default-image

জিআরই

কী পরীক্ষা: বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য গ্র্যাজুয়েট রেকর্ড এক্সামিনেশনস (জিআরই) কাজে লাগে। এ ছাড়া ছয়টি বিষয়ে বিষয়ভিত্তিক জিআরই পরীক্ষা নেওয়া হয়।

কখন: বছরের যেকোনো সময় পরীক্ষা দেওয়া যায়।

খরচ: নিবন্ধন ফি ২০৫ মার্কিন ডলার বা প্রায় সাড়ে ১৭ হাজার টাকা।

কারা অংশ নেন: সম্মান শ্রেণি উত্তীর্ণ যেকোনো শিক্ষার্থী, যাঁরা যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি পর্যায়ে পড়তে ইচ্ছুক।

কেন প্রয়োজন: যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় স্নাতকোত্তর পর্যায়ে উচ্চশিক্ষা, পিএইচডি গবেষণায় ভর্তির জন্য জিআরই প্রয়োজন।

পরীক্ষার নম্বর: ৩৪০।

সুবিধা: নম্বরের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ থাকে। এ ছাড়া ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তি ও গবেষণা অনুদান পাওয়ার সুযোগ আছে।

মেয়াদ: পাঁচ বছর।

পরীক্ষা কর্তৃপক্ষ: এডুকেশন টেস্টিং সার্ভিস (ইটিএস)।

আবেদনের প্রক্রিয়া: অনলাইনে নিবন্ধন করে নির্ধারিত দিনে নির্ধারিত কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে হয়। করোনাভাইরাসের কারণে বাড়িতে বসে বিশেষ পদ্ধতিতে অনলাইনে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ দিচ্ছে ইটিএস।

পরীক্ষার সময়: ৩ ঘণ্টা ৪৫ মিনিট।

পরীক্ষার মডিউল: তিনটি। (অ্যানালিটিক্যাল রাইটিং, কোয়ানটিটেটিভ রিজনিং ও ভার্বাল রিজনিং)

বিস্তারিত

জিম্যাট

কী পরীক্ষা: বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ব্যবস্থাপনা ও বাণিজ্যে উচ্চশিক্ষার জন্য গ্র্যাজুয়েট ম্যানেজমেন্ট অ্যাডমিশন টেস্ট (জিম্যাট) গ্রহণ করা হয়।

কখন: বছরের যেকোনো সময় পরীক্ষা দেওয়া যায়।

খরচ: নিবন্ধন ফি ২৫০ মার্কিন ডলার বা ২১ হাজার টাকার বেশি।

কারা অংশ নেন: সম্মান শ্রেণি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী, যাঁরা যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি পর্যায়ে এমবিএ পড়তে ইচ্ছুক।

কেন প্রয়োজন: যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় এমবিএ ভর্তির জন্য জিম্যাট প্রয়োজন। এখন অনেক বিশ্ববিদ্যালয় জিম্যাটের বিকল্প হিসেবে জিআরই স্কোর গ্রহণ করে। অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপের বিভিন্ন দেশসহ অনেক দেশে এমবিএ করার ক্ষেত্রে জিম্যাট স্কোর কাজে লাগে।

পরীক্ষার নম্বর: ৮০০।

সুবিধা: নম্বরের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ থাকে। এ ছাড়া ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তি ও গবেষণা অনুদান পাওয়ার সুযোগ আছে।

মেয়াদ: পাঁচ বছর।

পরীক্ষা কর্তৃপক্ষ: গ্র্যাজুয়েট ম্যানেজমেন্ট অ্যাডমিশন কাউন্সিল (জিএমএসি)।

আবেদনের প্রক্রিয়া: অনলাইনে নিবন্ধন করে নির্ধারিত দিনে নির্ধারিত কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে হয়।

পরীক্ষার সময়: ৩ ঘণ্টা ৭ মিনিট।

পরীক্ষার মডিউল: চারটি। (অ্যানালিটিক্যাল রাইটিং, ইন্টিগ্রেটেড রিজনিং, কোয়ানটিটেটিভ, ভার্বাল)

বিস্তারিত

বিজ্ঞাপন

আইইএলটিএস

কী পরীক্ষা: ইন্টারন্যাশনাল ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্টিং সিস্টেম (আইইএলটিএস) ইংরেজি ভাষার দক্ষতা যাচাইয়ের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত একটি পরীক্ষা।

কখন: বছরের যেকোনো সময় পরীক্ষা দেওয়া যায়।

খরচ: নিবন্ধন ফি ১৭ হাজার ৫০০ টাকা। (যুক্তরাজ্যে ভিসা ও অভিবাসনের জন্য পরীক্ষা ফি ১৯ হাজার ৭০০ টাকা)

কারা অংশ নেন: যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ ইংরেজিভাষী বিভিন্ন দেশে উচ্চশিক্ষা, গবেষণা ও কাজের সুযোগ গ্রহণকারীরা।

কেন প্রয়োজন: বিদেশে ভাষা দক্ষতা সনদ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনপত্রের সঙ্গে একাডেমিক আইইএলটিএস সনদ জমা দিতে হয়। এ ছাড়া ভিসার আবেদনপত্রসহ চাকরির জন্য ‘আইইএলটিএস জেনারেল ট্রেনিং’ সনদ প্রয়োজন হয়।

পরীক্ষার নম্বর: শূন্য থেকে ৯।

সুবিধা: উচ্চশিক্ষার জন্য ভাষা দক্ষতার প্রমাণ হিসেবে এই সনদ গ্রহণ করা হয়। বিশ্বের প্রায় ১৪০টি দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আইইএলটিএস স্কোর গ্রহণযোগ্য। এ ছাড়া অভিবাসনসংক্রান্ত কাজে সনদ সংযুক্ত করতে হয়।

মেয়াদ: দুই বছর।

পরীক্ষা কর্তৃপক্ষ: ব্রিটিশ কাউন্সিল, আইডিপি, আইইএলটিএস অস্ট্রেলিয়া ও কেমব্রিজ অ্যাসেসমেন্ট ইংলিশ।

আবেদনের প্রক্রিয়া: বাংলাদেশে ব্রিটিশ কাউন্সিল ও আইডিপিতে পরীক্ষার জন্য নাম রেজিস্ট্রেশন করতে হয়। নিবন্ধন শেষে নির্দিষ্ট দিনে নির্ধারিত সেন্টারে পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়।

পরীক্ষার সময়: ২ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট।

পরীক্ষার মডিউল: চারটি। (লিসেনিং, রিডিং, রাইটিং ও স্পিকিং)

বিস্তারিত:

ব্রিটিশ কাউন্সিল অথবা আইডিপির ওয়েবসাইট

টোয়েফল

কী পরীক্ষা: যাঁদের মাতৃভাষা ইংরেজি নয়, টেস্ট অব ইংলিশ অ্যাজ আ ফরেন ল্যাঙ্গুয়েজ (টোয়েফল) তাঁদের জন্য ভাষা দক্ষতার পরীক্ষা।

কখন: বছরের যেকোনো সময় পরীক্ষা দেওয়া যায়।

খরচ: নিবন্ধন ফি ২০০ মার্কিন ডলার বা প্রায় ১৭ হাজার টাকা।

কারা অংশ নেন: যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ ইংরেজিভাষী বিভিন্ন দেশে উচ্চশিক্ষা, গবেষণা ও কাজের সুযোগ যাঁরা চান, তাঁরা অংশ নিতে পারেন।

কেন প্রয়োজন: বিদেশে ভাষা দক্ষতার প্রমাণ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনপত্র, ভিসার আবেদনপত্রসহ চাকরির জন্য এই সনদ কাজে লাগে।

পরীক্ষার নম্বর: ১২০।

সুবিধা: নম্বরের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ থাকে। বিশ্বের প্রায় ১৩০টি দেশে ১০ হাজারের বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টোয়েফল স্কোরের গ্রহণযোগ্যতা আছে।

মেয়াদ: দুই বছর।

পরীক্ষা কর্তৃপক্ষ: এডুকেশন টেস্টিং সার্ভিস (ইটিএস)।

আবেদনের প্রক্রিয়া: অনলাইনে নিবন্ধন করে নির্ধারিত দিনে নির্ধারিত কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে হয়।

পরীক্ষার সময়: ৩ ঘণ্টা ২৩ মিনিট।

পরীক্ষার মডিউল: চারটি। (লিসেনিং, রিডিং, রাইটিং ও স্পিকিং)

বিস্তারিত

স্যাট

কী পরীক্ষা: স্কলাসটিক অ্যাসেসমেন্ট টেস্ট হিসেবে এসএটি বা স্যাট পরীক্ষার স্কোর যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও স্নাতক পর্যায়ে আবেদনে গ্রহণ করা হয়।

খরচ: ৫০–১০০ মার্কিন ডলার (বিষয় ও ধরন ভেদে ফি পরিবর্তিত হয়)

কারা অংশ নেন: যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে যেকোনো বিষয়ে স্নাতকে ভর্তি–ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা।

কেন প্রয়োজন: বিষয়ভিত্তিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক দক্ষতা সনদ হিসেবে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনপত্রের সঙ্গে এসএটি স্কোর জমা দিতে হয়। এসএটি পরীক্ষার দুটি ধরন আছে—সাধারণ এসএটি ও এসএটি সাবজেক্ট টেস্ট।

পরীক্ষার নম্বর: ১৬০০।

সুবিধা: যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও বিশ্ববিদালয়ে স্নাতক পর্যায়ে উচ্চশিক্ষার জন্য একাডেমিক দক্ষতার প্রমাণ হিসেবে এই সনদ গ্রহণ করা হয়।

মেয়াদ: পাঁচ বছর কিংবা তারপরও ভর্তির কাজে ব্যবহার করা যায়।

পরীক্ষা কর্তৃপক্ষ: কলেজ বোর্ড।

আবেদনের প্রক্রিয়া: অনলাইনে আবেদনের পর বাংলাদেশে নির্দিষ্ট দিনে নির্ধারিত সেন্টারে পরীক্ষা নেওয়া হয়।

পরীক্ষার সময়: ৩ ঘণ্টা ৫০ মিনিট।

পরীক্ষার মডিউল: তিনটি—রিডিং, রাইটিং, ল্যাঙ্গুয়েজ এবং গণিতের ক্যালকুলেটর ও নন-ক্যালকুলেটর বিভাগ। বিষয়ভিত্তিক এসএটি পরীক্ষায় গণিত, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন বা জীববিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়ে দক্ষতা যাচাই করা হয়।

বিস্তারিত

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0