছি। তাতে ২ হাজার কর্মী বেড়েছে। বর্তমানে অন্তত গ্রুপের ৭ কারখানায় কাজ করছেন ২৭ হাজার কর্মী।

চীনের কাঁচামাল সরবরাহে বড় ধরনের সমস্যা হয়েছে। বিদ্যুতের অভাবে দেশটির অনেক কারখানার উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। আবার গত দুই বছরে লম্বা সময় তারা লকডাউনে ছিল। সে জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ক্রেতারা বাংলাদেশমুখী হয়েছে। তারা পোশাকের পাশাপাশি সিনথেটিক জুতাসহ অন্যান্য পণ্যও বাংলাদেশ থেকে নিতে চাইছে। আমাদের উদ্যোক্তারা যদি একটু বুদ্ধি খাটিয়ে বিনিয়োগ করেন, তাহলে ব্যবসা আরও আসবে।


শরীফ জহির

ব্যবস্থাপনা পরিচালক, অনন্ত গ্রুপ

প্র বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন