default-image

গত বছর আগস্টের কথা। অনলাইন ক্লাসে শিক্ষকের কাছ থেকে একটা ভিন্ন কিছু করার প্রস্তাব পেয়েছিলেন বুয়েটের একদল শিক্ষার্থী। নাসা ইন্টারন্যাশনাল স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের ভাবনাটা মেহরাব, তামিমুল, হাসান, ফাবিহা, রাবিব আর জেহাদুলের মনে ধরেছিল তখনই। তাঁরা সবাই কম্পিউটারবিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। এ বছর স্পেস অ্যাপ চ্যালেঞ্জে অনারেবল মেনশন বিভাগে পুরস্কার পেয়েছেন তাঁরা।

করোনায় ক্যাম্পাস বন্ধ। তাই ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমেই নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে ঠিক করলেন, ভূমিকম্প শনাক্ত করবে এমন একটি অ্যাপ বানাবেন তাঁরা। খসড়া পরিকল্পনা তৈরি করে প্রতিযোগিতাটির আঞ্চলিক পর্বে জমা দেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। প্রকল্প পরিকল্পনা জমাদানের শেষ তারিখের আগের দিন বুঝতে পারলেন, তাঁদের এই প্রকল্প প্রতিযোগিতার নির্ধারিত বিষয়ের সঙ্গে ঠিক মিলছে না। দলের সবার মাথায় হাত। ঠিক পরদিন জমাদানের নির্ধারিত তারিখ ১০ দিন পেছানোর খবর তাঁদের জন্য আশার আলো হয়ে এল। ফলে নতুন করে পরিকল্পনা শুরু হলো। এরপর ছয়জন মিলে পরিকল্পনা করলেন, এমন একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম বানাবেন, যেখান থেকে মহাকাশের স্যাটেলাইট–সম্পর্কিত নানা তথ্য, সেগুলোর অবস্থান ও কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত ধারণা পাওয়া যাবে।

বিজ্ঞাপন

ভাবনা অনুযায়ী সপ্তাহখানেকের মধ্যে নতুন পরিকল্পনার খসড়া দাঁড় করিয়ে জমা দিলেন। এরপর শুরু করলেন মূল প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ। ‘স্যাটেলাইট’ নামেই একটি ওয়েবসাইট আর স্মার্টফোন অ্যাপলিকেশনভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম তৈরি করলেন তাঁরা। ওয়েবসাইট আর অ্যাপ ছাড়াও তাঁরা কম্পাসের মতো একটি যন্ত্র বানিয়েছেন, যেটি টেলিস্কোপ দিয়ে স্যাটেলাইট দেখতে সাহায্য করবে। স্যাটেলাইটকে জানা ও দেখার পর ব্যবহারকারীরা নিজেদের অনুভূতিও প্রকাশ করতে পারবেন এই প্ল্যাটফর্মে।

আঞ্চলিক পর্যায়ে তাঁদের এই পরিকল্পনা বিজয়ী হয়ে স্থান করে নেয় নাসার মূল প্রতিযোগিতায়। স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ নামের এই প্রতিযোগিতার ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, এবারের প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল প্রায় ১৫০টি দেশের তিন হাজার আট শতাধিক দল। সেখান থেকে বাছাই করা ৪০টি দল চূড়ান্ত পর্বের জন্য মনোনীত হয়। গত ২৮ জানুয়ারি চূড়ান্ত পর্বে ৮টি দলকে গ্লোবাল উইনার ও ৭টি দলকে অনারেবল মেনশন বিভাগে পুরস্কার দেওয়া হয়। বাংলাদেশের একক দল হিসেবে অনারেবল মেনশন বিভাগে পুরস্কার পেয়েছে বুয়েটের ছয় শিক্ষার্থীর এই দল।

২০১২ সাল থেকে এই প্রতিযোগিতা নিয়মিতভাবে আয়োজন করছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসা। বিশ্ববিদ্যালয়জীবনের প্রথম বর্ষেই বড় এই অর্জনে দারুণ খুশি বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। দলটির প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটারবিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান পার্থ চক্রবর্তী। দলটির অন্যতম সদস্য মেহরাব হক বলেন, ‘আমাদের দলের চারজন ঢাকায় ছিলেন। আর দুইজন ছিলেন চট্টগ্রামে। আমরা কেউ কারও সঙ্গে সামনাসামনি দেখা না করে, অনলাইনেই পুরো প্রকল্পটি বানিয়েছি। নিঃসন্দেহে এটি ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা ছিল আমাদের জন্য।’

ওয়েবসাইটটির ডিজাইন, সফটওয়্যার আর ওয়েব অ্যাপলিকেশনের কাজ করেছেন মেহরাব। অ্যাপ তৈরিতে কাজ করেছেন হাসান মাসুম আর জেহাদুল করিম। তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ আর গবেষণার কাজ করেছেন রাবিব যাহিন ইবনে মমিন। ফাবিহা তাসনীম জানান তিনি তামিমুল এহসানকে সঙ্গে নিয়ে প্রকল্পের বিস্তারিত বিবরণ নিয়ে দুইটি ভিডিও বানিয়েছেন। এ ছাড়া তামিমুল স্যাটেলাইটের অবস্থাননির্দেশক যন্ত্রটিও তৈরি করেছেন।

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের উপদেষ্টা আরিফুল হাসান বলেন, ‘নাসার এই আয়োজনকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় হ্যাকাথন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এতগুলো দেশের মধ্যে চূড়ান্ত পর্বে আমাদের দেশের এত বড় অর্জন অবশ্যই একটি গর্বের বিষয়।’ এবারের সাফল্যের মধ্য দিয়ে পরের প্রতিযোগিতাগুলোয় আরও ভালো কিছু করার স্বপ্ন দেখছেন আরিফুল। তিনি জানান, ইতিমধ্যে ৫০টি দল নিয়ে পরবর্তী প্রতিযোগিতার জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। দেশব্যাপী এই প্রতিযোগিতা ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টাও চলছে।

বিজ্ঞাপন
প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন