default-image

মাস দেড়েক আগে এক বন্ধু রিকশায় করে যাচ্ছেন। প্রচণ্ড তাড়া। গন্তব্যে পৌঁছার আগেই নামল বৃষ্টি। মুষলধারে বৃষ্টি। চালক থামলেন। ১০ মিনিট যেতে না যেতেই তিনি সিটে বসলেন। বন্ধু বললেন, ‘বৃষ্টি থামুক, পরে যান।’ তিনি বললেন, ‘তাহলে আর সারা দিনে খ্যাপ মারতে হবে না।’
‘জ্বরে ভুগলে আপনার সংসার দেখবে কে?’
চালক বললেন, ‘আইজ বাঁচলে কাইলের চিন্তা।’
এটা বলে যাত্রীকে বৃষ্টি থেকে রক্ষা করে নিজে ভিজে চললেন তাঁর গন্তব্যের দিকে। বন্ধুটি পরবর্তী মিটিংয়ে বিষয়টি সবাইকে বললেন। সেই মিটিং থেকে যাত্রাবাড়ী বন্ধুসভার বন্ধুরা সিদ্ধান্ত নিলেন, তাঁরা এই বর্ষায় রিকশাচালকদের রেইনকোর্ট দেবেন।
এরপর শুরু হলো টাকা সংগ্রহের পালা। বন্ধুরা নিজেরা টাকা দিয়েছেন এবং তাঁদের পরিবার-স্বজনদের কাছ থেকে টাকা তুলে গত ২৩ জুন ২৪ জন রিকশাচালককে রেইনকোর্ট বিতরণ করেন।
চালকদের তথ্য পেতে সহায়তা করেন শফিক। বন্ধুদের সঙ্গে অর্থ সহায়তা দিয়েছে ব্রাইট স্কুলের চেয়ারম্যান লিটন স্যার, আদর্শ স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা শিরিন, কুলসুম, মনোয়ারসহ অনেকে। অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় ছিলেন বন্ধু কাজল, ফাহিমা, ফরহাদ, মুহিত, তানভীর, সায়েম, মনির, শামিমা, সাবিহা, শান্তা, সাদিয়া, তন্বী, মেহেদী, সুমাইয়া, জয়, অহনা, পাভেল, রাবেন, মর্জিনা ও ইতি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0