করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার অংশ হিসেবে সবাইকে বাড়িতে থাকতে হচ্ছে। এ সময় বাড়িতেই করতে পারেন যোগব্যায়াম। সকালবেলা যোগব্যায়ামের ভালো সময়। তবে চাইলে সন্ধ্যায়ও করা যেতে পারে। এমন কয়েকটি ব্যায়াম হলো:

তদাসন

প্রথমে দুই পায়ের মাঝখানে দুই সেন্টিমিটার ফাঁকা করে দাঁড়াতে হবে। শরীরের ভর যেন দুই পায়ের ওপর সমানভাবে থাকে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এবার দুই হাতের আঙুল পরস্পরের সঙ্গে আটকে ধীরে ধীরে মাথার ওপর তুলতে হবে। পায়ের আঙুলের ওপর দাঁড়িয়ে যতক্ষণ সম্ভব নিশ্বাস ধরে রাখুন। ধীরে ধীরে শ্বাস ছেড়ে দিতে দিতে স্বাভাবিক অবস্থায় আসুন। এ প্রক্রিয়াটি পাঁচ থেকে সাতবার করুন।

default-image

ধানুরাসন

একটি ম্যাটের ওপর উপুড় হয়ে শুয়ে পড়ুন। এবার হাঁটু ভাঁজ করে পিঠের দিকে নিয়ে আসুন। দুই হাত দিয়ে দুই পায়ের গোড়ালি ধরুন। এবার বুক, মাথাসহ ওপরের দিকে ওঠান। এই সময় শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক থাকবে এবং অবস্থানটি ২০ সেকেন্ড ধরে রাখতে হবে। এ আসনটি সাতবার করুন।

default-image

পদাঙ্গুষ্ঠাসন

প্রথমে দুই পায়ে সমান ভর দিয়ে সোজা হয়ে দাঁড়ান। এবার হাত দুটোকে শ্বাস নিতে নিতে মাথার ওপর নিয়ে শরীরটাকে টান টান করুন। এরপর শরীর নিচের দিকে টেনে নিয়ে আসুন। হাতের তর্জনী ও মধ্যমা দিয়ে পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলি ধরুন। হাঁটু ভাঁজ করা যাবে না। শ্বাসপ্রশ্বাস থাকবে স্বাভাবিক। এভাবে ২০ সেকেন্ড থাকার পর গভীর শ্বাস নিতে নিতে আবার সোজা হতে হবে। ব্যায়ামটি সাতবার করুন।

default-image

বালাসন

এ আসনটি মাতৃগর্ভে শিশু যেভাবে থাকে, অনেকটা তেমন। প্রথমে হাঁটু মুড়ে বসুন। এবার মাথা ঝুঁকে মেঝেতে রাখুন। দুই হাত সামনের দিকে প্রসারিত থাকবে।

ত্রিকোনাসন

প্রথমে দুই পা আড়াই থেকে তিন ফুট ফাঁকা করে দাঁড়ান। এবার ডান হাত দিয়ে ডান পায়ের দিকে মেঝেতে হাতের তালু রাখুন এবং বাঁ হাতকে ওপরের দিকে সোজা করে তুলুন। মাথা বাঁ হাতের দিকে থাকবে। শ্বাসপ্রশ্বাস থাকবে স্বাভাবিক। এবার বিপরীত দিকে আবার করুন। ২০ সেকেন্ড অবস্থানটি ধরে রাখুন। ব্যায়ামটি সাতবার করুন।

default-image

বৃক্ষাসন

প্রথমে সোজা হয়ে দাঁড়ান। এবার দুই হাত সোজা করে মাথার ওপর তুলুন। ধীরে ধীরে ডান পায়ের গোড়ালি বাঁ পায়ের হাঁটুর কাছে রাখুন। এ অবস্থানে ২০ সেকেন্ড থাকুন। এবার বাঁ পা দিয়ে করুন। এভাবে সাতবার করুন। 

খেয়াল রাখতে হবে, ভরা পেটে ব্যায়াম না করাই ভালো। তা ছাড়া যেকোনো ব্যায়াম করার আগে শরীরের কথা শুনতে হবে। অর্থাৎ জোর করে কোনো স্ট্রেস বা টান দেওয়া যাবে না। গর্ভকালীন সময়ে ব্যায়াম করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।



ফিজিওথেরাপি পরামর্শক, পিটিআরসি 

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0