রক্ত দেখলেই অজ্ঞান হয়ে পড়ি, কী করব?

ডায়াবেটিস

আমার মায়ের বয়স ৫৩ বছর, ওজন ৭৩ কেজি, উচ্চতা ৫ ফুট ২ ইঞ্চি। তিনি আট বছর ধরে ডায়াবেটিসের রোগী। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেই থাকে। কয়েক বছর ধরে তাঁর হাতে-পায়ে জ্বালাপোড়াসহ সামান্য অবশ হওয়ার মতো অস্বস্তিকর অনুভূতি হয়। তবে স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে তেমন একটা সমস্যা হয় না। করণীয় কী?—হাসান ফেরদৌস, রংপুর।

দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস থাকলে এবং তা নিয়ন্ত্রণে না থাকলে ডায়বেটিসজনিত বিভিন্ন জটিলতা দেখা দেয়। যেমন স্নায়ুতন্ত্র, কিডনি, চোখের সমস্যাসহ নানা রকম জটিলতা। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে কি না, সেটি জানতে এইচ‌বিএ১‌সি নামের রক্ত পরীক্ষা ক‌রে নি‌তে পা‌রেন। আপনার সমস্যার চিকিৎসা হলো, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা এবং কিছু ওষুধের ব্যবহার। ওষুধ এবং ওষু‌ধের ম‌াত্রা নির্ধার‌ণের জন‌্য বি‌শেষজ্ঞ চি‌কিৎস‌কের পরামর্শ নিন।

পরামর্শ দিয়েছেন—ডা. মারুফা মোস্তারী, ডায়াবেটিস ও হরমোন রোগ বিশেষজ্ঞ, ল্যাবএইড কা‌র্ডিয়াক হাসপাতাল, ঢাকা

বিজ্ঞাপন

মানসিক স্বাস্থ্য

আমার বয়স ২০ বছর। সাত বছর বয়স থেকে রক্ত দেখলে অজ্ঞান হয়ে পড়ি, ১০ থেকে ১৫ মিনিট জ্ঞান থাকে না। এমনটা প্রায়ই হয়। কী করব?—শাফিন ইসলাম

এটি একধরনের উদ্বেগজনিত সমস্যা, যাকে বলা হয় স্পেসিফিক ফোবিয়া। রক্ত বা কাটাছেঁড়া দেখলে আপনার ভেতরে অতি উদ্বেগ তৈরি হয়, যা আপনাকে আতঙ্কগ্রস্ত অবস্থায় নিয়ে যেতে পারে। এটা থেকে বের হওয়ার জন্য নানাবিধ প্রক্রিয়া আছে। আমরা বলি এক্সপোজার থেরাপি, অর্থাৎ রক্তের আলোকচিত্র বা ভিডিও, হালকা কাটাছেঁড়ার আলোকচিত্র বা ভিডিও দেখতে পারেন, ভয় কমবে। আপনি উপযুক্ত কাউন্সেলরের কাছে কগনিটিভ থেরাপি নিতে পারেন। রিলাক্সেশন প্রক্রিয়া অনুশীলন করতে পারেন বা ধ্যান করতে পারেন।

যখনই এ রকম রক্ত দেখবেন, তখন বড় বড় শ্বাস নেবেন এবং নিজেকে প্রস্তুত করবেন যে এটা থেকে ব্যক্তিগত কোনো ভয়ের কারণ নেই। বরং কারও যদি হাত কেটে যায় বা দুর্ঘটনা ঘটে, আপনি যেন তাকে সাহায্য করতে পারেন, সেভাবে ভাবা ভালো। প্রয়োজনে মনোরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শমতো উদ্বিগ্নতা কমার ওষুধ গ্রহণ করতে পারেন।

পরামর্শ দিয়েছেন—ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, ঢাকা।

চর্মরোগ

১৫ থেকে ২০ বছর আগে আমার অণ্ডকোষের ওপরে ছোট ছোট ব্রণ–জাতীয় কিছু ওঠে। তখন সেগুলো টিপলে ঝরঝরে দানার মতো একধরনের পদার্থ বের হতো। ৫ থেকে ৭ বছর ধরে দেখছি, ব্রণের মতো গোটাগুলো বেশ বড় বড় হয়ে গেছে। খুব শক্ত, টিপলে ব্যথা অনুভূত হয় না এবং কিছু বেরও হয় না। আমি দীর্ঘদিন হোমিওপ্যাথি ওষুধ সেবন করেছি। কোনো কাজ হয়নি। কী করতে পারি?—নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

এগুলো একধরনের সিস্ট। এর নাম স্টিয়াটোসিস্টোমা মালটিপ্লেক্স। টিপলে সমস্যা বাড়বে। হোমিওপ্যাথিতেও ভালো হবে না। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সার্জারি লাগে। আপনি একজন অভিজ্ঞ চর্ম বিশেষজ্ঞ বা সার্জনের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

পরামর্শ দিয়েছেন—অধ্যাপক মো. আসিফুজ্জামান, বিভাগীয় প্রধান, চর্ম ও যৌনরোগ বিভাগ, গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজ, ঢাকা।

প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা

স্বাস্থ্য জিজ্ঞাসা

ই-মেইল: [email protected] ফেসবুক পেজ: fb.com/ProShastho

ডাকযোগে: প্র স্বাস্থ্য, প্রথম আলো, ১৯ কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫

বিজ্ঞাপন
প্র স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন