বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চিকিৎসাবিজ্ঞান আর প্রকৌশলের যোগ

কলেজজীবনে প্রকৌশলবিদ্যায় ঝোঁক ছিল কবির চৌধুরীর, পরে চিকিৎসাবিজ্ঞানে তো পড়ালেখাই করলেন। এনআইসিইউতে নবজাতকের চিকিৎসায় বিশেষভাবে যে যন্ত্র ব্যবহৃত হয়, সেটি ইনকিউবেটর। কম খরচে ইনকিউবেটর তৈরির ভাবনা মাথায় আসার পর শুরুতে তিনি খুঁজতে থাকেন, বিশ্বের নানা প্রান্তে এ–সংক্রান্ত গবেষণার তথ্য। কম্পিউটারভিত্তিক মডেল বানানোর চেষ্টা করেন। এরই মধ্যে লেজার কাটিং ও থ্রিডি প্রিন্টিং প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে পারেন, যা ব্যবহার করে কম খরচে যেকোনো যন্ত্রের নমুনা বা অনুলিপি বানানো সহজ হয়। থ্রিডি প্রিন্টার দিয়ে যন্ত্রের ছোট ছোট অংশ বানাতে শুরু করেন তিনি। চিকিৎসা পেশায় থাকার কারণে সহজেই নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে কর্মরত চিকিৎসকদের সঙ্গে পরামর্শ করার সুযোগ পেতেন। জেনে নিতেন, ইনকিউবেটরে ঠিক কী ধরনের সুবিধা থাকে। ২০১৭ সালে তাঁর সঙ্গে যোগ দেন সমমনা আরও দুজন।

৩০ সেপ্টেম্বর মুঠোফোনে কথা হচ্ছিল কবির চৌধুরীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘সে সময় প্রায়ই ইনকিউবেটরের অনুলিপি তৈরি করে আমি চিকিৎসকদের সঙ্গে দেখা করতাম, কথা বলতাম। জানতে চেষ্টা করতাম, আমাদের কোথায় কোথায় ভুল আছে। কোন অংশটা ঠিকভাবে কাজ করছে না। ফিরে এসে আবার নতুন উদ্যমে ভুল সংশোধনের চেষ্টা করতাম।’

বায়োফোর্জের যাত্রা

বছরখানেক খাটাখাটির পর উন্নত একটি ইনকিউবেটর তৈরি করে ফেলেন কবির চৌধুরী ও তাঁর দল। বিদেশ থেকে আনা ইনকিউবেটরের দাম যেখানে তিন–চার লাখ টাকা, কবির চৌধুরীরা মাত্র ৪০ হাজার টাকায় দেশেই এই চিকিৎসাযন্ত্র তৈরি করে ফেলেন। তা ছাড়া এই বিশেষ ইনকিউবেটর সহজে খুলে আবার জোড়া লাগানো যায়। তাই প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যবহারের জন্যও উপযোগী এটি। থ্রিডি প্রিন্টিং ও লেজার প্রযুক্তি ব্যবহারের কারণে তুলনামূলক কম খরচে আধুনিক ইনকিউবেটর বানাতে সমর্থ হয় কবির চৌধুরীর দল।

একই সঙ্গে আরও নানা রকম চিকিৎসাপ্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছিলেন তাঁরা। সব মিলিয়ে এ বছরের শুরুর দিকে প্রতিষ্ঠা করেন বায়োফোর্জ হেলথ সিস্টেম নামের একটি প্রতিষ্ঠান। আধুনিক যন্ত্র তৈরি করে উন্নত চিকিৎসাসেবা দেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তাঁরা। রাজধানীর উত্তরায় তাঁদের ছোট্ট অফিস। সেখানেই আধুনিক পণ্য উদ্ভাবনের চেষ্টা করছেন তাঁরা।

সলভের খোঁজ

এমআইটির সলভ চ্যালেঞ্জের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে সামাজিক সমস্যাগুলো সমাধানে প্রযুক্তির ব্যবহারকে উদ্বুদ্ধ করা হয়। সামাজিক উদ্যোক্তারা তাঁদের বাণিজ্যিক সমাধান নিয়ে অংশ নেন এই আয়োজনে। নির্বাচিত সেরা উদ্যোক্তারা মাইক্রোসফট, আমাজন, গুগলের মতো বড় প্রতিষ্ঠানের সহায়তা পেয়ে থাকেন। এ ছাড়া থাকে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার আর্থিক সাহায্য।

এ বছর চতুর্থবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো এমআইটি সলভ। ১৩৫টি দেশের ২৭০০টির বেশি প্রযুক্তিনির্ভর সামাজিক উদ্যোগ পাঁচটি বিশেষ বিভাগে অংশ নিয়েছে। যেখানে স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও মহামারি সমাধান (হেলথ সিকিউরিটি ও প্যানডেমিক সলভার) বিভাগে অংশ নিয়ে সেরাদের কাতারে উঠে আসে কবির চৌধুরীদের বানানো ইনকিউবেটর। বাছাই পর্ব ও চূড়ান্ত পর্ব পেরিয়ে তাঁরা জিতে নেন সেরা সলভার চ্যালেঞ্জ। বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন থেকে অনুদান পাবে বায়োফোর্জ। শুধু বাংলাদেশ নয়, যেকোনো দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের নবজাতকের জন্য স্বল্প খরচে চিকিৎসার ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নেবেন তাঁরা। এ পর্যায়ে কিছু ক্লিনিক্যাল টেস্ট পেরোতে পারলে সরাসরি রোগীদের সেবা দেওয়ার সুযোগ পাবে বায়োফোর্জ।

কবির চৌধুরী বলেন, ‘ভবিষ্যতে চিকিৎসা খাতে ব্যবহৃত প্রযুক্তি নিয়ে আমরা আরও গবেষণা করতে চাই। শুধু নবজাতক নয়, বিশ্বের কোনো মানুষই যেন টাকার অভাবে বিনা চিকিৎসায় মারা না যায়।’

প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন