বিজ্ঞাপন

নতুন ব্যবসা–বাণিজ্য নীতির আওতায় সব ব্যবসা ও বিনিয়োগসংক্রান্ত তথ্যাদি আগামী ২৩ আগস্টের মধ্যে সৌদি সরকারকে অবহিত করে তাঁদের ব্যবসা নিবন্ধন করা বাধ্যতামূলক বলে ওয়েবিনারে জানানো হয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিবন্ধনে ব্যর্থ হলে Anti-Commercial Concealment আইনের আওতায় বিভিন্ন ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে অবহিত করা হয়। একই সঙ্গে নতুন এ নীতির আওতায় আট লাখ সৌদি রিয়াল সমপরিমাণ অর্থ এককালীন প্রদানের মাধ্যমে সৌদি আরবে নতুন ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী হিসেবে যেকোনো অভিবাসীর নিবন্ধনের সুযোগ গ্রহণ করার আহ্বান জানানো হয়। এ ছাড়া এক লাখ সৌদি রিয়াল প্রদানের মাধ্যমেও এক বছরের জন্য বিনিয়োগকারী হিসেবে নিবন্ধনের সুযোগ রয়েছে।

ভিশন–২০৩০–এর আওতায় শ্রমবাজারসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে বেশ কিছুদিন ধরেই পরিবর্তন আনছে সৌদি সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় সৌদি আরবের অভ্যন্তরে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বেশ কিছু পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে দেশটি। ওয়েবিনারে সৌদি কর্তৃপক্ষ আগামী ২৩ আগস্টের মধ্যে বাংলাদেশিসহ ভিনদেশি ব্যবসায়ীদের ব্যবসা-বাণিজ্য ও অন্যান্য বিনিয়োগের তথ্যাদি প্রদান করে নিবন্ধনের বাধ্যবাধকতার বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

বাণিজ্য উপমন্ত্রী আয়েদ আল-ঘোয়াইনাম সৌদি আরবে বসবাসরত সব বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের অব্যাহত সুযোগ–সুবিধা প্রদানের আশ্বাস এবং বাংলাদেশ থেকে নতুন বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীদের সৌদি আরবে আমন্ত্রণ জানান। সভায় আশা প্রকাশ করা হয় সৌদিতে বসবাসরত বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা নতুন এ সুযোগ গ্রহণ করে বৈধভাবে সৌদি আরবে ব্যবসা পরিচালনা করবেন।

ওয়েবিনারে সৌদি সরকারের পক্ষে Anti-Commercial Concealment–বিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রধান আহমাদ আল-সুয়াইলেম, বাণিজ্যবিষয়ক পূর্বাঞ্চলীয় ও জাতীয় কমিটির সভাপতি হানি আল-ফালেকসহ চেম্বারের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষে ইকোনমিক কাউন্সেলর মুর্তুজা জুলকার নাঈন নোমান ও অন্যান্য কর্মকর্তা অংশ নেন।

গত ৩০ জুন সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি আবদুল হাকিম আল খালদি এবং মহাসচিব আবদুল রহমান আল ওয়াবেলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। বৈঠকে ভিশন–২০৩০–এর আওতায় ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সৌদি সরকার কর্তৃক আনীত নতুন বাণিজ্যিক ও বিনিয়োগ নীতিমালা এবং Anti-Commercial Concealment আইন বিষয়ে আলোচনা হয়। রাষ্ট্রদূত এ সময় সৌদি আরবে বসবাস ও ব্যবসারত বাংলাদেশি অভিবাসীদের এ নতুন আইন, বাধ্যবাধকতা এবং সর্বোপরি এর আওতায় ব্যবসা ও বিনিয়োগের নতুন সুযোগের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে চেম্বার অব কমার্সের সহায়তা কামনা করেন। এর ধারাবাহিকতায় পূর্বাঞ্চলীয় চেম্বার সভাপতি বাংলাদেশের অভিবাসী ব্যবসায়ীদের জন্য ৭ জুলাই এ ওয়েবিনার আয়োজন করেন। বিজ্ঞপ্তি

দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন