বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কী পড়ানো হয়

ইউআইইউর কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগে মূলত যেসব বিষয়ে পাঠদান করা হয়, সেগুলো হলো—কম্পিউটেশনাল থিওরি, নেটওয়ার্ক অ্যান্ড কমিউনিকেশন, সিস্টেমস, ডেটা সায়েন্স, সফটওয়্যার প্রকৌশল, হার্ডওয়্যার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, সাইবার নিরাপত্তা, হেলথ ইনফরমেটিকস, ইন্টেলিজেন্ট কম্পিউটিং ইত্যাদি।

কর্মক্ষেত্রের সঙ্গে যেভাবে পরিচয় হয় শিক্ষার্থীদের

বর্তমানে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সিএসই বিভাগে দুই হাজারের বেশি শিক্ষার্থী পড়ছেন। ছাত্রছাত্রীদের হাতে-কলমে কাজ শেখানোর উদ্দেশ্যে ল্যাব কোর্সে বিভিন্ন প্রকল্প ভিত্তিক সমস্যার সমাধান করতে হয়। এর ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ‘প্রবলেম সলভিং’য়ের মানসিকতা গড়ে ওঠে ছাত্রজীবন থেকেই। পেশাজীবনে তাঁদের এই দক্ষতা কাজে আসে।

চতুর্থ বর্ষে শিক্ষার্থীরা এমন সব সমস্যা খুঁজে বের করেন, যা দেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে গুরুত্বপূর্ণ। এরপর তাঁরা কম্পিউটারের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে চেষ্টা করেন। এ ছাড়াও ক্যাম্পাসের বিভিন্ন ক্লাবগুলো সারা বছর বিভিন্ন আয়োজন করে, যা শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জনে সহায়ক। যেমন রোবোটিকস ক্লাব, অ্যাপ ফোরাম, কম্পিউটার ক্লাব। এই সংগঠনগুলোর বিভিন্ন আয়োজনে প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা আসেন, তাঁদের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করেন। ফলে অনুপ্রেরণা পান শিক্ষার্থীরা।

ইউআইইউর সিএসই বিভাগের শিক্ষার্থীদের অনেকেই বিভিন্ন সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানে সাফল্যের সঙ্গে কাজ করছেন। এ ছাড়া ব্যাংক, বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সার হিসেবেও আয় করছেন অনেকে। বৃত্তি নিয়ে ভিনদেশের বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চশিক্ষা নিচ্ছেন সিএসইর অ্যালামনাইদের কেউ কেউ।

শিক্ষক হিসেবে যাঁরা আছেন

বোর্ড অব অ্যাক্রেডিটেশন ফর ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনিক্যাল এডুকেশনের (বিএইটিই) স্বীকৃতিপ্রাপ্ত কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের সঙ্গে যুক্ত আছেন ১২ জন পিএইচডি ডিগ্রিধারী শিক্ষক। চৌধুরী মফিজুর রহমান, আবুল কাশেম মিয়া, হাসান সারওয়ার, নুরুল হুদা, খন্দকার আবদুল্লাহ-আল মামুন, সালেকুল ইসলাম, আকম মুজাহিদুল ইসলাম, মো. মোতাহারুল ইসলাম, দেওয়ান মো. ফরিদ, স্বাক্ষর শতাব্দ, মোহাম্মদ শাহরিয়ার রহমান, মো. সাদ্দাম হোসেনসহ বিভাগে আছেন মোট ৪৫ জন শিক্ষক।

শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ইউআইইউর সাবেক শিক্ষার্থী সাবিলা নওশীন বলেন, ‘তৃতীয় বর্ষ থেকেই টিচিং অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজের সুবাদে আমার শিক্ষকতার হাতেখড়ি হয়েছে। যা পরবর্তীতে উচ্চশিক্ষার আবেদনের সময় কাজে লেগেছে। আমাদের বিভাগে প্রথম ট্রাইমিস্টার থেকেই বিভিন্ন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় যোগদানের উৎসাহ দেওয়া হয়। শিক্ষকদের সহায়তা ছিল বলেই বিভিন্ন রিসার্চ প্রোজেক্টে কাজ করার পাশাপাশি বৈজ্ঞানিক প্রকাশনা জগতে পা রাখার সুযোগ পেয়েছি।’ সাবিলা এখন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটি ব্লুমিংটনে পিএইচডি করছেন।

আমাদের মাস্টার্স (এমএসসিএসই) প্রোগ্রামের বেশ সুনাম আছে। প্রোগ্রামটি কমপক্ষে ৩৬.০ ক্রেডিট আওয়ারের; যেখানে থিসিস, প্রজেক্ট ও কোর্সভিত্তিক সনদ নেওয়ার সুবিধা রয়েছে। তা ছাড়া চতুর্থ শিল্পবিপ্লবকে ধারণ করার জন্য পুরোনো মেজরগুলোর সঙ্গে রয়েছে নতুন অনেকগুলো মেজর ট্র্যাক।
মুহাম্মদ নূরুল হুদা, পরিচালক, এমএসসিএসই প্রোগ্রাম

কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান সালেকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আমাদের পাঠ্যক্রমকে নিয়মিত আপডেট করি। এখন যেমন চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সম্পর্কিত বিষয় শিক্ষার্থীদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই বিষয়টি মাথায় রেখে আমরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, মেশিন লার্নিং, ডেটা সায়েন্স, রোবোটিকস, সাইবার সিকিউরিটির মতো বিষয় অন্তর্ভুক্ত করেছি। “আউটকাম বেজড এডুকেশন” (ওবিই) এখন বিশ্বব্যাপী সমাদৃত শিক্ষাব্যবস্থা, যা ভবিষ্যতে ছাত্রছাত্রীদের কর্মদক্ষতা বাড়াবে। আমরা ওবিই পদ্ধতিতে পাঠদান ও মূল্যায়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখছি। যার স্বীকৃতি হিসেবে আমাদের প্রোগ্রাম কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে ওবিই-ভিত্তিক অ্যাক্রেডিটেশন পেয়েছে।’

ভর্তি ও খরচ

ইউআইইউতে সিএসই পড়তে মোট খরচ হয় ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা। তবে নানা ধরনের বৃত্তি ও টিউশন ফি মওকুফের সুবিধা রয়েছে। বর্তমানে ‘ফল-২০২১’ সেমিস্টারের ভর্তি প্রক্রিয়া চলমান আছে। চলবে ১ অক্টোবর পর্যন্ত। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নির্দেশনা অনুযায়ী ভর্তি পরীক্ষা নেয় ইউআইইউ কর্তৃপক্ষ। তবে করোনা মহামারির কারণে বর্তমানে ভর্তি পরীক্ষার বদলে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী নির্বাচন করা হচ্ছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পৃথকভাবে ন্যূনতম ২.৫ সিজিপিএ পাওয়া ছাত্রছাত্রীরা স্নাতক পর্যায়ে ভর্তির ফরম সংগ্রহ করতে পারেন। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পাওয়া এবং ইংরেজি মাধ্যমে ‘ও’ লেভেলে চারটি ‘এ’ পাওয়া ছাত্রছাত্রীরা সরাসরি ভর্তি হতে পারেন। অনলাইন বা অফলাইন উভয় মাধ্যমেই ভর্তি হওয়ার সুযোগ আছে। বিস্তারিত জানা যাবে এই ওয়েবসাইটে। এ ছাড়া টেলিফোনে যোগাযোগের নম্বর: ০১৭৫০৩৯৪৯৮, ০১৭৫৯০৩৯৪৬৫, অথবা ০১৭৫৯০৩৯৪৫১।

প্র স্বপ্ন নিয়ে থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন