default-image

নানা নাটকীয়তা আর সমালোচনার অবসান ঘটিয়ে এক ঐতিহাসিক চুক্তি বাস্তবায়ন করতে চলেছে গুগল। এখন থেকে অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যমকে বার্ষিক মুনাফার অংশ দেবে এ টেক জায়ান্ট। যদিও বলা চলে, গুগল মুনাফার অংশ দিতে বাধ্য হচ্ছে। দেশটির সরকারঘোষিত নতুন নীতিমালা অনুযায়ী এ অর্থ প্রদানে রাজি হয়েছে গুগল। গত বুধবার দেশটিতে নতুন এই নীতিমালাকে আইন হিসেবে পাস করানোর আগে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির অর্থমন্ত্রী জশ ফ্রাইডেনবার্গ এ ঘোষণা দেন।
নতুন নীতিমালা অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যম নাইন এন্টারটেইনমেন্টকে আগামী পাঁচ বছর বার্ষিক প্রায় সাড়ে তিন কোটি অস্ট্রেলীয় ডলার দিতে রাজি হয়েছে গুগল। চুক্তির বিপরীতে গণমাধ্যমটির আসল নিউজ কনটেন্ট ব্যবহার করতে পারবে গুগল। নাইন এন্টারটেইনমেন্ট গণমাধ্যমটির অধীনে দেশটির অন্যতম সংবাদমাধ্যম দ্য সিডনি মর্নিং হেরাল্ড ও দ্য এইজের মতো পত্রিকা রয়েছে। বহু মাস ধরেই বিষয়টি নিয়ে সরকার ও গুগলপক্ষের মধ্যে নানা বিরোধ চলে আসছিল। তবে এটি একটি ঐতিহাসিক ঘটনা বলে উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী জশ ফ্রাইডেনবার্গ। তিনি বলেন, কোনো টেক জায়ান্টের আসল সংবাদ পেতে অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যমের সঙ্গে চুক্তিতে আসার এটাই প্রথম বিশ্ব নজির।

গত জুলাইয়ে হঠাৎই অস্ট্রেলিয়ার ফেডারেল সরকার ঘোষণা দেয়, দেশটির সংবাদ প্রকাশ করার জন্য সে দেশের গণমাধ্যমকে অর্থ দিতে হবে ফেসবুক ও গুগলের মতো প্রতিষ্ঠানকে। তখন দেশটির অস্ট্রেলিয়ান প্রতিযোগিতা এবং গ্রাহক কমিশন (এসিসিসি) কর্তৃক প্রকাশিত এক খসড়ায় বলা হয়েছিল, গণমাধ্যমের নিজস্বতা ও স্বাধীনতা রক্ষায় ফেসবুক ও গুগলের মতো টেক জায়ান্টদের রাজস্বের ভাগ দিতে হবে অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যমকে। এই ঘোষণা আসার পরপরই ক্ষোভ প্রকাশ করে ফেসবুক।

বিজ্ঞাপন

গত জানুয়ারিতে গুগল অস্ট্রেলিয়ার প্রধান মেলানিয়া সিলভা এক ভিডিও বার্তায় সরকারের নীতিমালাটি ব্যাখ্যা করেন। তিনি বলেন, ‘ধরুন, কেউ আপনার কাছে স্থানীয় কফির দোকানের ঠিকানা জানতে চাইলে আপনি তাঁকে রাস্তা দেখিয়ে দিলেন। মাস শেষে কফির দোকান থেকে আপনার কাছে রাস্তা দেখিয়ে দেওয়ার বিল পাঠানো হলো। কেউ সংবাদ গুগলে খুঁজলে গুগল শুধু সংবাদের ঠিকানা দেয়, আর সে জন্য গুগলের কাছে ভাগ চাওয়া সমীচীন নয়।’ এরপর পানি ঘোলা আর হয়েছে। অর্থ দিতে বাধ্য করা হলে অস্ট্রেলিয়া থেকে গুগল তাদের সার্চ ইঞ্জিন সরিয়ে নেবে—এমন কথাও বলা হয়।
তবে অস্ট্রেলিয়ার চলমান নানা জাতীয় সংকটের মধ্যে গুগলের সঙ্গে সুরাহা হওয়াকে বড় সমস্যার সমাধান বলে মনে করছেন দেশটির অনেক মানুষ। মহামারি, চীনের সঙ্গে বিরোধসহ নানা জটিলতার মধ্যে এটি একটি সুসংবাদ বলে মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দারা।

দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন