মাহবুবুর রহমান (ছদ্মনাম), একটি স্বনামধন্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে বিক্রয় ও বিপণন বিভাগের প্রধান হিসেবে কর্মরত আছেন প্রায় পাঁচ বছর ধরে। লকডাউনের শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠানটির ব্যবসা অস্বাভাবিক হারে কমে যাওয়ায় সেই মার্চ থেকে বেতনের অর্ধেক পেয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছিল উচ্চপদস্থ তাঁদের কজনকে; তাতেও শেষরক্ষাটি হলো না, জুলাই থেকে সেই অর্ধেক বেতনের নিশ্চয়তাটাও এখন হারালেন তিনি। বাসায় তাঁর স্ত্রী এবং বৃদ্ধ বাবা, মা—তিনজনেরই কোভিড পজিটিভ। সব মিলিয়ে অনাগত নানা শঙ্কায় বরাবরই স্বাচ্ছন্দ্যে থাকা উচ্চমধ্যবিত্ত এই পরিবারটি পুরোই এখন দিশেহারা।

অন্যদিকে সরকারি কর্মচারীদের চার মাসের আর্থিক সংকটে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য অর্থমন্ত্রী কৃতিত্বের দাবিদার। যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা থাকুক আর না–ই থাকুক, তিনি ১৪ লাখ সরকারি কর্মচারী (এক মাসের বেতন ও সুবিধা বাবদ ৫ হাজার ১২৫ কোটি টাকা) এবং সাড়ে ৬ লাখ পেনশনভোগীর (এক মাসে ১ হাজার ৯১৭ কোটি টাকা) আর্থিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পেরেছেন। এমনকি সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর জন্য পদ অনুযায়ী ৫০ লাখ টাকা এবং সংক্রমিত হলে ১০ লাখ টাকা প্রণোদনার ঘোষণাও এসেছে সরকারের পক্ষ থেকে।

সুরক্ষিত এবং অরক্ষিত, এক অদৃশ্য রেখা যেন মানুষকে দুই ভাগ করে ফেলেছে। একদল মানুষকে সরকার নিরাপত্তার চাদরে আগলে রাখলেও অপর দলকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে অরক্ষিতভাবে। সুবিধাপ্রাপ্ত দলটি সরকারি কর্মচারীরা এবং অরক্ষিত দলটি বেসরকারি কর্মজীবীরা। বিভাজনের এই রেখা সব সময়ই ছিল। চলমান মহামারিতে সেটি বিব্রতকরভাবে আরও স্পষ্ট হয়ে প্রকাশ পেয়েছে।

এই মহামারির ধাক্কায় বদলে যাচ্ছে অর্থনীতি। বদলে যাবে ব্যবসা ও কাজের সুযোগ। ব্যবসাগুলো কীভাবে পুনরায় চালু হবে এবং এই ক্ষয়ক্ষতি থেকে পুনরুদ্ধার পাবে, তা বিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন। তাই অন্তত আরও এক বা দুই বছরের জন্য বোনাস কাটা, বেতন কাটা, সুবিধা কাটা এবং চাকরিচ্যুত করা বাংলাদেশে সাধারণ বিষয়ে পরিণত হবে।

default-image

তবে এই উদ্বেগ ও অনিশ্চয়তাগুলো শুধু বেসরকারি খাতে কাজ করা ৭৫ লাখ মানুষের জন্য।
দেশের ২২ লাখ ব্যক্তিগত করদাতার মধ্যে বেসরকারি চাকরিজীবী ৮৬ শতাংশ। এই বিপদের সময়ে সরকারি কোষাগারে অর্থের জোগানদাতা এই বিপুলসংখ্যক কর প্রদানকারী অর্থমন্ত্রীর বিবেচনার বাইরে থেকে গেছেন। তাঁদের প্রতি বাড়তি নজর দেওয়া অবশ্যই প্রত্যাশিত ছিল। কিন্তু তা করা হয়নি।

শুধু সরকারি কর্মচারীদের আর্থিক সুরক্ষা দেওয়া কতটা যৌক্তিক সিদ্ধান্ত? যাঁদের মধ্যে মাত্র তিন লাখ করদাতা? ১৯ লাখ করদাতা যাঁরা বেসরকারি চাকরিজীবী বা ব্যবসায়ী, তাঁদের প্রতি সরকার কেন এতটা উদাসীনতা দেখাবে? তাঁরা কর দেবেন, তাঁরাই চাকরি হারাবেন? তাঁদেরই বেতন কাটা হবে বা তাঁরাই ব্যবসা হারাবেন?

বৈশ্বিক অর্থনীতির বেহাল অবস্থার এ সময়টাতে গত বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা করে মাননীয় অর্থমন্ত্রী যথেষ্ট সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। একাত্তরের স্বাধীনতা–পরবর্তী আমাদের প্রজন্মের দেখা ইতিহাসে আর কোনো অর্থমন্ত্রী এমন মাত্রার সংকটের মুখোমুখি হননি। ধনী থেকে গরিব; আরও ভেঙে বলতে গেলে, অজপাড়াগাঁয়ের প্রান্তিক খামারি থেকে শুরু করে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপতি—সবাই চাতক পাখির মতো এখন তাকিয়ে আছেন সরকারের প্রণোদনা আর সাহায্যের আশায়। কী একটা পরিস্থিতি! ফলে সরকারকে হাত বাড়াতে হচ্ছে বিদেশি ঋণদাতা, কেন্দ্রীয় ব্যাংক (টাকা ছাপার মাধ্যমে) এবং কালোটাকাওয়ালাদের কাছে।

যাহোক, দক্ষ দু–একজন অর্থনীতিবিদের বাজেট–পরবর্তী সুগভীর পর্যালোচনায় উঠে এসেছে, অতি উচ্চাকাঙ্ক্ষী ৮ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির বিশাল আয়তনের এই বাজেট তার লক্ষ্য পূরণ করতে তখনই সফল হবে, যদি শক্তিশালী করোনাভাইরাস অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যে দুর্বল হয়ে হাওয়ায় মিলিয়ে যায়। একই সঙ্গে আরও কিছু ঘটনা দ্রুত ঘটতে হবে। বিশ্বমন্দা দ্রুত কেটে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোতে বাংলাদেশের পোশাকের চাহিদা বাড়বে, প্রবাসী শ্রমিকদের ফিরিয়ে নেবে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো, দেশের মধ্যে সাধারণ মানুষের হাতে নগদ অর্থ থাকবে, বাড়বে চাহিদা, কেউ চাকরি হারাবেন না, কারও বেতনও কমবে না। সবচেয়ে বড় যে ঘটনা ঘটতে হবে তা হলো, বেসরকারি খাতের বিনিয়োগ জিডিপির ১২ দশমিক ৭ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২৫ দশমিক ৩ শতাংশ হতে হবে। অথচ বেসরকারি বিনিয়োগ জিডিপির ১ শতাংশ বাড়াতে ৫ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে। আর করোনাভাইরাস বেসরকারি খাতনির্ভর অর্থনীতির কতটা ক্ষতি করেছে, তার প্রমাণ হচ্ছে বেসরকারি বিনিয়োগ এক অর্থবছরেই জিডিপির ২৪ দশমিক ২ শতাংশ থেকে কমে ১২ দশমিক ৭ শতাংশ হয়ে গেছে।

জীবন বাঁচানো, জীবিকা বাঁচানো যেখানে এখন মুখ্য; সে অবস্থায় বাজেটের জিডিপি আর প্রবৃদ্ধি নিয়ে মাথা ঘামানোর মতো অবস্থায় সাধারণ মানুষ এবার অন্তত নেই, আর তাদের প্রত্যাশার জায়গাটিও কতটুকু পূরণ হয়েছে; তার উত্তর হয়তো সময়ের হাতেই ছেড়ে দিতে হবে।

কিন্তু উদ্বেগজনকভাবেই বলতে হয়, অনেকটা কাল্পনিক এই বাজেটের কোথাও চাকরির সুরক্ষা দেওয়া বা কর্মসংস্থানের বিষয়ে কোনো স্পষ্ট রূপরেখা দেখা যায়নি। কেন এই করদাতারা সরকারের কাছ থেকে মহামারিকালীন কোনো সুবিধা, তাঁদের সংকটে কোনো সুরক্ষা পাবেন না? সংকটে সুরক্ষাই যদি না পান, তাহলে আজীবন ধরে কর কেন দিয়ে এলেন?

তারপরেও অর্থ ব্যয় নয়, দুর্নীতিকে ঊর্ধ্বে রেখে ব্যয় করা অর্থ কতটা কাজে লাগানো গেল, সেটাই হয়ে উঠুক এই বাজেট বাস্তবায়নের পূর্বশর্ত; যার ফলে নতুন একটি সম্ভাবনার স্বপ্নে, তার আশার আলোকবিন্দুটা এখনই অন্তত দেখতে পাক সাধারণ জনগণ।

ক্রান্তিকালীন এই যাত্রায়, সেটাও হবে অনেক বড় একটি পাওয়া।

 * চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট। [email protected]

বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন