বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথম আলো: ব্যবসা যখন শুরু করেছিলেন, তখন ব্যবসার কী পরিবেশ ছিল, আর এখন কী রকম? কী পার্থক্য দেখেন?

মো. আব্দুল আউয়াল: এই সময়ে জাতির অর্জন অনেক। সবারই প্রত্যাশা থাকে, ভবিষ্যৎ আরও ভালো হবে, কিন্তু বাস্তবে সে রকম হয় না। ইদানীং প্রকল্প শুরু করলেই দেখা যায়, মাটি কাটার জন্য অনেকে হাজির হয়ে যায়। এ নিয়ে নানা রকমের জটিলতা সৃষ্টি হয়। তা ছাড়া বিভিন্ন সময় উটকো ঝামেলা তো লেগেই থাকে। আমরা সরকারি কাজ তেমন একটা করি না। একবার এক সরকারি কাজের দরপত্র জমা দেওয়ার জন্য আমাদের এক কর্মকর্তাকে পাঠিয়েছিলাম। দেখা গেল, এক শক্তিশালী গোষ্ঠী তাঁকে দরপত্র জমাই দিতে দেয়নি। তাঁকে একটি বাসের মধ্যে আটকে রাখা হয়েছিল। ফলে সামগ্রিকভাবে ব্যবসার পরিবেশের উন্নয়ন হয়েছে, এমন কথা বলা যায় না।

প্রথম আলো: ফ্ল্যাটের দাম যেভাবে বাড়ছে, তাতে মধ্যবিত্তের পক্ষে ফ্ল্যাট কেনা কঠিন হয়ে পড়ছে, এর কারণ কী?

মো. আব্দুল আউয়াল: আবাসিক ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে আমাদের প্রথমে জমির মালিকের সঙ্গে চুক্তি করতে হয়। ঢাকা নগরে জমি যেভাবে কমে যাচ্ছে, তাতে জমির মালিকদের চাহিদা সীমাহীন হয়ে যাচ্ছে। একসময় অর্ধেক-অর্ধেক ভাগাভাগি হতো। এখন জমির মালিকেরা ৬০ শতাংশ ফ্ল্যাট চান। গুলশানে একটি প্রকল্পে জমির মালিককে ৬৭ শতাংশ ফ্ল্যাট দিতে হয়েছে, সেই সঙ্গে চুক্তিনামার টাকা। এ ছাড়া নির্মাণসামগ্রীর দাম দিন দিন বাড়ছে। বাধ্য হয়ে আমাদের বিক্রয়মূল্য বৃদ্ধি করতে হচ্ছে। তা সত্ত্বেও অনেকের চেয়ে কম মূল্যে আমরা ফ্ল্যাট বিক্রি করছি।

প্রথম আলো: এই সময়ে দাঁড়িয়ে কোম্পানির ভবিষ্যৎ কী দেখছেন? নতুন দিনের পরিকল্পনাই–বা কী?

মো. আব্দুল আউয়াল: ভবিষ্যতের পথ পরিক্রমা সেই অর্থে খুব মসৃণ হবে না বলেই মনে হচ্ছে। নতুন ড্যাপের (ডিটেইলড এরিয়া প্ল্যান) প্রস্তাবে যা যা বলা হয়েছে, সেগুলো বাস্তবায়িত হলে দেশের আবাসন খাতের ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে পড়বে। বিশেষ করে ভবনের উচ্চতা এবং জনঘনত্ব নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে যেসব প্রস্তাব করা হয়েছে, তাতে আবাসন খাতের পক্ষে টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়বে।

প্রথম আলো: এই অবস্থায় আপনার পরামর্শ কী?

মো. আব্দুল আউয়াল: আমি মনে করি, এভাবে ঢাকা শহরের জনঘনত্ব কমানো সম্ভব নয়। ঢাকা শহরের ওপর যদি চাপ কমাতে হয়, তাহলে প্রথমে বিকেন্দ্রীকরণের দিকে নজর দিতে হবে। আরেকটি কথা না বললেই নয়, রানা প্লাজা ধসের পর পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের ভবন নির্মাণের অনুমোদন দেওয়ার ক্ষমতা সীমিত করা হলো—ছয়তলার বেশি ভবনের অনুমোদন তারা দিতে পারবে না। সেই ক্ষমতা দেওয়া হলো জেলা প্রশাসকের কার্যালয়কে। তারা আবার পিডব্লিউডির কাছে নকশা পাঠায়। কিন্তু এটা নির্বাহী প্রকৌশলীরও কাজ নয়। তাদের জনবল ঘাটতি আছে। রানা প্লাজার সমস্যা তো নকশায় ছিল না, ছিল নির্মাণে। ফলে নিয়মতান্ত্রিকভাবে কাজ করা এখানে কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তাই সরকারের নীতি সহায়তা প্রয়োজন।

প্র বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন