default-image

মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রবাসী সরকারের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন জাতীয় চার নেতা। তাঁদের হাত ধরেই স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও সরকারের পথচলা শুরু। এই চার নেতা দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের রাজনীতিও করেছেন। দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতেই জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়েছিল।

জাতীয় চার নেতাকে স্মরণ করে ফিনল্যান্ডের হেলসিংকি শহরের একটি রেস্তোরাঁতে জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে ৩ নভেম্বর এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন আলোচকেরা। স্থানীয় সময় রাত ১০টার দিকে এই সভার আয়োজন করে ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগ।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতাকে স্মরণ করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। আলোচকেরা বলেন, স্বাধীনতাযুদ্ধে দেশ ও সরকার গঠনে জাতীয় চার নেতার ভূমিকা অবিস্মরণীয়। চার নেতাকে হত্যা বাংলাদেশের জন্য এক কলঙ্কজনক অধ্যায়।

ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সালেহ আহমেদ আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নির্মম হত্যার শিকার হন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহচর ও জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামান।

default-image

সপরিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করে।

আলোচনায় আরও বক্তব্য দেন ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের নেতা নাজিব মোর্শেদ, মুজিবুর রহমান, মহিবুল ইসলাম, ইমাম হোসেন, মাহফুজ আলম প্রমুখ। আরও উপস্থিত ছিলেন ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের নেতা বাদল হোসেন, মহি খান, স্বাধীন আহমেদ প্রমুখ। আলোচনা শেষে জেলহত্যা দিবসে নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে একটি দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0