default-image

ব্যাংককের চাওপ্রায়া নদীর তীরে অবস্থিত দ্য আর্ট অ্যান্ড অ্যান্টিকস গ্যালারি। থাইল্যান্ডের শিল্প–সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত এই ‌গ্যালারিতে বিশ্বের অনেক নামীদামি চিত্রশিল্পীর প্রদর্শনী হয়। এককালের শ্যামদেশের নামজাদা এই গ্যালারিতে এখন প্রদর্শিত হচ্ছে বাংলাদেশি চিত্রশিল্পী রনি আহমেদের আঁকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি অসাধারণ চিত্রকর্ম। ১৮ মার্চ থেকে এখানে প্রদর্শিত হচ্ছে এই চিত্রকর্ম। প্রদর্শনীর দর্শক হিসেবে, থাই সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরাও। গর্ব আর কৌতূহল নিয়ে তাঁরা দেখছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ব্যতিক্রমী এই মুখচ্ছবি।

কর্মসূত্রে ব্যাংককে আছি দীর্ঘদিন। বাংলাদেশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠান হচ্ছে জানি। তবে, থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের প্রাণকেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এ ধরনের আয়োজন বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরার এ আয়োজনের মূল উদ্যোক্তা মারমেইড ইকো ট্যুরিজম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুল হক চৌধুরী সোহাগ। আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি, এই উদ্যোগের একজন সহযোগী হিসেবে থাকতে পেরে। বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। দলমতের ঊর্ধ্বে তাঁর অবস্থান। আমাদের মহান নেতা ভালোবাসা দিয়ে সবকিছু জয় করতে চেয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসার বার্তা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দিতেই এই উদ্যোগ।

default-image
বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন