default-image

ইউরোপের মধ্যে পর্যটকদের আকর্ষণীয় একটি দেশ পর্তুগাল, অনেকটাই পর্যটকনির্ভরশীল দেশও বলা যেতে পারে। পর্তুগাল এমন একটি বৈচিত্রময় দেশ, যেখানে ভ্রমণ করলে সবকিছুর সংমিশ্রণ পাওয়া যায়, এখানে আছে পাহাড়, নদী, সাগর, দ্বীপ, আগ্নেয়গিরি, গুহা, আছে বরফের শহর Serra da Estrella, গ্রীষ্মকালে প্রখর রোদের তাপমাত্রা। সবচেয়ে বড় বিষয়টি হলো পর্তুগাল একটি শান্তির দেশ। অর্থনৈতিক দিক দিয়ে ইউরোপের অন্যান্য দেশ থেকে দুর্বল হওয়ায়, এখানে জীবনযাত্রার মান তেমন সুবিধা না হলেও, সহজ শর্তে বৈধতা লাভের জন্য ইউরোপের একটি সেরা দেশই বলা যেতে পারে।

বৈচিত্রতায় গড়া প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর পর্তুগাল, তার মধ্যে পর্তুগালের দ্বীপগুলো অন্যতম।

মাদাইরা: মাদাইরার ডাক নাম বাগান দ্বীপ এবং আটলান্টিকের শিশির জলের বিন্দু। পঞ্চদশ শতাব্দীতে মাদাইরা পর্তুগালের কলোনি হিসেবে যুক্ত হয়। শহরটি স্থানীয় ওয়াইনের জন্য খুব দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। এ শহরের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে পঞ্চদশ শতাব্দীর কাঠের গির্জা, ওয়াইনের পার্ক, রঙিন ফুলের বাগান, আকর্ষণীয় নির্জন বন, উঁচু উঁচু পাহাড়, নুড়িপাথর বিছানো সৈকত এবং নীল সাগর। তা ছাড়া বর্তমান ফুটবল দুনিয়ার বিশ্বসেরা ফুটবলার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জাদুঘর এবং জন্মস্থানকে ঘিরেও পর্যটকেরা ভিড় করেন এ শহরে।

বিজ্ঞাপন
default-image

আজোর্স দ্বীপ: পর্তুগালের সবচেয়ে বড় দ্বীপ টি আজোর্স। কয়েকটা ছোট ছোট দ্বীপ নিয়ে দ্বীপটি গঠিত। ফ্লোরস দ্বীপ, তেরসেইরা দ্বীপ, সাও মৃগেল দ্বীপ, পর্তু সান্তো দ্বীপ, সাও জর্জ দ্বীপ, ফায়াল দ্বীপ, পিকো দ্বীপ। আজোর্স ভ্রমণের জন্য এক প্রাকৃতিক নৈস্বর্গিক জায়গা, যেখানে যাওয়ার একমাত্র মাধ্যম বিমান ও জাহাজ। এখানে আছে হলুদ উঁচু পাহাড়ের চূড়ার দ্বীপ, প্রায়া দ্য ভিটুরিয়া, সমুদ্রসৈকত, ফিশিং গ্রাম, ভিনু দ্য ভের্দ, আগ্নেয়গিরি, ডলফিন ও তিমি মাছ দেখার জন্য নির্দিষ্ট দ্বীপ, হাইকিং, গুহা, দুধ, পনির, কলম্বাসের সাবেক বাড়ি, টাউন হল এবং প্রাসাদ, পঞ্চদশ শতাব্দীর ম্যাট্রিক চার্চ, হোর্তার সৈকত, ব্লু দ্বীপ, মেরিনা জাহাজ, এখানে আরও আছে পর্তুগালের সবচেয়ে উঁচু দ্বীপ পিকো, চূড়ায় উঠতে দুই ঘণ্টা সময় লাগে, এটির চূড়া থেকে অন্যান্য দ্বীপও খুব সহজে অবলোকন করা যায়, তা ছাড়া সূর্যাস্ত দেখার দুর্দান্ত একটি স্থান।

default-image

ইলাহা তাবিরা: পর্তুগালের দক্ষিণ উপকূলের মাত্র কয়েক শ মিটার দূরে তাবিরা শহরটির নামকরণ করা হয়েছে ইলাহা দি তাবিরা। যাওয়ার একমাত্র মাধ্যম নৌকা ও ফেরি। গ্রীষ্মকালে এ দ্বীপে জনমানুষে ভরপুর থাকে। দ্বীপটি বিখ্যাত গরমের দিনে সাঁতার কাটার জন্য, তা ছাড়া এটা এক নির্জন বালির সৈকত, যেখানে জনসমাগম কম হয়।

ছেরা দ্য এস্ত্রেলা: পর্তুগালের একমাত্র শহর, যেখানে ঠান্ডার মৌসুমে বরফের চাদরে ঢাকা থাকে। শহরটি সমুদ্রপৃষ্ট থেকে প্রায় ৬ হাজার ৫৩৯ ফুট উঁচু হওয়ায়, এটিই একমাত্র শহর যেখানে পর্তুগিজ ও পর্যটকেরা বরফের স্বাদ গ্রহণ করে। সুউচ্চ পাহাড়ের চূড়াটির নাম টরি। প্রায় ৬০ মাইল দীর্ঘ এবং ১৯ মাইল প্রস্থ শহরটিতে সিয়া, মন্টেগাস, গৌভিয়া, গার্ডা এবং কোভিলি পৌরসভাগুলো নিয়ে গঠিত।
*লেখক: মনির হোসেন, লিসবন, পর্তুগাল

বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন