default-image

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ। ক্যাম্পাসে ফেরা হয় না অনেকদিন হলো। কীভাবে কাটছে শিক্ষার্থীদের সময়? সেটাই ছাত্রছাত্রীরা লিখে জানাচ্ছেন ‘এ সময়ের দিনলিপি বিভাগে’। আপনিও লেখা পাঠাতে পারেন এই ইমেইলে: [email protected]। অথবা যোগাযোগ করুন স্বপ্ন নিয়ের ফেসবুক পেজে

করোনা মহামারির এই ঘরবন্দী সময়ে মেসেঞ্জার-হোয়াটসঅ্যাপের বিভিন্ন গ্রুপই এখন বন্ধুদের সঙ্গে নিয়মিত আড্ডা দেওয়ার, ভালো লাগা-মন্দ লাগা ভাগাভাগি করে নেওয়ার অন্যতম মাধ্যম। এসো সেন্টি খাই ডটকম তেমনই একটি গ্রুপের নাম, যা গত এক বছরে ১২ জনের একটি ছোট্ট দলের আবেগের জায়গা হয়ে উঠেছে।

আমার ক্ষেত্রে আবেগ কিছুটা বেশি। একই স্কুলে পাঁচ বছর একসঙ্গে পড়াশোনা করলেও ওদের সঙ্গে কখনো সে রকম সখ্য গড়ে ওঠেনি। স্নাতক প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরুর কিছুদিন পরই শুরু হলো মহামারি। গত বছর এমনই একদিন হঠাৎ দেখি গ্রুপেরই কেউ একজন আমাকে ‘অ্যাড’ করেছে। প্রথমে একটু অবাক হয়েছি। স্কুলে সখ্য ছিল না, কলেজ আলাদা ছিল, এখন বিশ্ববিদ্যালয়ও আলাদা। তাহলে ওরা কেন আমাকে গ্রুপে অ্যাড করল?

বিজ্ঞাপন

সেই প্রশ্নের উত্তর না পেলেও, গ্রুপের বয়স এক বছর পার হয়েছে। এই ১১টি মেয়ে আমাকে অবাক করে দেয় মাঝেমধ্যেই। ওরা এত বেশি প্রাণোচ্ছল আর হাসিখুশিতে ভরপুর থাকে, আমি অবাক না হয়ে পারি না। ছোটবেলায় না পেলেও এই যে বড়বেলা, বড় হওয়ার সময়টায়, বিষাদের সময়টায় তাদের পাশে পেয়ে আমি অনেক খুশি। কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুরা, তোমাদের জন্যও ভালোবাসা।

আমার মনে হয় জীবনের একটা অবিচ্ছেদ্য অংশ এই বন্ধুরা। ছোটবেলা থেকে বড় হতে হতে হতে কত ধাপে ধাপে কত বন্ধু গড়ে ওঠে আমাদের। ভালো বন্ধুদের পাশে থাকুন, ভালো বন্ধুদের পাশে রাখুন। আর অনলাইনের হাসিঠাট্টার বাইরেও অফলাইনে বন্ধু কেমন আছে, সে খবরও নিশ্চয়ই আমরা রাখব। আনন্দের সময় খোঁজ রাখব, দুঃখের সময়। একা থেকে এক হওয়ার সবচেয়ে ভালো সময় এখন। সব বন্ধুরা মিলে একদিন আনব রাঙা প্রভাত।

শাকিনাতুন সুলতানা, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন