default-image

‘প্রতিবার ঈদের দিন সকালে মনে করি বাড়ির সবাইকে বেড়ে খাওয়াব। কিন্তু ঘুম ভাঙে দুপুরে। অগত্যা আমাকেই অন্যরা বেড়ে খাওয়ায়। তবে ঈদের আগের দিন আমি কিছু একটা রান্না করে রাখি।’ বলছিলেন অভিনয়শিল্পী স্বাগতা। কাজিনদের বাড়িতে বেড়ানো হবে না। কারণ, কাজিনরা মিলে এখন এক বাড়িতেই থাকছেন। মজার বিষয় হচ্ছে এবার দুটি ঈদ করবেন স্বাগতা। সবকিছু ঠিক থাকলে ঈদের আগেই কাতার যাবেন একটা অনুষ্ঠানে অংশ নিতে। সেখানে এক দিন আগে ঈদ হবে, পরদিন দেশে ফিরবেন। সেদিন হবে বাংলাদেশে ঈদ।
ঈদের দিন রাতের বেলা জমকালো সাজেই দেখা যাবে স্বাগতাকে। দেশি শাড়িই বেশি পছন্দ বলে তেমনই কিছু একটা পরবেন। স্বাগতা বলেন, ‘এ বছর সাজে চলছে নব্বইয়ের দশকের রাফ অ্যান্ড টাফ চল। তাই একটু বেশি সাজলেও বেমানান লাগবে না। রাতে উজ্জ্বল রঙের জর্জেট কাতান শাড়ি পরব। গলায় ও কানে একটা সবুজ পাথরের মালা আর গোল্ড প্লেটের রুপার দুল বেছে নেব। ঠোঁটে গাঢ় করে লাল লিপস্টিক।’
চোখ সাজাবেন শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে অাইশ্যাডো দিয়ে। চোখের কোনায় দেবেন হয়তো মাসকারা। গরম বেশি থাকলে চুল হাতখোঁপা করবেন আর গরম না থাকলে চুলটা ছাড়াই থাকবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন