default-image

গত এপ্রিল মাসের কথা। করোনাভাইরাসের প্রকোপে অনেকেরই তখন উপার্জন বন্ধ হওয়ার দশা। ছবি তুলে বা আলোকচিত্রসংশ্লিষ্ট কাজ করে যাঁরা আয় করেন, তাঁদের মধ্যে অনেকে বিপাকে পড়েছিলেন। তাঁদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এসেছিলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) ফটোগ্রাফারস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা। অনলাইনে আয়োজিত আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে সংগঠনটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের তোলা ছবি বিক্রি করেন তাঁরা। পরে ছবি বিক্রির অর্থ তাঁরা দুস্থ স্টুডিও কর্মী, ছবি বাঁধাইয়ের কারিগরদের মধ্যে বিতরণ করেন।

‘শৈল্পিকতার সঙ্গে মানুষের জন্য আলোকচিত্র’ স্লোগানটি সামনে রেখে এভাবেই ২৫ বছর ধরে কাজ করছে শাবিপ্রবির আলোকচিত্রপ্রেমী শিক্ষার্থীদের এই সংগঠন। তাদের যত কর্মযজ্ঞ, সব আলোকচিত্র ঘিরেই। সংগঠনটির ওয়েবসাইট ঘুরে দেখা গেল, রোববার থেকে অনলাইনে শুরু হতে যাচ্ছে ৩২তম ‘বেসিক ফটোগ্রাফি কোর্স’। যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই অংশ নিতে পারবেন অনলাইনের এই কোর্সে।

বিজ্ঞাপন

সংগঠনটির সভাপতি সোহানুর রহমান বলেন, ‘প্রতিবছরই আমরা এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করি। সফলভাবে প্রশিক্ষণটি শেষ করতে পারলে তাঁরা আমাদের সংগঠনের সদস্য হয়ে যান। ফলে যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই আমাদের সঙ্গে যুক্ত হতে পারবেন। তবে শুধু শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরাই আমাদের নির্বাহী কমিটিতে থাকেন।’

প্রশিক্ষণের বাইরেও নিয়মিত প্রদর্শনীর আয়োজন করে আসছে সংগঠনটি। বছর পাঁচেক আগে শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের নিয়েই শুরু হয়েছিল ‘ইনকোয়েস্ট ইনসাইড’ নামের আলোকচিত্র প্রদর্শনী। প্রতিবছর দুই ধাপে সিলেট ও ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয় এই প্রদর্শনী। তবে গত বছর দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে ভারতের কলকাতার গ্যালারি গোল্ডে প্রদর্শনীর একটি অংশ অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বের যেকোনো প্রান্তের আলোকচিত্রীরা ছবি জমা দিতে পারেন বলে জানালেন সোহানুর। তবে করোনা মহামারির কারণে প্রদর্শনীটির সমাপনী অংশ অনলাইনে আয়োজন করেছিলেন তাঁরা।

সোহানুর বলেন, ভার্চ্যুয়াল গ্যালারি ভাড়া নিয়ে প্রদর্শনী আয়োজন বেশ ব্যয়বহুল। খরচ কমাতে তাই নিজেরাই ভার্চ্যুয়াল গ্যালারি বানানোর চেষ্টা করছেন। বলেন, ‘আমরা তো সবাই প্রকৌশলে পড়েছি, তাই বন্ধুবান্ধব মিলে ভার্চ্যুয়াল গ্যালারি বানানোর কাজ করছি। এতে আমরা নিজেরাও উপকৃত হব। আবার অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও অল্প খরচে আমাদের গ্যালারি ব্যবহার করতে পারবে।’

সম্প্রতি তাঁরা ভিউফাইন্ডার নামে তাঁদের ওয়েবসাইটে একটি ব্লগ চালু করেছেন। যেখানে শিক্ষার্থীরা আলোকচিত্রবিষয়ক বিভিন্ন অভিজ্ঞতা ও পরামর্শ নিয়ে লেখালেখি করেন। সংগঠনটির অর্গানাইজিং সেক্রেটারি গৌরব সাহা বলেন, ভিউফাইন্ডার মূলত তাঁদের সংগঠনের একটি নিয়মিত প্রকাশনা। ২০০১ সাল থেকে তাঁরা এটি প্রকাশ করছেন। করোনা পরিস্থিতিতে ক্যাম্পাস বন্ধ থাকলেও ভিউফাইন্ডার যেন বন্ধ না থাকে, তাই অনলাইনে ব্লগটি চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়। গৌরব বলেন, ‘ক্যাম্পাস খুললে আমরা আবার প্রকাশনা চালু করব। পাশাপাশি আমাদের এই ব্লগটিও থাকবে।’

দেশের অন্যান্য ক্যাম্পাসের আলোকচিত্রপ্রেমীদের এক ছাদের নিচে আনার স্বপ্ন দেখেন সংগঠনটির সদস্যরা। ঘরবন্দী এই সময়ে সেই চেষ্টাই চলছে। স্বপ্ন বাস্তবায়নের প্রথম ধাপ হিসেবে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোচিত্রভিত্তিক সংগঠনগুলোকে নিয়ে নিয়মিত অনলাইন অনুষ্ঠান আয়োজন করছেন তাঁরা। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন, আহ্‌ছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাঁদের এই অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন