default-image

সিআইএ—শুনে শুরুতে একটু ভড়কেই গিয়েছিলাম। নওশীন আহমেদ বিষয়টা বুঝতে পেরে বললেন, ‘এটা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে হয়। সিআইএ শুনলে অনেকেই ভাবে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা, আসলে সিআইএ এখনো আমাদের দেশে ততটা পরিচিতি পায়নি। এর অর্থ হলো সার্টিফায়েড ইন্টারনাল অডিটর।’ যুক্তরাষ্ট্রের ইনস্টিটিউট অব ইন্টারনাল অডিটরস প্রতিবছর নিরীক্ষা ক্ষেত্রে উদীয়মান নেতাদের তালিকা প্রকাশ করে। ব্যবসায়িক নেতৃত্ব, উদ্ভাবনী শক্তি, প্রাতিষ্ঠানিক অবদান—এই তিনটি দিক বিবেচনায় তালিকাটি করা হয়। এ বছর সেখানে ঠাঁই পেয়েছেন নওশীন আহমেদ। বর্তমানে তিনি মেরিকো বাংলাদেশ লিমিটেডের উপ ব্যবস্থাপক।

বিজ্ঞাপন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগ থেকে বিবিএ করেন নওশীন আহমেদ। সাধারণত বিবিএ করার পরপরই শিক্ষার্থীরা এমবিএ করেন। নওশীনের ইচ্ছা ছিল তিনি বিদেশে গিয়ে এমবিএ করবেন। সে জন্য একটা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। সময় লাগবে। এদিকে বসেও তো থাকা যায় না! একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করলেন। চাকরি হয়ে গেল। তিনি ‘অডিটর’ পদেই যোগ দিলেন। সেখানে বসের পরামর্শে তিনি সিআইএ পড়া শুরু করলেন। নওশীন বলছিলেন, ‘চাকরি করতে গিয়েই আমি জানলাম, সিআইএ একটা বৈশ্বিক ডিগ্রি। যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে যে ডিগ্রি নেব, দেশে বসেই আমি সেই ডিগ্রি নিতে পারি।’

পরিবারের সঙ্গে পরামর্শ করতে গিয়ে আবার মুশকিলে পড়তে হলো। নওশীনের বাবা বললেন, ‘তুমি বিবিএর পর এমবিএ করলে না বিদেশে এমবিএ করতে যাবে বলে। এখন আবার বলছ যাবে না, দেশে বসেই অডিটরের ডিগ্রি নেবে। তুমি আসলে কী করতে চাও!’ নওশীন আহমেদ বাবার দুশ্চিন্তার কারণটা বুঝতে পারছিলেন। দুই বোনের মধ্যে তিনি বড়। পরিবারের প্রত্যাশা পূরণের একটা ব্যাপার থাকে। তিনি বলছিলেন, ‘আসলে সবাই তো তাঁদের সন্তানকে একটা নিরাপদ অবস্থানে দেখতে চায়। আমার মা-বাবাও তা-ই চেয়েছিলেন। কিন্তু আমি সেই “গোয়েন্দাগিরিতেই” ঢুকে গেলাম!’

আমরা এবার এই সিআইএ সম্পর্কে জানতে চাই। নওশীন বুঝিয়ে বলেন, ‘দেখুন, অডিটর নিয়ে আমাদের একটা ভুল ধারণা আছে। অডিটরকে সবাই মজা করে বলে “করপোরেট পুলিশ”। প্রতিনিয়ত ব্যবসায় নতুন নতুন জ্ঞান যোগ হচ্ছে। ব্যবসা সম্প্রসারিত হচ্ছে। পুরোনো জ্ঞান সংস্কার করতে হচ্ছে। তাই ইন্টারনাল অডিটরদের এখন আর “করপোরেট পুলিশ” না বলে “করপোরেট ডাক্তার” বলা হয়। ইন্টারনাল অডিটরের কাজ এখন শুধু ভুল ধরিয়ে দেওয়া নয়, বরং ভুলের সমাধান দেখানো। ইন্টারনাল অডিটর হলেন প্রতিষ্ঠানের বিশ্বস্ত পরামর্শদাতা। আমি চাই আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরা আরও বেশি এই ক্ষেত্রে আসুক। এই সনদ দিয়ে তাঁরা যেকোনো দেশে চাকরির আবেদন করতে পারবেন।’ যেকোনো বিভাগের শিক্ষার্থী সিআইএ ডিগ্রি নিতে পারেন। তবে ইন্টারনাল অডিটর হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। ইনস্টিটিউট অব ইন্টারনাল অডিটরসের গ্লোবাল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নাম নিবন্ধন করে এই ডিগ্রি নেওয়া যায়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0