default-image

আপনি নিজেই আপনার ভাগ্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন শতকরা ৯০ থেকে ৯৬ ভাগ। বাকিটা আমরা ফেট বা নিয়তি বলতে পারি। ভাগ্য অনেক সময় অনির্দিষ্ট কারণে আপনা থেকেও গতিপথ বদলাতে পারে। এখানে রাশিচক্রে আমি ‘নিউমারলজি’ বা ‘সংখ্যা-জ্যোতিষ’ পদ্ধতি প্রয়োগ করেছি।

মেষ ২১ মার্চ-২০ এপ্রিল। ভর # ৬

পর কি কখনো আপন হয় না? হয়। আমার মা মারা যান আমার এক বছর বয়স হওয়ার ঠিক চার দিন আগে। স্মৃতির উন্মেষ তিন বছর বয়স থেকে। সেটা বাবার কর্মস্থল ময়মনসিংহ শহরে। আমার খ্রিষ্টান খাসিয়া আয়া শিলা শুধু আমার টানে এ দেশে চলে আসে আমাদের পরিবারের সঙ্গে। মা–সম্পর্কিত সত্যিকার কোনো ধারণা আমার তখনো ছিল না, এখনো নেই। কিশোরী শিলাই ছিল আমার সব। ও হিন্দিতে কথা বলত, আমি সব বুঝতাম। শাসন করত, আদর করত। কাছের মিশন স্কুলে নিয়ে যেত হাত ধরে। আমাকে নিয়ে শুত, ঘুম পাড়াত। আমি ওর স্কার্টের কোনাটা মুঠোয় ধরে ঘুমিয়ে থাকতাম। অবচেতনে হয়তো ছিল শিলাকে হারানোর ভয়। একদিন ঘুম থেকে জেগে দেখি, সত্যিই ও নেই। দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে ওকে। সেই গভীর কষ্টটা আমার আজও কাটেনি। যা-ই হোক, এর চেয়েও বেশি কষ্ট নিয়ে হয়তো অনেক শিশুই বড় হয়। তবু জীবন চলে জীবনের পথে। প্রিয় মেষ, অন্যকে নিয়ে ভাবুন। আগামী দিনগুলো আপনার ভালোই কাটবে।

বৃষ ২১ এপ্রিল-২১ মে। ভর # ১

সত্যজিৎ রায়ের ডকুমেন্টারি থেকে সমর্থন পাই, বৃষ রবীন্দ্রনাথের পূর্বপুরুষ বঙ্গদেশে আসেন ভারতীয় উত্তর প্রদেশের কনৌজ থেকে, যেখানকার ভাষা প্রধানত হিন্দি। রবীন্দ্র-পরিবারের চেহারার আদল এবং দৈহিক গড়নে লক্ষিত হয় তাঁদের বংশের ধারা। রবীন্দ্রনাথ নিজে ছিলেন ছয় ফুট দুই ইঞ্চি লম্বা। এগুলো অবশ্য তেমন গুরুত্বপূর্ণ কিছু নয়। মানুষ বড় হয় অন্যান্য কারণে। এই জন্যই বলে, জন্ম হোক যথা তথা, কর্ম হোক ভালো। আমিও বলি, রাশি হোক যাহা তাহা, কর্ম হোক বড়। আপনার উদ্দেশেও এই কথাই বলতে চাই।

মিথুন ২২ মে-২১ জুন। ভর # ৬

কবি নজরুল ছিলেন আপনারই রাশিসঙ্গী। জীবনের বেশির ভাগটাই দারিদ্র্যের মধ্যে কাটিয়ে তিনি লিখেছেন, হে দারিদ্র্য, তুমি মোরে করেছ মহান। এখানটায় আমার একটু তর্ক আছে। সাধারণ মানুষ অপশন হিসেবে দারিদ্র্যকে বেছে নেয় না। নেওয়া উচিতও নয়। দারিদ্র্য লজ্জার কিছু নয় যদিও, তবু সচ্ছলতা তো অর্জন করতেই হবে। সৎ পথে। শ্রম দ্বারা। তা না হলে জীবন মহৎ কিংবা সুন্দর কেন হবে? প্রিয় মিথুন, আদর্শ ঠিক রেখে উপার্জন যতটা সম্ভব বাড়ান।

কর্কট ২২ জুন-২২ জুলাই। ভর # ২

ঘরে পোষা বানর-শিশু ও জংলি বানরছানার মধ্যে গল্প হচ্ছে। জংলি জিজ্ঞেস করল, কী রে, গৃহপালিত আহ্লাদি ছেলে, আজ কী করলি? জবাব এল, এই তো এই নতুন ড্রেসটা পেলাম। বোতল দিয়ে দুধ খাওয়াল। লেটেস্ট নাচ শেখাল। এই সব আরকি। জংলি বাঁকা হেসে বলল, কে করল এসব? তোর সৎমা? এবারে বন্ধু প্রশ্ন করল, তুই কী করলি? উত্তর—আমিও দুধ খেলাম, আটচল্লিশটা ডিগবাজি খেলাম। গাছে লাফালাম।—মাকে থ্যাঙ্কু বললি না একবারও?—নাহ্।—তোর দেখি একটু শিষ্টাচারও নেই। জংলি বলল, রাখ্ তোর শিষ্টাচার! লেজ ধরে মা এমন ঘোরানো ঘুরিয়েছে আর আছাড় দিয়েছে যে এমনিতেই আমার কাম সারা! তবেই দেখুন কর্কট, কারও জীবনের কোনো দিকেই পূর্ণতা নেই। তাহলে আপনি আর আফসোস করে কী করবেন?

সিংহ ২৩ জুলাই-২৩ আগস্ট। ভর # ১

আসলে তো মানুষের জীবনে সুখ বলে কিছু নেই। যা আছে তা হলো টুকরো টুকরো আনন্দ। এগুলোকে একসঙ্গে জোড়া দিয়ে যদি তার নাম দিতে চান সুখ—তাহলে দিতে পারেন।

কন্যা ২৪ আগস্ট-২৩ সেপ্টেম্বর। ভর # ২

এ সপ্তাহে আপনার দু–একটি ভালো সুযোগ নষ্ট হলেও একটি সুযোগ কাজে লাগবে এবং তাতেই সব পুষিয়ে যাবে।

তুলা ২৪ সেপ্টেম্বর-২৩ অক্টোবর। ভর # ২

আপনার কোনো পেশা না-ও যদি থাকে, তবু আছে একটি পেশাদার মনোভাব। আপনি অন্যের গোপনীয় কথা আজীবন গোপন রাখেন পবিত্র আমানতের মতো। এই চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য আপনাকে দেয় বিশাল সামাজিক মর্যাদা।

বৃশ্চিক ২৪ অক্টোবর-২২ নভেম্বর। ভর # ২

কেউ আপনাকে ভুল বুঝল কি না, ও নিয়ে বেশি ভাববেন না। নিজের মতো নিজের কাজ করে যান। এ সপ্তাহে কেউ আপনার কাছে জরুরি কোনো পরামর্শ চাইলে তাকে হতাশ করবেন না। 

ধনু ২৩ নভেম্বর-২১ ডিসেম্বর। ভর # ৯

জীবন হয় নাই ব্যর্থ, এখনো সময় আছে। এখনো উঠিতে পারো জ্বলে অস্তাচলের কাছে। আমার লেখা সেই অতি পুরোনো পদ্যটাই আবার আপনাকে নিবেদন করলাম। 

মকর ২২ ডিসেম্বর-২০ জানুয়ারি। ভর # ৩

আপনার কাছেই নালিশ জানাই। বস্তাপচা কথা বা ক্লিশে শুনতে শুনতে হয়রান হয়ে গেলাম। দেয়ালে পিঠ। বাকিটা ইতিহাস। না–ফেরার দেশে। আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। মানুষের কি একটু ক্লান্তি নেই? একঘেয়েমি বোধ নেই? কল্পনাশক্তি নেই? এদের একটু বুঝিয়ে দিন না ভাই। কাজটা আপনিই পারবেন, যেহেতু আপনি একজন মকর। 

কুম্ভ ২১ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি। ভর # ৯

কেউ যখন বলে, কারও বিরুদ্ধে আমার কোনো অভিযোগ নেই, তখন বুঝতে হবে অভিযোগ আছে এবং তা খুব গুরুতরভাবেই আছে। এ সপ্তাহে আপনার কাছের মানুষদের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখুন।

মীন ১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ। ভর # ৩

জানতে চাইলে বলব, ইতিহাস আমার অত্যন্ত প্রিয় একটি বিষয়। যখন দেখি কেউ প্রতিষ্ঠিত কোনো ঐতিহাসিক সত্যকে গায়ের জোরে অস্বীকার করছে, তখন তাকে আমার করুণা হয়। সে তো নিজেকে ভুল পথে নিয়ে চলে যাচ্ছে। প্রিয় মীন, একটি বিষয়ের ওপর অনেক দৃষ্টিকোণ থেকে বিভিন্ন বই লেখা হয়। লেখকদের পরিচয় জানলেই আপনি বুঝতে পারবেন, আপনি ঠিক পথে এগোচ্ছেন কি না। জয় হোক আপনার!

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0