বছর কয়েক আগে লাকি আকতারকে তাঁর বড় ভাই এক জোড়া গাভি কিনে দিয়েছিলেন। গাভি দেখে স্বামী মীর কবির হোসেনের সে কী রাগ। স্বামীকে বুঝিয়ে গাভির দুধ বিক্রি করা শুরু করলেন লাকি। তারপর  স্বামীর কাছ থেকেই পেলেন উৎসাহ। স্বামী নিজেই আরও দুটি গাভি কিনলেন। গরুর খাঁটি দুধের চাহিদা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গাভির সংখ্যাও বাড়তে থাকল। বছর দেড়েক আগে ৩০টি গাভি, সঙ্গে কয়েকটি বাছুর নিয়ে লাকি আক্তার এস এস পোলট্রি অ্যান্ড ডেইরি ফার্ম নামের খামার গড়ে তুললেন।  লাকি এখন পুরোদস্তুর খামারি।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের কামারগাঁও গ্রামে পরিত্যক্ত ১০ বিঘা জমিতে এ খামারে  বর্তমানে ৮০টি গরু। এর মধ্যে ৩০টি গাভি, ৫০টি ষাঁড় এবং বাছুর। এর মধ্যে ১৩টি এবার কোরবানি ঈদ উপলক্ষে বিক্রি করা হবে।  লাকি আকতারের আশা, ১৩টি গরু ঈদের সময় কম করে হলেও ৪০-৪৫ লাখ টাকায় বিক্রি করতে পারবেন।

১৭ জুলাই লাকি আকতার তাঁর খামারে বসে শোনালেন তাঁর খামারি হওয়ার গল্প। স্বামী মীর কবির হোসেনের ব্যবসা থেকে আয়–রোজগার বেশ ভালোই। এক ছেলে, এক মেয়ে নিয়ে সাজানো–গোছানো সংসার। তবু লাকি আকতার নিজের পায়ে দাঁড়াবেন, নিজেই উপার্জন করবেন সে ইচ্ছা ছিল। শুরুটা কিছুটা শখ থেকে শুরু হলেও এখন পুরো ধ্যানজ্ঞান খামার ঘিরেই।

 খামার থেকে আয়ের পথ খুলেছে। লাকি বললেন, ‘প্রতিদিন গাভিগুলো থেকে প্রায় আড়াই শ লিটার দুধ পাচ্ছি। আশপাশের লোকজন ছাড়াও, রাজধানী ঢাকা থেকে ক্রেতারা আসছেন আমার খামারের  দুধ কিনতে। প্রতি লিটার দুধ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা করে।’

   লাকি আকতার জানালেন, ছয়জন শ্রমিক কাজ করেন তাঁর খামারে। বিদ্যুৎ বিল, গরুর পরিচর্যা, খাবার খরচ, শ্রমিকদের বেতনসহ সব বাদ দিয়ে প্রতিদিন লাভ করছেন ২০০০ টাকারও বেশি। এখন মাসে মুনাফা হচ্ছে ৬০ হাজার টাকা।

লাকি বললেন, ‘মাস দুয়েকের মধ্যেই আমার খামারে গাভিগুলো থেকে ২০টি বাছুর জন্ম নেবে। তখন দুধ উৎপাদন আরও বাড়বে। এ ছাড়া বাছুরগুলোকে লালনপালন করে আবার কোরবানি ঈদের জন্য উপযোগী করে তোলা হবে। লাভের টাকা দিয়ে আগামী ২-৩ বছরের মধ্যে খামারে গরুর সংখ্যা ৫০০তে নিয়ে যাব।’ 

default-image

এস এস পোলট্রি অ্যান্ড ডেইরি ফার্মের বড় অংশজুড়ে সোনালিকা জাতের মুরগি লালনপালন করা হয়। মাস কয়েক আগে ১০ হাজার মুরগি বড় করে বিক্রি করেছেন লাকি। লাকি বললেন, ‘এসএসসি পাস করার পর বিয়ে হয়ে যায়। তখন থেকে সংসার সামাল দিয়ে আসছি। তবে সব সময় আমার ইচ্ছা ছিল নিজে কিছু করব, নিজেই উদ্যোক্তা হব। এখন আমি উদ্যোক্তা। আসলে ইচ্ছেটাই আসল।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0