বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১১ হাজার ৩৬২ বর্গমিটার আয়তনের পার্কটিতে ২৫ মিটার উঁচু কৃত্রিম একটি জলপ্রপাতও রয়েছে। খেলাধুলার সুযোগ–সুবিধা থাকায় স্থানীয় বাসিন্দাসহ পর্যটকেরা বিকেলে সন্তানদের নিয়ে সেখানে যান।

default-image

৩২টি শেডযুক্ত বসার আসন ও একটি বহিরঙ্গন থিয়েটার রয়েছে, যেখানে শতাধিক মানুষ পাশাপাশি বারবিকিউের আয়োজন করে সন্ধ্যা ও রাতে।

২০২০ সালের অক্টোবরে খোর ফাক্কান সুপ্রিম কাউন্সিলের সদস্য ও শারজাহর নিয়ামক এইচ এইচ শেখ সুলতান বিন মুহাম্মদ আল কাশিমি এ পার্কের উদ্বোধন করেন। আট মাসের মধ্যে এ পার্কের নির্মাণকাজ শেষ হয়েছিল।

default-image

পার্কটিতে প্রায় ৫০০ মিটার দীর্ঘ বেশ কয়েকটি রাস্তা তৈরি করা হয়েছে পাথর দিয়ে এবং তা ঘিরে রয়েছে তালগাছ ও স্থানীয় গাছপালা, যা পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। দূর থেকে আসা পর্যটকদের সুবিধার জন্য পার্ক এরিয়ায় আড়াই শতাধিক গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে।

শিস পার্কের আঁকাবাঁকা পাহাড়ি পথ বেয়ে যখন আপনি এগিয়ে যাবেন, মনে হবে, পাথরের পাহাড়ে আছেন আপনি। পুরো এলাকা যেন এক পাথরের পাহাড়ের রাজ্য।
সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রায় দেড় শতাংশ ভূভাগজুড়ে হাজারো পর্বতশ্রেণির পাদদেশে এ অঙ্গরাজ্যের অবস্থান, যার আয়তন ৪৫০ বর্গমাইল।

default-image

একসময় এই ভূভাগ ছিল প্রতিবেশী সালতানাত অব ওমানের অংশ। মূলত আবুধাবির ফেডারেল সরকারের অর্থে রাজ্যটির উন্নয়ন বাজেট চললেও ফুজিইরাহ মুক্তবাণিজ্যের এলাকা। যেখানে পাথর ভাঙার কারখানা, সিমেন্ট, খনিজ সম্পদ আহরণ, পর্যটন, নির্মাণশিল্প ও কৃষি অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রাখছে।

দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন