default-image

ব্যাংকে সঞ্চয়ী বা চলতি হিসাবে টাকা থাকলে বছর শেষে মুনাফা পাওয়া যায়। যদি সঞ্চয় স্কিমে টাকা থাকে, তাহলে তো শতাংশ গুনে লাভ বা মুনাফার টাকা মেলে। এর বাইরে এখন মোবাইলে আর্থিক সেবা (এমএফএস) দেওয়া প্রতিষ্ঠান বিকাশ, নগদও জমা টাকার ওপর মুনাফা দিচ্ছে। এ জন্য রয়েছে বেশ কিছু শর্ত।

মানুষ এখনো এমএফএসগুলোকে অর্থ লেনদেনের প্রতিষ্ঠান হিসেবে মনে করে, বাস্তবেও তা–ই। এর মধ্যে থেকেও গ্রাহকদের জমা টাকার ওপর মুনাফা দিচ্ছে এই দুই প্রতিষ্ঠান। কম না কিন্তু, নগদ সাড়ে ৭ শতাংশ পর্যন্ত এবং বিকাশ ৪ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফা দিচ্ছে। যেখানে ব্যাংকেই এখন মুনাফা ৬ শতাংশের আশপাশে।
তবে আপনি মুনাফা নেবেন কি না, তা হিসাব খোলার সময় নগদকে নিশ্চিত করতে হবে। আর আপনি যদি মুনাফা নিতে আগ্রহী না হোন, তাহলে বিকাশ তা প্রদান করবে না। এটা বন্ধের সুযোগ আছে।

জানা গেছে, সবচেয়ে বড় এমএফএস প্রতিষ্ঠান বিকাশে মাসজুড়ে যদি এক থেকে পাঁচ হাজার টাকা থাকে, তাহলে ওই মাসের গড় টাকার ওপর দেড় শতাংশ হারে বার্ষিক মুনাফা দেয়। ৫ হাজার ১ টাকা থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত মুনাফার হার ২ শতাংশ। ১৫ হাজার ১ টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত মুনাফা ৩ শতাংশ। ৫০ হাজার ১ টাকার বেশি থাকলে মুনাফা ৪ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন
আমাদের চার কোটি টাকা গ্রাহকের অর্ধেকই মুনাফা নেয়। এতে গড় খরচ পড়ে ৩ শতাংশের কম।
নগদের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর আহমেদ

মুনাফা পেতে বেশ কিছু শর্তও জুড়ে দিয়েছে বিকাশ। গ্রাহক–সম্পর্কিত তথ্য (কেওয়াইসি) ফরম বিকাশ কর্তৃক গৃহীত হতে হবে। হিসাবটি সচল থাকতে হবে। প্রতি মাসে কমপক্ষে দুটি লেনদেন করতে হবে। মাসজুড়ে দিন শেষে হিসাবে কমপক্ষে এক হাজার টাকা থাকতে হবে। মাস শেষে প্রতিদিনের গড় টাকার ওপর মুনাফার পরিমাণ হিসাব করা হয়। আর সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ভ্যাট ও ট্যাক্স কাটার পরই বছরে দুই দফায় আপনার হিসাবে টাকা যুক্ত করে দিচ্ছে বিকাশ। বিকাশের রয়েছে ৪ কোটি ৮০ লাখ গ্রাহক। সবচেয়ে বেশি লেনদেনও হয় বিকাশের মাধ্যমে।

বিকাশের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান শামসুদ্দিন হায়দার বলেন, গ্রাহকদের জমা টাকার ওপর ঘোষণা অনুযায়ী মুনাফা দেওয়া হচ্ছে। এতে গ্রাহকেরাও খুশি।
একইভাবে ডাক বিভাগের সেবা নগদ ‘সঞ্চয়’ নামে আলাদা পণ্য চালু করেছে। এর ফলে নগদ গ্রাহকেরা জমা টাকার ওপর ৭ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফা পাচ্ছেন। এক হাজার টাকা পর্যন্ত জমার ওপর নগদ কোনো মুনাফা দিচ্ছে না। এক হাজার এক থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জমার ওপর মুনাফা দিচ্ছে ৫ শতাংশ। আর পাঁচ হাজার এক থেকে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত জমার ওপর মুনাফার হার সাড়ে ৭ শতাংশ। মুনাফা প্রদান করছে মাসিক ভিত্তিতে। আর মুনাফার হিসাব হচ্ছে প্রতিদিনের ওপর।

নগদের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর আহমেদ বলেন, ‘আমাদের চার কোটি টাকা গ্রাহকের অর্ধেকই মুনাফা নেয়। এতে গড় খরচ পড়ে ৩ শতাংশের কম।’
তবে এর বাইরে যেসব ব্যাংক এমএফএস সেবা দিচ্ছে, তারা এখনো মুনাফা দেওয়া শুরু করেনি।

মন্তব্য পড়ুন 0