default-image

খালি চোখেই দেখা যায়

রাতের আকাশে তৃতীয় উজ্জ্বলতম বস্তু হলো আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন। দেখা যায় খালি চোখেই। তবে সব অঞ্চল থেকে একসঙ্গে নয়। কবে কখন দেখা যাবে, তা জানা যাবে নাসার ওয়েবসাইটে। ঢাকার আকাশে এরপর ৯ নভেম্বর ভোর ৫টা ৪২ মিনিট থেকে তিন মিনিটের জন্য দেখা যাওয়ার কথা রয়েছে।

শরীরচর্চা না করলেই নয়

এখন পর্যন্ত ১৯টি দেশের ২৪১ জন নভোচারী আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে গিয়েছেন। ২০০০ সালের নভেম্বর থেকে স্টেশনটি কখনোই মানবশূন্য ছিল না। বিভিন্ন দেশের ছয় নভোচারী সেখানে থেকে কাজ করেন। মাধ্যাকর্ষণ না থাকায় পেশী ও হাড়ের ক্ষয় রোধে দিনে অন্তত দুই ঘণ্টা ব্যায়াম করতে হয় তাঁদের।

বিজ্ঞাপন
default-image

ছোট নয় মোটেও

মহাকাশ স্টেশনে অন্তত ছয়জনের ঘুমানোর জায়গা আছে। সঙ্গে দুটি বাথরুম, একটি ব্যায়ামাগার এবং চারপাশটা দেখার মতো জানালা আছে। সেখানে থাকা ও কাজের জায়গা ছয় শয়নকক্ষের বাড়ির চেয়েও বড়। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২০ সাল থেকে পর্যটকদের মহাকাশ স্টেশন ভ্রমণে যেতে দেবে নাসা। তবে সেখানে প্রতি রাত থাকার জন্য গুণতে হবে ৩৫ হাজার ডলার।

ব্যয় ১২ হাজার কোটি ডলার

যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, কানাডা ও জাপানসহ ১৬টি রাষ্ট্র আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন তৈরিতে অংশ নিয়েছে। সবচেয়ে বড় কৃত্রিম উপগ্রহ এটি, সবচেয়ে ব্যয়বহুলও। আইএসএস তৈরিতে ১২ হাজার কোটি ডলারের বেশি খরচ হয়েছে।

default-image

মহাকাশে টানা ৩৪০ দিন

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে টানা ৩৪০ দিন থেকে রেকর্ড গড়েছেন মার্কিন নভোচারী স্কট কেলি। আর বিভিন্ন অভিযানে সবচেয়ে বেশি দিন কাটান পেগি হুইটসন। ২০১৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব মিলিয়ে ৬৬৫ দিন মহাকাশ স্টেশনে কাটিয়েছেন নাসার এই নভোচারী।

চার ঘণ্টায় মহাকাশ স্টেশনে

মহাকাশ স্টেশনে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য বিশাল বিশাল সোলার প্যানেল আছে। সব মিলিয়ে ৮ মাইল দীর্ঘ তার ব্যবহার করে সব যন্ত্রাংশে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়েছে। মহাকাশ স্টেশনটিতে একসঙ্গে সর্বোচ্চ আটটি নভোযান যুক্ত হতে পারে। আর পৃথিবী থেকে উড্ডয়নের পর কোনো নভোযান মাত্র চার ঘণ্টায় মহাকাশ স্টেশনে পৌঁছতে পারে, অবশ্য বেশিও লাগতে পারে।

বিজ্ঞাপন
default-image

মহাকাশেও কম্পিউটার ভাইরাস

মহাকাশ স্টেশন ও নভোচারীদের নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণে প্রায় সাড়ে তিন লাখ সেন্সরের তথ্য সফটওয়্যারে নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করা হয়। ৫০টির বেশি কম্পিউটার মহাকাশ স্টেশনের সিস্টেম নিয়ন্ত্রণ করে। এই কম্পিউটারগুলোও একাধিকবার ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

যোগাযোগ থেমে নেই

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের নভোচারীরা ল্যাপটপ কম্পিউটার ব্যবহার করেন। চাইলে ইন্টারনেটে যুক্ত হয়ে আত্মীয়দের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। সরাসরি টিভি দেখার ব্যবস্থাও আছে।

default-image

আকারে ফুটবল মাঠের সমান

মহাকাশ স্টেশনের মূল যন্ত্রাংশগুলো পৌঁছে দিতে ৪২ বার পৃথিবী ছেড়েছে রকেট। দৈর্ঘ্যে এটি ৩৫৭ ফুট। আমেরিকান ফুটবল মাঠের চেয়ে কেবল এক গজ ছোট।

২৪ ঘণ্টায় ১৬ বার সূর্যোদয়

সেকেন্ডে পাঁচ মাইল বেগে ছুটছে মহাকাশ স্টেশন। বলতে পারেন, বুলেটের চেয়ে ১০ গুণ বেশি গতিতে। প্রতি ৯০ মিনিটে একবার করে ২৪ ঘণ্টায় মোট ১৬ বার পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে। এ সময়ে ১৬ বার সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখেন নভোচারীরা।

মন্তব্য পড়ুন 0