বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিক্ষকেরা জানালেন, চাকরির বাজারের চাহিদার কথা মাথায় রেখে, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে তাঁরা বিজনেস স্কুলের পাঠ্যক্রম সাজিয়েছেন। তাই শিক্ষকদের গবেষণা কার্যক্রমে এখানে শিক্ষার্থীদেরও অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়। প্রকাশিত হয় জার্নাল। এ ছাড়া ক্যারিয়ার সার্ভিস ডিপার্টমেন্ট ও বিজনেস স্কুলের যৌথ উদ্যোগে বিবিএর শিক্ষার্থীদের শীর্ষস্থানীয় ইন্টার্নশিপ, চাকরি ও বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য সহায়তা করা হয়। ‘বিজনেস ইনোভেশন ফোরাম’ নামে একটি নিজস্ব ক্লাব আছে সাউথইস্টের বিজনেস স্কুলের। যেহেতু ওপেন ক্রেডিটের ব্যবস্থা আছে, ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের সুবিধা অনুযায়ী কোর্সের জন্য নিবন্ধন করতে পারেন। মেধা ও প্রয়োজনের ভিত্তিতে সাউথইস্টে ১১ ধরনের বৃত্তি চালু আছে।

সাউথইস্ট বিজনেস স্কুলের ডিন অধ্যাপক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই আমাদের বিজনেস স্কুল সমাজে গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষার চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বিবিএ ও এমবিএ প্রোগ্রামের মাধ্যমে যুগোপযোগী ও দক্ষ মানব সম্পদ তৈরির কাজ করছে। একাডেমিক কার্যক্রম এবং গবেষণার চমৎকার সমন্বয়ের মাধ্যমে আমরা শিক্ষার্থীদের তৈরি করছি।’

সাউথইস্টের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সাবেক ছাত্র ও আয়ান টেক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদ হোসেন বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের কীভাবে মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদান করা যায়, সেটাই আমাদের বিজনেস স্কুলের প্রধান লক্ষ্য। বিশ্ববিদ্যালয়জীবনে আমি অসাধারণ সব শিক্ষক পেয়েছি। পেশাগত জীবনে ফরচুন ফাইভ হান্ড্রেড লিস্টেড একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক আরেকটি প্রতিষ্ঠানের কান্ট্রি ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করেছি এবং পরবর্তীতে নিজের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্তরিক সহায়তায় নিজেকে তৈরি করেছি।’

প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন