default-image

অন্য সব ক্রিকেটপ্রেমীর মতো ব্রিসবেনপ্রবাসী বাংলাদেশিরাও ভুগছেন ক্রিকেট জ্বরে। এই জ্বরের মাত্রা আরও বেড়ে গেছে বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের সঙ্গে বিশাল ব্যবধানে জয়ী হওয়াতে। ব্রিসবেনে বসবাসরত বাংলাদেশিরা পরবর্তী ম্যাচটি মাঠে গিয়ে দেখার জন্য মুখিয়ে ছিলেন ৷ কিন্তু বাদ সেধেছে সাইক্লোন মার্সিয়া। আফগানিস্তানের সঙ্গে খেলার সময় যেভাবে বাংলাদেশিরা টাইগারদের সমর্থন দিতে মানুকা ওভালে জড়ো হয়েছিলেন, ঠিক তেমনি গ্যাবাতে আরেকটি শো-ডাউনের অপেক্ষায় ছিলেন ব্রিসবেনের বাংলাদেশিরা।

এদিকে খেলার মাঠে গিয়ে টাইগারদের উৎসাহ দেওয়ার আগেই ব্রিসবেনবাসী টাইগারদের দিল এক জমকালো সংবর্ধনা। আর এটি সম্ভব হয়েছে ব্রিসবেনে বসবাসরত বাংলাদেশিদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ইন ব্রিসবেন (ব্যাব, BAB) এর কল্যাণে।
১৯ ফেব্রুয়ারি ব্যাব আয়োজিত এই সংবর্ধনায় যোগ দেন বাংলাদেশ দলের সব খেলোয়াড়, ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ, কোচিং স্টাফ, ক্রিকেট বোর্ডের বিভিন্ন কর্মকর্তাসহ প্রায় ৩০০ ব্রিসবেনপ্রবাসী বাংলাদেশি। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিসিবির প্রধান নাজমুল হাসান।

default-image

অনুষ্ঠানের শুরুতে তুমুল করতালি আর হর্ষধ্বনিতে টাইগারদের লাল গালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এর পরই মহান ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। টাইগারদের মঞ্চে আমন্ত্রণ জানান ব্যাবের প্রেসিডেন্ট এ কে এম শাহিনুজ্জামান। সূচনা বক্তব্যে তিনি ব্রিসবেনবাসীর পক্ষ থেকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে ব্রিসবেনে স্বাগত জানান এবং সেই সঙ্গে আফগানিস্তানের সঙ্গে বিপুল ব্যবধানে জয়ের জন্য আন্তরিক অভিনন্দন জানান। ক্যানবেরার মতো ব্রিসবেনেও দলকে সমর্থন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। এরপর বক্তব্য দেন প্রধান অতিথি নাজমুল হাসান। তিনি প্রথমে বাংলাদেশ সরকারের কিছু উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের বর্ণনা দিয়ে ক্রিকেটের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন। তিনি দলের বিভিন্ন ব্যক্তির অবদানের ওপর আলোকপাত করেন। একপর্যায়ে তিনি মুশফিককে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের রাহুল দ্রাবিড় বলে উল্লেখ করেন। এ ছাড়াও রুবেলের আফগানিস্তানের বিপক্ষে সেই অবিশ্বাস্য ক্যাচটির প্রশংসা করেন।
দলের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা। ক্রিকেট দলকে সমর্থন করার জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান এবং ভালো খেলার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। এ ছাড়াও বক্তব্য দেন দলের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ।

default-image

ব্রিসবেনবাসী ক্রিকেটারদের এত কাছ থেকে পেয়ে ছবি তোলার সুযোগ কোনোভাবেই হাতছাড়া করেননি। খেলোয়াড়েরাও সবার আবদার মিটিয়েছেন। এ জন্য আমরা খেলোয়াড়দের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।
সবই তো হলো, কিন্তু সংশয়, খেলা কি হবে? অনুষ্ঠান শেষে যখন ফিরছি তখনও মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী শনিবারও বৃষ্টির সম্ভাবনা শতভাগ! আমার মতো অনেকেই এই ম্যাচটির জন্য অপেক্ষায় গত একটি বছর। তাহলে কি বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১৫ -এর অংশ হতে পারব না? মাঠে না হলেও মাঠের বাইরে অংশ হতে পেরে আনন্দিত। ধন্যবাদ বিসিবি ও ক্রিকেটারদের আমাদের আমন্ত্রণে সাড়া দেওয়ার জন্য। সুন্দর একটি অনুষ্ঠানের জন্য ধন্যবাদ ব্রিসবেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনকে। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৫৷

(লেখক: গবেষণা সহকারী, সুগার রিসার্চ অস্ট্রেলিয়া এবং পিএইচডি অধ্যয়নরত ৷ ইউনিভার্সিটি অব কুইনসল্যান্ড, ব্রিসবেন, অস্ট্রেলিয়া)

বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন