ভালো থাকুন

ধূমপায়ীদের করোনা ঝুঁকি

ধূমপায়ীরা অপেক্ষাকৃত বেশি নাক-মুখ স্পর্শ করেন। ধূমপান করতে গিয়ে মাস্কও খুলতে হয় বারবার। আবার সংক্রমিত হওয়ার পর ধূমপায়ী রোগীদের জটিলতার আশঙ্কাও অধূমপায়ীদের তুলনায় তিন গুণ বেশি থাকে।

ধূমপায়ীদের করোনা ঝুঁকি
বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকিতে আছেন সবাই। তবে ধূমপায়ীদের সংক্রমণের ঝুঁকি অন্যদের তুলনায় বেশি। কারণ, ধূমপায়ীরা অপেক্ষাকৃত বেশি নাক-মুখ স্পর্শ করেন। ধূমপান করতে গিয়ে মাস্কও খুলতে হয় বারবার। আবার সংক্রমিত হওয়ার পর ধূমপায়ী রোগীদের জটিলতার আশঙ্কাও অধূমপায়ীদের তুলনায় তিন গুণ বেশি থাকে। করোনায় এই রোগীদের মৃত্যুহারও বেশি।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিয়মিত ধূমপানে ফুসফুসে যে ছোট ছোট চুলের মতো সিলিয়া থাকে, সেগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে। সিলিয়ার কাজ হলো ধুলাবালু, জীবাণু বের করে বা পরিষ্কার করে ফুসফুসকে সুস্থ রাখা। এগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়লে যেকোনো ধরনের জীবাণু চট করে ফুসফুসে ঢুকে পড়তে পারে। ফলে নিউমোনিয়া, ইনফ্লুয়েঞ্জা, যক্ষ্মার পাশাপাশি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকিও বাড়ে। এ ছাড়া যেসব রিসেপ্টরের মাধ্যমে করোনাভাইরাস কোষে ঢোকে, ধূমপান করলে সেগুলো বেশি সক্রিয় হয়ে ওঠে। এ কারণে ভাইরাস সহজে বংশবিস্তার করতে পারে। ধূমপানের কারণে যাঁদের ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ বা সিওপিডি আছে, করোনা সংক্রমিত হলে তাঁদের মধ্যে জটিলতার সৃষ্টি হয় বেশি। এ ধরনের রোগীর সেরে উঠতেও বেশি সময় লাগে। সুস্থ হওয়ার পর অসুস্থতার রেশ থেকে যায় অনেক দিন। ধূমপানের ফলে ধূমপায়ীর রক্তনালিতেও পরিবর্তন আসে। করোনা সংক্রমিত হলে জটিলতার এটিও একটি কারণ।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ধূমপানের সময় করোনা সংক্রমিত ধূমপায়ীর ছাড়া ধোঁয়ার মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়ায় কি না, সে প্রশ্নের শতভাগ নিশ্চিত জবাব বিজ্ঞানীরা এখনো খুঁজছেন। তবে ভাইরাসটি যে বাতাসবাহিত লালার কণায় প্রায় তিন ঘণ্টা টিকে থাকতে পারে, তা এখন প্রমাণিত। কাজেই বদ্ধ ঘরে কাছাকাছি অবস্থানে ধূমপান করলে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকির বিষয়টি মোটেই উড়িয়ে দেওয়া যায় না। তা ছাড়া ধূমপায়ীর সংস্পর্শে থাকা অধূমপায়ীও পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই শুধু এই করোনা মহামারির সময় নয়, ধূমপায়ীরা যেকোনো পরিস্থিতিতেই নিজের পরিবার ও আশপাশের মানুষের জন্য বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারেন।

কাজেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও জটিলতা থেকে নিজে বাঁচতে ও কাছের মানুষগুলোকে বাঁচাতে অবশ্যই ধূমপান বর্জন করতে হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন