default-image

না, থাকে না। এটা একধরনের কুসংস্কার। বাচ্চাদের জন্য রূপকথার গল্পে এ রকম কাহিনি থাকে। ভূত-প্রেত-পেতনি বলে কিছু নেই। তবে এই অদ্ভুত ধারণার পেছনে একটা কারণ আছে। তেঁতুল, বট, অশ্বত্থ প্রভৃতি বড় গাছের ডালপালা ছড়ানো থাকে। সন্ধ্যার পর গাছের সালোক সংশ্লেষণ বন্ধ থাকে, শুধু চলে শ্বাস-প্রশ্বাস। এ সময় কার্বন ডাই-অক্সাইড বের হয়। এই গ্যাস বাতাসের চেয়ে ভারী বলে গাছের নিচে জমা হয়। তাই কেউ যদি রাতে এসব বড় গাছের নিচে ঘুমায় তাহলে কার্বন ডাই-অক্সাইডের বিষক্রিয়ায় সে জ্ঞান হারাতে বা এমনকি মারাও যেতে পারে। এ থেকেই প্রচলিত ধারণায় বলা হয়, তেঁতুল (অথবা বট) গাছে ভূত-পেতনি থাকে, রাতে সেখানে কেউ গেলে ঘাড় মটকে খায়!

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0