default-image

‘হোমওয়ার্ক’–এর ঘোর বিরোধী যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের আলভারাডো হাইস্কুলের শিক্ষক কোর্টনি হোয়াইট। স্বাভাবিকভাবেই নিজ স্কুলে তিনি তুমুল জনপ্রিয়। খুদে ভিডিও শেয়ারের মাধ্যম টিকটকে নিজের মতবাদ ছড়িয়ে দিয়ে সারা বিশ্বেই জনপ্রিয় হয়ে উঠছেন তিনি, অন্তত শিক্ষার্থীদের কাছে তো বটেই!

পড়ালেখার ব্যতিক্রম কৌশল তুলে ধরতে নেচে-গেয়ে টিকটকে আগে থেকেই ভিডিও তৈরি করতেন হোয়াইট। হোমওয়ার্কের বিরোধিতা করে ভিডিও তৈরির পর অনেকে যেমন তাঁর প্রশংসা করেছেন, তেমনি সমালোচনাও করেছেন কেউ কেউ।

সমালোচকদের উদ্দেশে আরেকটি ভিডিও তৈরি করে হোয়াইট জানিয়েছেন, কেন তিনি হোমওয়ার্ককে অপ্রয়োজনীয় মনে করেন। সেই ভিডিও রাতারাতি ভাইরাল হয়েছে। এখন পর্যন্ত ভিডিওটি প্রায় ৪৭ লাখ বার দেখা হয়েছে। আর টিকটকে কোর্টনি হোয়াইটের অনুসারীর সংখ্যা প্রায় ৬ লাখ ছুঁয়েছে।

বিজ্ঞাপন
@cmw1129

Reply to @tafgarcia Me not assigning homework, doesn’t make me any less of a teacher. My kids show me mastery of content in class. #teachersoftiktok

♬ original sound - Courtney 💕

হোয়াইট বলেন, ‘হোমওয়ার্ক দিলে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে আরও ভালো করে—এমন কোনো প্রমাণ নেই। ক্লাসের বাইরে ছাত্রছাত্রীদের সময়টাকে আমি শ্রদ্ধা করি। তারা এমনিতেই আমার জন্য অনেক শ্রম দেয়, বাড়িতেও আমি ওদের ওপর হোমওয়ার্কের বোঝা চাপিয়ে দিতে চাই না।’

কোর্টনি হোয়াইট মূলত হাইস্কুলের শিক্ষার্থীদের পড়ান। তিনি মনে করেন, এই বয়সী ছেলেমেয়েদের বাড়িতে অনেক কাজ থাকে। কেউ ছোট ভাইবোনের দেখাশোনা করে, কেউ মা-বাবাকে কাজে সাহায্য করে। ঘুম, খেলাধুলাও তাদের জন্য জরুরি। হোয়াইট তাদেরকে বাড়তি চাপে ফেলতে চান না। তিনি বলেন, ‘আমি যদি হোমওয়ার্ক দিয়ে দিই, ওরা ওদের ছেলেমানুষি উপভোগ করবে কখন? কখন বিশ্রাম নেবে?’

কোনো কোনো ক্লাসের জন্য হোমওয়ার্ক জরুরি, সেটা মেনে নিয়ে তিনি যোগ করেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি হোমওয়ার্ক দিই না। শিক্ষার্থীদের আমি এই বোধটা দিতে চাই, বাড়ি গিয়ে ঘুমানো কোনো অপরাধ নয়।’

সূত্র: বোরডপান্ডা

মন্তব্য পড়ুন 0