আপনার প্রশ্ন চিকিৎসকের পরামর্শ

আমার বয়স ২০ বছর। অনেক দিন ধরে আমি ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়ার সমস্যায় ভুগছি। রাতে বা বিকেলে যখনই ঘুমাতে যাই, তখনই একটু পরপর প্রস্রাবের চাপ আসে। এই সমস্যার কারণে আগের তুলনায় পানি বেশি পান করি। তারপরও আমার সমস্যার কোনো পরিবর্তন লক্ষ করছি না। কী করলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাব?—নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

ঘন ঘন বা অতিরিক্ত প্রস্রাব হওয়ার কারণগুলোর মধ্যে আছে ডায়াবেটিস, প্রস্রাবে বারবার সংক্রমণ বা কোনো কারণে প্রস্রাব একবারে পরিষ্কার না হতে পারা (যেমন মূত্রথলির সমস্যা)। কখনো মানসিক কারণেও এমন হতে পারে। আপনি এই কারণগুলো অনুসন্ধান করুন আর কারণটা দূর করলেই সমাধান হবে।

পরামর্শ দিয়েছেন—ডা. রাশেদুল হাসান, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ, গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজ, ঢাকা।

বিজ্ঞাপন

আমার গ্যাস্ট্রিকের অনেক সমস্যা। সারা দিন মুখে দুর্গন্ধ থাকে। মুখের দুর্গন্ধ কি গ্যাস্ট্রিকের জন্য? যদি তা-ই হয়, তাহলে এটা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় কী? আমার ১৭ বছর বয়স।—ফরহাদ শিবলী, কুষ্টিয়া।

অনিয়ন্ত্রিত গ্যাস্ট্রিক বা অ্যাসিডিটি থেকে যেমন মুখে দুর্গন্ধ হয়, তেমনি দাঁত ক্ষয়ও হতে পারে। তবে মুখে দুর্গন্ধের অন্য কারণও থাকতে পারে। একজন দন্তচিকিৎসকের পরামর্শে মুখের স্বাস্থ্যের অবস্থা ও দুর্গন্ধের কারণ নিশ্চিত হয়ে নিন।

পরামর্শ দিয়েছেন—ডা. মো. আসাফুজ্জোহা, রাজ ডেন্টাল সেন্টার, কলাবাগান, ঢাকা

আমার বয়স ১৭ বছর। অনেক সময় কারও ভালো কথা কিংবা উপদেশ শুনলেও নিজের মধ্যে একটা অস্থিরতা কাজ করে। নিজেকে সংযত রাখতে পারি না। বড়-ছোট ভেদাভেদ থাকে না, মুখ ফসকে খারাপ ভাষা বের হয়ে যায়। উচ্চ স্বরে কথা বলি। সম্মানের কথা মনে থাকে না। একাকী থাকার সময় আবার নিজেকে ছোট মনে হতে থাকে। আমি কী করব?—নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

নিজের আবেগের নিয়ন্ত্রণ জরুরি। এ জন্য অনেক উপায়ের মধ্যে একটা হচ্ছে বিকল্প চিন্তার ক্ষেত্র প্রস্তুত করা। অর্থাৎ যেকোনো বিষয় বা ঘটনাকে নিজের দৃষ্টিকোণ থেকে না দেখে অপরের দিক থেকে দেখার অভ্যাস করা। এ ছাড়া মাইন্ডফুলনেস, রিলাক্সেশন চর্চা করা যেতে পারে। আর হতাশা থেকেই কিন্তু রাগ ও আগ্রাসী আচরণ হয়ে থাকে। তাই হতাশাকে দূর করার জন্য প্রয়োজন হলে মনোরোগ চিকিৎসকের পরামর্শে বিষণ্নতারোধী ওষুধ সেবন ও সাইকোথেরাপি গ্রহণ করা যেতে পারে। যখনই নিজেকে ছোট মনে হবে, তখন আপনার পেছনের অর্জনগুলোর দিকে মনোযোগ দেবেন, দেখবেন আপনার জীবনে সফলতাও রয়েছে।

পরামর্শ দিয়েছেন—ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট।

বিজ্ঞাপন

আমার বয়স ২৫ বছর। বাইরে থেকে বাসায় এলে কিংবা গোসলের পর খুব বেশি ঘাম হয়। অতিরিক্ত ঘামের কারণে আমি প্রায়ই অস্বস্তিতে ভুগি এবং অল্প পরিশ্রমেই কাহিল হয়ে পড়ি। এ ছাড়া আমার অন্য কোনো সমস্যা নেই। এ ক্ষেত্রে কী করণীয়?—অর্পণ দাশগুপ্ত, ঢাকা

অতিরিক্ত ঘামের সঙ্গে ওজন কমা, বুক ধড়ফড়ানি, অস্থিরতা ইত্যাদি থাকলে থাইরয়েড হরমোন পরীক্ষা করতে হবে। তবে অনেক সময় অতি উদ্বেগ ও টেনশন থেকেও এমন হয়। কারওবা পারিবারিকভাবেই ঘাম বেশি হয়। তেমন কোনো কারণ পাওয়া না গেলে এটা নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না। হালকা রঙের পাতলা কাপড় পরবেন। প্রচুর পানি পান করবেন। চা–কফি, অতি তেল–মসলাযুক্ত খাবার খাবেন না। বাইরে থেকে ফিরে বা গোসলের পর আগে কিছুক্ষণ ফ্যানের বাতাসে জিরিয়ে নেবেন।

পরামর্শ দিয়েছেন—ডা. ইন্দ্রজিৎ প্রসাদ, হরমোন বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ।

প্র স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন