বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মুঠোফোন থেকেও নেই, তাই বাধ্য হয়ে স্ত্রীর মুখের দিকে তাকালেন সৈকত এবং হঠাৎ খেয়াল করলেন, স্ত্রীর চেহারায় বিশেষ একটা পরিবর্তন এসেছে।

সৈকত: তুমি কি চুল কেটেছ? দেখতে কেমন অচেনা লাগছে!

ঝুমকা: চুল তো কেটেছি তা-ও তিন মাস হলো।

সৈকত: ও, তাই তো বলি, অচেনা...মানে চেঞ্জ এসেছে লুকে। ভালোই লাগছে দেখতে।

ঝুমকা: থ্যাংক ইউ।

সৈকত: আচ্ছা, তোমার ওই বস...কী যেন নাম...মোতালেব না মতলুব...

ঝুমকা: মোদাচ্ছের। হ্যাঁ, কী হয়েছে?

সৈকত: হ্যাঁ, মোদাচ্ছের…লোকটা কি এখনো তোমাকে বেশি জ্বালাতন করে?

ঝুমকা: জ্বালাতন করবে কীভাবে! তিনি বছর দুয়েক আগেই মারা গেছেন। তোমার ইনস্টাগ্রামে দেখো, হাসপাতালে থাকতে তাকে দেখতে গিয়েছিলাম আমরা। তুমি ছবিও আপলোড করেছিলে।

সৈকত: ওহ্ হো! সরি সরি! কিন্তু চার্জ তো নেই, দেখব কীভাবে...

ঠিক সেই মুহূর্তে টেবিলের সামনে ঝড়ের বেগে ছুটে এল একটা তিন বছর বয়সী ছেলে। ছেলেটার নাম টুকু। সে এসেই ঝুমকার হাত ধরে ঝাঁকুনি দিয়ে বলল—

টুকু: মা মা, দারুণ একটা জিনিস দেখেছি! চলো চলো, তোমাকেও দেখাই!

ঝুমকা: আচ্ছা বাবা সোনা, খাওয়াটা শেষ করে যাই?

টুকু বেশ লক্ষ্মী ছেলে। মায়ের বাধ্য। সে মায়ের কথামতো আবার খেলতে চলে গেল কিডস জোনে। সৈকত তখন মুখে একটা খাবার পুরেছিলেন। টুকুকে দেখে আর মা-ছেলের কথাবার্তা শুনে তিনি হতবাক! কোনোরকমে সামলে উঠে ঝুমকাকে জিজ্ঞেস করলেন—

সৈকত: ও কি আমাদের...মানে আমাদের ছেলে?

ঝুমকা: হ্যাঁ, আমাদের ছেলে।

সৈকত: কবে...মানে কবে হলো!

ঝুমকা: শেষ যেবার তোমার মুঠোফোনের চার্জ শেষ হয়েছিল, সেবার!

একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন