default-image

গত মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) টোকিওর বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে জাপান-বাংলাদেশের শতাধিক আইটি ব্যবসায়ীর অংশগ্রহণে একটি অনলাইন সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেমিনারে বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন এবং বিটুবি বৈঠক উদ্বোধন করেন। সেমিনার চলবে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারির এই সময়ে অনলাইনে দুই সপ্তাহের এই বিটুবি মিটিং দুই দেশের আইটি ব্যবসায়ীদের আলোচনা ও ব্যবসা সম্প্রসারণের অন্যতম সুযোগ। তিনি বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সম্ভাবনা ও সুযোগ–সুবিধাগুলো সবার কাছে তুলে ধরেন। তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ যেমন হাইটেক পার্ক, কর সুবিধা, ওয়ান স্টপ সার্ভিস ইত্যাদি বর্ণনা করেন এবং বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগের যৌক্তিকতাও তুলে ধরেন। প্রতিমন্ত্রী জাপানি ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে আরও বেশি বিনিয়োগের এবং বাংলাদেশ থেকে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ জনবল নিয়োগের আহ্বান জানান।    

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদ। সব অংশগ্রহণকারীকে স্বাগত ও শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের সঙ্গে জাপানের নাম ওতপ্রোতভাবে জড়িত এবং দুদেশের বন্ধুত্ব অত্যন্ত গভীর। বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের দ্রুত প্রবৃদ্ধির কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত জাপানি আইটি ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগে আহ্বান জানান।

বিজ্ঞাপন

অনলাইন আলোচনায় আরও বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব জাফর উদ্দিন, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত নাওকি ইতো, জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো–অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) বাংলাদেশের প্রধান প্রতিনিধি ইউহো হায়াকাওয়া, জাপান এক্সটারনাল ট্রেড অর্গানাইজেশনের (জেট্রো) বাংলাদেশ প্রতিনিধি ইউজি আন্দো, জাপান ইনফরমেশন টেকনোলোজি সার্ভিস ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশনের (জিসা) কো-চেয়ারম্যান মাসাইউকি ওসুকা, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) প্রেসিডেন্ট সৈয়দ আলমাস কবির এবং ফুজিতসু রিসার্চ ইনস্টিটিউটের জেনারেল ম্যানেজার তাকেশি ইমামুরা।

তাঁরা বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের প্রেক্ষাপট ও গতিধারা তুলে ধরেন এবং জাপানি বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এ ছাড়া বেসিসের পরিচালক রাশাদ কবির বাংলাদশের তথ্যপ্রযুক্তি খাত নিয়ে উপস্থাপনা করেন এবং বেসিসের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ফারহানা রহমান সবাইকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাত নিয়ে একটি ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সেলর ড. আরিফুল হক। সেমিনারটি যৌথভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশ দূতাবাস টোকিও, বেসিস ও ফুজিতসু রিসার্চ ইনস্টিটিউট এবং সহযোগিতা করে আইসিটি বিভাগ ঢাকা, জেট্রো এবং ইউনিপিডো-আইপিটিও, টোকিও। বিজ্ঞপ্তি

বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন