জেনেভায় 'শিং ওয়ালা খুনি' পোকা

বিজ্ঞাপন
default-image

বিশ্বের বৃহত্তম শৃঙ্গাকার প্রজাতির একটি পোকা সুইজারল্যান্ডের জেনেভা শহরে পাওয়া গেছে। জেনেভা পুলিশ, পশু-প্রাণী ও খাদ্য পরিদপ্তর এ নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছে। এ নিয়ে এটি দেশে তৃতীয়বারের মতো চিহ্নিত করা হলো।

বিশেষজ্ঞরা জেনেভায় প্রথমবারের মতো এই পোকা আনুষ্ঠানিকভাবে শনাক্ত করেছেন। এটি সুইজারল্যান্ডের এই আক্রমণাত্মক বিদেশি পোকার তৃতীয় পর্যবেক্ষণ, যা মৌমাছির জন্য হুমকির কারণ। প্রাপ্তবয়স্ক এই ধরনের পোকা মধুচক্রকে আক্রমণ করে। এ ছাড়া বিভিন্ন আবাদি ফসল এবং ফলমূলের ক্ষতি করে। সুইজারল্যান্ডে এখনো এই অনাকাঙ্ক্ষিত প্রজাতির পোকার ধরন, উৎস ইত্যাদি সম্পর্কে নিশ্চিত হননি বিশেষজ্ঞরা।

স্থানীয় এক বাসিন্দার হাতে ধরা পড়া প্রায় ২ ইঞ্চি (৫ সেন্টিমিটার) এই শৃঙ্গাকার পোকা সম্ভবত অন্য কোনো দেশ থেকে এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ মনে করছে, এটি আমদানি করা ফলের চালানের মাধ্যমে সুইজারল্যান্ডে প্রবেশ করে থাকতে পারে।

এশিয়ান জায়ান্ট হর্নেট পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে সচরাচর দেখা যায়। এটি ২০০৪ সালে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় ফ্রান্সে প্রথমবার আবিষ্কৃত হওয়ার পর থেকে ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ে। তখন থেকেই ফ্রান্সের বেশির ভাগ অংশে এটির উপস্থিতি অনুভূত হয়েছে। পোকার উপস্থিতি শনাক্ত করতে জেনেভা কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েক বছর আগে একটি সতর্কতা ব্যবস্থা তৈরি করেছিল। তখন সুইস বাসিন্দাদের এ ধরনের পোকা দেখলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের নজরে আনার কথা বলা হয়।

কয়েক দিন ধরে জেনেভা খাদ্য পরিদপ্তর স্থানীয় পুলিশের সহযোগিতায়, এশিয়া, আফ্রিকা এবং সাউথ আমেরিকার বিভিন্ন মুদি দোকানে তল্লাশি চালাচ্ছেন।

এই বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ওয়াশিংটন স্টেটে দুটি এশিয়ান জায়ান্ট হরনেটের আবিষ্কৃত হওয়ার পর সেখানে বেশ সাড়া ফেলে। পোকাগুলোকে ‘শিংওয়ালা খুনি’ পোকা নাম দেওয়া হয়। এই ধরনের পোকা হুল ফোড়ানোর পর প্রচণ্ড ব্যথা হতে পারে এবং মাঝেমধ্যে মৃত্যুও ডেকে আনতে পারে। গবেষকেরা জানিয়েছেন জাপানে, যেখানে সাধারণত এই পোকা সচরাচর দেখা যায়, সেখানে প্রতিবছর প্রায় ৩০ থেকে ৫০ জন মানুষ মারা যায় এই পোকার আক্রমণে। তাদের দংশনের বিষাক্ততা বেশ মারাত্মক।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন আলপাইন মধু, আপেল এবং আংগুরসহ বিভিন্ন আবাদ নষ্ট হবে এই পোকাকে এখনই প্রতিরোধ করতে না পরলে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন