default-image

সারা বিশ্বের মানুষকে ক্যানসার সম্পর্কে সচেতন করতে প্রতিবছর ৪ ফেব্রুয়ারি উদ্‌যাপিত হচ্ছে বিশ্ব ক্যানসার দিবস। চিকিৎসার কোনো পর্যায়েই যেন কোনো রোগী তাঁর মনোবল না হারান, সে লক্ষ্যেই সচেতনতা বাড়ানো হয়। তবে এটি মনে রাখতে হবে প্রতিষেধকের থেকে প্রতিরোধই উত্তম।

ক্যানসার প্রতিরোধের জন্য বেশি প্রয়োজন লক্ষণগুলো সম্পর্কে সঠিক ধারণা রাখা ও সচেতন থাকা। বিভিন্ন ক্যানসারের লক্ষণ বিভিন্ন ধরনের হয়। অনেক সময় একটি ক্যানসার বিভিন্ন ধরনের লক্ষণ নিয়ে আসতে পারে। আবার কখনো কখনো এক স্থানের ক্যানসার অন্য স্থানে ছড়িয়ে গেলে রোগী সম্পূর্ণ ভিন্ন উপসর্গ নিয়ে আসতে পারে। তবে পরিচিত ক্যানসারগুলোর কিছু সতর্কসংকেত আছে। সবারই উচিত এসব দেখা দিলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া।

বিজ্ঞাপন

ফুসফুসের ক্যানসার

দীর্ঘমেয়াদি কাশি, যা সাধারণ চিকিৎসায় নিরাময় হচ্ছে না, এর সঙ্গে শ্বাসকষ্ট বা গলার স্বর বসে যাওয়া এবং কফের সঙ্গে রক্ত যাওয়া ফুসফুসের ক্যানসারের অন্যতম লক্ষণ। রোগী যদি ধূমপান করেন, জর্দাসহ পান বা তামাক খান, তবে তা ক্যানসারের সন্দেহকে অনেক গুণ বাড়িয়ে দেয়। অনেক ক্ষেত্রেই প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই যক্ষ্মা ভেবে চিকিৎসা করে অকারণ দেরি করা হয়। কাশি হলে অনেকে নিজে নিজে অ্যান্টিবায়োটিক ও কাশির ওষুধ, ইনহেলার ব্যবহার করে থাকেন। এটি একটি মারাত্মক ভুল। তাই এসব লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

স্তনের ক্যানসার

স্তনে বা বগলে দ্রুত বড় হতে থাকা শক্ত চাকা, কখনো ঘা স্তন ক্যানসারের প্রধান লক্ষণ। কখনো স্তনের বৃন্ত দিয়ে রক্ত যেতে পারে। কখনো স্তনের চামড়া কমলার খোসার মতো শক্তও হয়ে যেতে পারে। মাসিকের সঙ্গে এসব চাকার হ্রাস-বৃদ্ধির তেমন সম্পর্ক না থাকলেও দ্রুত ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে। এ ছাড়া বংশে কারও স্তন ক্যানসার হয়ে থাকলে সামান্য লক্ষণও অবহেলা করা যাবে না।

default-image

মুখের ক্যানসার

মুখের ভেতরে গালে, মাড়িতে, দাঁতের পেছনে বা জিহ্বার কোনো অংশের দীর্ঘদিনের ঘা মুখের ক্যানসারের অন্যতম লক্ষণ। রোগীর যদি পান-জর্দা-তামাক খাওয়ার অভ্যাস থাকে, তবে তা ক্যানসারের সন্দেহকে বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

লসিকাগ্রন্থির ক্যানসার

দেহের যেকোনো অংশের শক্ত চাকা সে অংশের বা অন্য কোনো স্থানের ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। লিম্ফোমা নামক ক্যানসার এভাবে প্রকাশ পায়। এর সঙ্গে রোগীর জ্বর, রাতে প্রচণ্ড ঘাম ও দ্রুত ওজন হ্রাসের ইতিহাস থাকতে পারে।

স্বরনালির ক্যানসার

গলার স্বর বসে যাওয়া একই সঙ্গে স্বরনালি, ফুসফুসসহ আরও বেশ কিছু ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। এসব রোগীর যদি ধূমপান, জর্দাসহ পান বা তামাক খাওয়ার অভ্যাস থাকে, তবে তা ক্যানসারের সন্দেহকে অনেকাংশে বাড়িয়ে দেয়।

বিজ্ঞাপন

পাকস্থলীর ক্যানসার

ঢোঁক গিলতে কষ্ট হওয়া, খাওয়ার পরে বমি বা বমি বমি ভাব হওয়া, অল্প খেলেও পেট ভরা ভরা লাগা-অন্ননালি বা পাকস্থলীর ক্যানসারের লক্ষণ। অপর্যাপ্ত খাওয়াদাওয়ার জন্য এসব রোগীর দ্রুত ওজন হ্রাসের ইতিহাস থাকে।

বৃহদন্ত্র ও মলদ্বারের ক্যানসার

মলত্যাগের অভ্যাসের পরিবর্তন, মলের সঙ্গে রক্তপাত বৃহদন্ত্র, মলাশয় বা মলদ্বারের ক্যানসারের লক্ষণ। এ ছাড়া বংশের কারও বৃহদন্ত্র, মলাশয়ের ক্যানসার হয়ে থাকলে তবে তা ক্যানসারের সন্দেহকে বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। তাই কোনো লক্ষণকে অবহেলা না করে দ্রুত ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

পেটে ব্যথা, পেটে পানি আসা, পেটে চাকা অনুভব, পেটের নানা ধরনের ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। তাই এসব লক্ষণ থাকলে ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

ত্বকের ক্যানসার

ত্বকের তিল বা আঁচিলের দ্রুত আকার বৃদ্ধি, রং পরিবর্তন কিংবা ঘা ত্বকের ক্যানসারের লক্ষণ। যদিও আমাদের দেশে এসব ক্যানসারের হার কম, তবু অবহেলা না করে দ্রুত চর্মরোগ এবং ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

জরায়ুমুখে ক্যানসার

মাসিক রাস্তা দিয়ে সাদা স্রাব, অস্বাভাবিক রক্তপাত, যৌন মিলনের সময় ব্যথা জরায়ুমুখ বা জরায়ুর ক্যানসারের লক্ষণ। পাশাপাশি জন্মবিরতিকরণ পিল, অত্যধিক সন্তান, অসামাজিক যৌনজীবনের ইতিহাস ক্যানসারের সন্দেহকে বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। তাই এসব লক্ষণকে অবহেলা না করে দ্রুত মহিলা রোগ এবং ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

মূত্রথলির ক্যানসার

প্রস্রাবের রাস্তা দিয়ে রক্তপাত মূত্রনালি বা কিডনির ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। এসব লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত কিডনি রোগ এবং ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

মস্তিষ্কের ক্যানসার

হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়া, খিঁচুনি, স্মৃতিশক্তি লোপ মস্তিষ্কের ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। এমনও হতে পারে, এটি মস্তিষ্কের প্রাথমিক ক্যানসার কিংবা অন্য স্থানের ক্যানসার মস্তিষ্কে ছড়িয়েছে। এসব লক্ষণ অবহেলা না করে দ্রুত মস্তিষ্ক রোগ এবং ক্যানসার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

তবে মনে রাখা দরকার, এ ধরনের লক্ষণ প্রকাশ মানেই কিন্তু ক্যানসার হওয়া নয়। আরও নানা কারণেই এসব উপসর্গ হতে পারে। ক্যানসার নিশ্চিত হতে ধাপে ধাপে নানা রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হয়। যত দ্রুত আর প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়ে ততই ভালো।

প্র স্বাস্থ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন