কমবেশি সবাই হেঁচকি বা হিক্কার সঙ্গে পরিচিত। জীবনে কখনো হেঁচকি হয়নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না। এটা একটা কষ্টকর ও বিরক্তিকর অভিজ্ঞতা। বেশির ভাগ সময় হেঁচকি উঠে কিছুক্ষণ পর এমনিতেই চলে যায়। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে হেঁচকি দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। বিশেষ করে রোগাক্রান্ত ব্যক্তির জন্য এটা একটা সমস্যা হয়ে দেখা দিতে পারে। কিন্তু কেনই–বা হয় এই হেঁচকি, আর এটি থামানোর উপায়ই–বা কী।

হেঁচকির কারণ হতে পারে কিছু অসাবধানতা। এই যেমন তাড়াহুড়া করে খাবার খাওয়া, পানি পান করা, খাবার সময় কথা বলা বা অন্য দিকে মনোযোগ দেওয়া। তা ছাড়া জোরে হাসা, হঠাৎ ভয় পাওয়া, আবেগ, উত্তেজনা ইত্যাদি কারণেও হেঁচকি উঠতে পারে। কিছু অসুখের কারণেও এটা হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

বেশির ভাগ সময় কিছু উপায় অনুসরণ করে হেঁচকি বন্ধ করা যায়—

  • শ্বাস নিয়ে যতক্ষণ পারা যায় বন্ধ রেখে আস্তে আস্তে প্রশ্বাস ছাড়তে হবে। এটা করতে হবে বেশ কয়েকবার। বিরতি দিয়ে প্রয়োজনে বারবার করতে হবে।

  • কাগজের ব্যাগ দিয়ে মাথা ও মুখ ঢেকে শ্বাস নিতে হবে এবং ছাড়তে হবে একাধারে বেশ কয়েকবার। তবে সাবধান, পলিথিনের ব্যাগ ব্যবহার করবেন না।

  • নাক–মুখ বন্ধ রেখে নিশ্বাস ফেলতে চেষ্টা করুন, এটাকে ভালসালভা মেনুভার বলা হয়। কয়েকবার করুন।

  • ঠান্ডা পানি পান করতে পারেন।

  • গরম দুধ পান করতে পারেন।

  • এক চামচ চিনি জিবে নিয়ে সামান্য সময় পর গিলে খাওয়ার চেষ্টা করুন।

  • নাক চেপে ধরে পানি পান করতে পারেন।

  • গরম পানি দিয়ে গোসল করে দেখতে পারেন।

দুই দিনের মধ্যে হেঁচকি চলে না গেলে পরিপাকতন্ত্র ও লিভার বিশেষজ্ঞ অথবা মেডিসিন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

মন্তব্য পড়ুন 0