বর্তমান মহামারি আমাদের অনেক বিষয়েই পরিবর্তন আনার ক্ষেত্রে নতুন করে পরিকল্পনা করার জন্য সুযোগ করে দিয়েছে। হয়তো-বা যা অনেক পরে সিদ্ধান্ত নেওয়া যেত, তা এখনই দ্রুততার সঙ্গে বাস্তবায়ন করতে হচ্ছে বা বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে।

আমরা জানি যে মহামারির কারণে অনলাইন লেনদেন বেড়ে গেছে এবং কাগুজে নোটের পরিবর্তে সব পর্যায়ে কার্ড ব্যবহৃত হচ্ছে এবং এ ক্ষেত্র ভিসা কার্ড, মাস্টার কার্ড, আলি পে, গুগল ই-পেমেন্ট ব্যবস্থাগুলো বাজারে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে এবং বেশির ভাগ লেনদেনই এর মাধ্যমে সম্পন্ন হচ্ছে।

সংগত কারণেই আগের অনেক পরিকল্পনা থাকা সত্ত্বেও ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) জোরালো যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বা ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংক তেমন কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

এমতাবস্থায় প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পেরে ইউরোপিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংক ২ জুলাই ইউরোপের ব্যাংকগুলোকে স্বাগত জানিয়েছে ২০২২ সালের মধ্যে একটি ইউনিফাইড ইউরোপিয়ান পেমেন্ট সিস্টেম চালু করার জন্য।

এই পেমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে অন্যান্য পেমেন্ট সিস্টেম যেমন ভিসা বা মাস্টার কার্ডের মতো একটি কার্ড, ডিজিটাল ওয়ালেট এবং মোবাইল পেমেন্টসহ প্রভৃতি সুবিধা সংবলিত একটি সেবা ইউরোপজুড়ে ব্যবহার করা যাবে।

ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানিয়েছে, বেসরকারি খাতে কেউ যদি এই রিটেল পেমেন্ট সিস্টেম তৈরিতে উদ্যোগ গ্রহণ করে, তাহলে তারা সহযোগিতা করবে। তবে এ জন্য পাঁচটি শর্ত রয়েছে, যেমন প্যান ইউরোপিয়ান এলাকা, গ্রাহক সহায়ক, ব্যয় দক্ষতা, নিরাপত্তা ও সুরক্ষা, ইউরোপিয়ান পরিচয় ও পরিচালনা এবং দীর্ঘ মেয়াদে বিশ্বব্যাপী পৌঁছানো।

ইউরোপিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংকের এক্সিকিউটিভ মেম্বার ফাবিও পেনেতা বলেছেন, ইউরোপিয়ান পেমেন্ট ইনিশিয়েটিভকে ইউরোপীয় রিটেইল/খুচরা পেমেন্টের বিভাজনকে মোকাবিলা করতে হবে এবং ইউরো অঞ্চলের সব দেশ ও শেষ পর্যন্ত পুরো ইউরোপিয়ানকে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

১০টি ইউরোপিয়ান দেশে এর আগে জাতীয় কার্ড স্কিমের আদলে একটি পেমেন্ট সিস্টেম চালু আছে, তবে তা ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্যান্য দেশে গ্রহণ করা হয় না। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে একক ইউরো পেমেন্ট এরিয়ার (SEPA) আওতায় প্যান ইউরোপীয় অবকাঠামো প্রবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে একটি নিরাপদ দক্ষ এবং ইন্টিগ্রেটেড ইউরোপীয় পেমেন্ট ব্যবস্থার দিকে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।


*সমাজকর্মী ও লেখক

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0