default-image

বিদ্রোহী কবিতা আবৃত্তি করেন বিশিষ্ট বাচিকশিল্পী আকাশ দত্ত। ছায়ানটের পক্ষে সোমঋতা মল্লিক, তন্ময় মুখোপাধ্যায়, কাকলী সেন, ইন্দ্রাণী লাহিড়ী, রীনা রায়, সুরূপা মল্লিক সংগীত পরিবেশন ও কবিতা আবৃত্তি করেন। ছায়ানটের পক্ষ থেকে গ্রেস কটেজ তথা সুজন বাসর কর্মকর্তাদের হাতে সোমঋতা মল্লিক নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু ও কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতিতে একটি ক্যালেন্ডার এবং একটি স্মারক উপহার দেন। সেই সঙ্গে কলকাতায় নজরুল স্মৃতিবিজড়িত ১২টি ভবনের বর্তমান ছবি দিয়ে তৈরি পোস্টকার্ডের সেট তুলে দেন।

সুজন বাসরের পক্ষে তপন কুমার বিশ্বাস, শঙ্খশুভ্র সরকার, বীথিকা মল্লিক, সুকৃতি ঘোষ প্রমুখ সংগীত পরিবেশন ও কবিতা আবৃত্তির মধ্য দিয়ে কবির প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। রতন কুমার ঘোষ তাঁর ভালো লাগার অনুভূতি প্রকাশের সঙ্গে উল্লেখ করেন যে কৃষ্ণনগর শহরের অনেক শিক্ষিত মানুষকে গ্রেস কটেজ কোথায়, জিজ্ঞাসা করলে বলতে পারছেন না। সুতরাং, এর একটা উপযুক্ত প্রচার হওয়া দরকার।

নদীয়াতে নজরুল প্রসঙ্গে আলোচনা করেন গবেষক দেবনারায়ণ মোদক। নজরুল জীবনীকারদের লেখায় কৃষ্ণনগর পর্বের আলোচনা যথেষ্ট কম এবং এ বিষয়ে আরও অনুসন্ধানের প্রয়োজনীয়তা আছে বলে তিনি মনে করেন। নদী গবেষক সুপ্রতিম কর্মকার অঞ্জনা নদীসহ নজরুল–সাহিত্যে যেসব নদীর উল্লেখ আছে, সে বিষয়ে একটা পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ হওয়া দরকার বলে উল্লেখ করেন। অনুষ্ঠানে পৌরোহিত্য করেন সুজন বাসর সংস্থার সভাপতি দীপংকর দাস। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সম্পাদক ইনাস উদ্দীন।

দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন