default-image

কোভিডের কারণে তারাবিহর নামাজের ক্ষেত্রে প্রদেশগুলো তাদের প্রভিন্সিয়াল সরকারের কোভিড গাইডলাইন অনুসরণ করছে। তবে অধিকাংশ মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তারাবিহর নামাজ পড়া হবে। কোভিডের আগে কানাডাতে বড় বড় মসজিদে মধ্যপ্রাচের বিভিন্ন দেশ থেকে কারি-হাফেজরা আসতেন, কিন্তু এ বছর আর তারা আসতে পারেননি।

বিজ্ঞাপন
default-image

কানাডার মুসলমানদের মসজিদে ইফতার পার্টি একটি জনপ্রিয় উৎসব ছিল। মুসলমানদের সঙ্গে বিভিন্ন ধর্মের লোকজন এ উৎসবে অংশ নিতেন। এ বছর ইফতারের এমন আয়োজন হচ্ছে না। তবে অনেক বড় বড় মসজিদে ‘ড্রাইভ থ্রু’তে ইফতার বিতরণ করা হবে। অর্থাৎ ইফতারের আগে যাঁরা আসবেন, তাঁরা গাড়িতে করে ইফতার নিয়ে চলে যাবেন। বেশ কিছু মসজিদে আলোকসজ্জা করতে দেখা গেছে।

default-image

কানাডার মুসলিম মালিকানাধীন রেস্তোরাঁগুলো রমজানের সময় সেহেরি পর্যন্ত জমজমাট থাকত আগের বছরগুলোতে। বিশেষ করে বাংলাদেশিসহ মুসলিম ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীরা সেহেরির সময় ভিড় করত এসব রেস্তোরাঁয়। সরকারি আদেশে কানাডার সব প্রায় রেস্তোরাঁয় বসে খাওয়া নিষিদ্ধ বা সীমিত আকারে করা হয়েছে। তবে ‘টেক আউট’ খোলা, অর্থাৎ মানুষ অর্ডার দিয়ে খাবার এখান থেকে নিয়ে যেতে পারবেন। ফলে এবার কেউ উৎসবমুখর পরিবেশে সেহেরি করতে পারবেন না।

বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন