বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাসি অনুষদের সাবেক ডিন ও গবেষক ড. এম এ রশীদ শুরু থেকেই এসইউবির ফার্মাসি বিভাগের উপদেষ্টার দায়িত্বে আছেন। তিনি মনে করেন, শিক্ষার্থীদের জন্য গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষা ও তাঁদের সন্তুষ্টি নিশ্চিত করা খুব জরুরি। তাই শুরু থেকেই মেধাবী ও পিএইচডি ডিগ্রিধারী শিক্ষক নিয়োগের প্রতি জোর দিয়েছেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাসি অনুষদের শিক্ষকেরাও এখানে খণ্ডকালীন ভিত্তিতে পাঠদান করেন। এ ছাড়া ওষুধ কোম্পানির দক্ষ ও অভিজ্ঞ বিশেষজ্ঞরাও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তাঁদের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করে নেন।

ছাত্রছাত্রীদের মেধার বিকাশের জন্য এই বিভাগের রয়েছে দলভিত্তিক আলোচনা, প্রশিক্ষণ, কর্মশালা, কুইজ প্রতিযোগিতা, শিল্পকারখানা পরিদর্শনসহ নানা আয়োজন। করোনার সময় সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ওয়েবিনার, ভার্চ্যুয়াল প্রতিযোগিতাসহ বিভিন্ন আয়োজনে সরব ছিল স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ফার্মাসি বিভাগ। সরকারি নির্দেশনা মেনে আগামী ১ নভেম্বর থেকে ক্যাম্পাসে ক্লাস শুরুর প্রস্তুতি নিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টি।

বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মো. সাইফুল ইসলামের মতে, দক্ষ শিক্ষক, উন্নত গবেষণাগার ও মানসম্পন্ন শিক্ষার পরিবেশই হচ্ছে একজন শিক্ষার্থীর মেধা বিকাশের সর্বোত্তম উপায়। তিনি জানান, ছাত্রছাত্রীদের হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্যই ১৩টি ল্যাব চালু আছে। পাশাপাশি নির্দিষ্ট পাঠ্যক্রমের অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীদের জন্য ‘ইনপ্ল্যান্ট প্রশিক্ষণ’–এর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

ফার্মাসি বিভাগের সাবেক ছাত্রী শাহানা আক্তার এখন রেনেটা লিমিটেডের যুগ্ম ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত। এ ছাড়া আরেক সাবেক শিক্ষার্থী ড. মাসুদ পারভেজ যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাবভি ফার্মাতে গবেষণায় যুক্ত আছেন।

ফার্মাসি বিভাগে ভর্তিসংক্রান্ত যেকোনো তথ্য পাওয়া যাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে

প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন